ট্রাম্পের বিতর্কিত করোনা উপদেষ্টার পদত্যাগ
jugantor
ট্রাম্পের বিতর্কিত করোনা উপদেষ্টার পদত্যাগ

  অনলাইন ডেস্ক  

০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:০০:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

স্কট অ্যাটলাস ও ডোনাল্ড ট্রাম্প

ট্রাম্প প্রশাসনের বিতর্কিত করোনো উপদেষ্টা স্কট অ্যাটলাস পদত্যাগ করেছেন। মাত্র চারমাস আগে তিনি নিয়োগ পেয়েছিলেন। খবর-বিবিসির।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজ স্কট অ্যাটলাসের পদত্যাগপত্র সংগ্রহ করেছে। যেখানে লেখা রয়েছে ডিসেম্বরের ১ তারিখ থেকেই পদত্যাগ করছেন তিনি।

ট্রাম্পের আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত স্কট অ্যাটলাস বিভিন্ন সময়ে মাস্ক ব্যবহার এবং অন্যান্য ইস্যুতে উল্টাপাল্টা মন্তব্য করে তিনি গণমাধ্যমে আলোচনায় এসেছিলেন।

ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে লেখা পদত্যাগপত্রে স্কট বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বিশেষ উপদেষ্টার পদ থেকে পদত্যাগ করছি আমি। এই মহামারীতে আমেরিকানদের জীবন বাঁচানোর একমাত্র লক্ষ্য নিয়ে আমি সর্বোচ্চটা দিয়ে কাজ করেছি।’

অ্যাটলাস বলেন, সবসময়ই তিনি বিজ্ঞানের সর্বশেষ তথ্য ও প্রমাণের ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্ররোচনা বা প্রভাব ছিল না।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। অ্যান্থনি ফাউচিসহ বিভিন্ন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কাছে থেকে বিভিন্ন বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে সমালোচনার স্বীকার হয়েছেন এই কর্মকর্তা।

ট্রাম্পের বিতর্কিত করোনা উপদেষ্টার পদত্যাগ

 অনলাইন ডেস্ক 
০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্কট অ্যাটলাস ও ডোনাল্ড ট্রাম্প
স্কট অ্যাটলাস ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: বিবিসি

ট্রাম্প প্রশাসনের বিতর্কিত করোনো উপদেষ্টা স্কট অ্যাটলাস পদত্যাগ করেছেন। মাত্র চারমাস আগে তিনি নিয়োগ পেয়েছিলেন। খবর-বিবিসির।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজ স্কট অ্যাটলাসের পদত্যাগপত্র সংগ্রহ করেছে। যেখানে লেখা রয়েছে ডিসেম্বরের ১ তারিখ থেকেই পদত্যাগ করছেন তিনি।

ট্রাম্পের আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত স্কট অ্যাটলাস বিভিন্ন সময়ে মাস্ক ব্যবহার এবং অন্যান্য ইস্যুতে উল্টাপাল্টা মন্তব্য করে তিনি গণমাধ্যমে আলোচনায় এসেছিলেন।

ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে লেখা পদত্যাগপত্রে স্কট বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বিশেষ উপদেষ্টার পদ থেকে পদত্যাগ করছি আমি। এই মহামারীতে আমেরিকানদের জীবন বাঁচানোর একমাত্র লক্ষ্য নিয়ে আমি সর্বোচ্চটা দিয়ে কাজ করেছি।’

অ্যাটলাস বলেন, সবসময়ই তিনি বিজ্ঞানের সর্বশেষ তথ্য ও প্রমাণের ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্ররোচনা বা প্রভাব ছিল না। 

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। অ্যান্থনি ফাউচিসহ বিভিন্ন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কাছে থেকে বিভিন্ন বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে সমালোচনার স্বীকার হয়েছেন এই কর্মকর্তা।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস