তাইগ্রের অধিকাংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনী
jugantor
তাইগ্রের অধিকাংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনী

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ২০:৩৭:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

তাইগ্রের অধিকাংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনী

ইথিওপিয়ার সংঘাতপূর্ণ উত্তরাঞ্চলীয় তাইগ্রে রাজ্যের বেশির ভাগ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।

কয়েক সপ্তাহ ধরে ইথিওপিয়ার বিদ্রোহী দল তাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘাত চলছে।

ইথিওপিয়ার সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল হাসান ইব্রাহিম বলেন, সেনাবাহিনী তাইগ্রের রাজধানী মেকেলের উত্তরের এলাকারা উইক্রো দখল করে নিয়েছে। এর পাশাপাশি দখল হয়েছে কয়েকটি এলাকা। খবর বিবিসির।

সম্প্রতি ইথিওপিয়ার সরকার বলে, তাইগ্রে এলাকায় ‘চূড়ান্ত পদক্ষেপ’ নিতে শুরু করেছে। তারপরই সেনাবাহিনীর এ ঘোষণা এল। সেনাবাহিনীর সঙ্গে টিপিএলএফের সদস্যদের সংঘর্ষে কয়েক শ লোকের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানা গেছে।

সংঘাতে কয়েক হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছে। এই সংঘাত নিয়ে সঠিক কোনো তথ্য পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। কারণ, তাইগ্রের সব ফোন, মুঠোফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করা হয়েছে।

শুক্রবার ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেছেন, এ এলাকার সাধারণ মানুষের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে। তবে এই সংঘাত কবে শেষ হবে তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কিছু বলেননি।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, রাজধানী মেকেলের অধিবাসীদের যেন কোনো ক্ষতি না হয়, সে জন্য চেষ্টা করবে সেনাবাহিনী। মেকেলেতে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের বাস। প্রধানমন্ত্রী এসব মানুষকে তাদের ঘরে থাকতেও আহ্বান জানিয়েছিলেন।


তাইগ্রের অধিকাংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনী

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তাইগ্রের অধিকাংশ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনী
ছবি: সংগৃহীত

ইথিওপিয়ার সংঘাতপূর্ণ উত্তরাঞ্চলীয় তাইগ্রে রাজ্যের বেশির ভাগ এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। 

কয়েক সপ্তাহ ধরে ইথিওপিয়ার বিদ্রোহী দল তাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘাত চলছে। 

ইথিওপিয়ার সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল হাসান ইব্রাহিম বলেন, সেনাবাহিনী তাইগ্রের রাজধানী মেকেলের উত্তরের এলাকারা উইক্রো দখল করে নিয়েছে। এর পাশাপাশি দখল হয়েছে কয়েকটি এলাকা। খবর বিবিসির। 

সম্প্রতি ইথিওপিয়ার সরকার বলে, তাইগ্রে এলাকায় ‘চূড়ান্ত পদক্ষেপ’ নিতে শুরু করেছে। তারপরই সেনাবাহিনীর এ ঘোষণা এল। সেনাবাহিনীর সঙ্গে টিপিএলএফের সদস্যদের সংঘর্ষে কয়েক শ লোকের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানা গেছে। 

সংঘাতে কয়েক হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছে। এই সংঘাত নিয়ে সঠিক কোনো তথ্য পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। কারণ, তাইগ্রের সব ফোন, মুঠোফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করা হয়েছে।

শুক্রবার ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেছেন, এ এলাকার সাধারণ মানুষের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে। তবে এই সংঘাত কবে শেষ হবে তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কিছু বলেননি। 

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, রাজধানী মেকেলের অধিবাসীদের যেন কোনো ক্ষতি না হয়, সে জন্য চেষ্টা করবে সেনাবাহিনী। মেকেলেতে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের বাস। প্রধানমন্ত্রী এসব মানুষকে তাদের ঘরে থাকতেও আহ্বান জানিয়েছিলেন।