ফাখরিজাদেহ হত্যার বিভিন্ন ক্লু পাওয়ার দাবি ইরানের
jugantor
ফাখরিজাদেহ হত্যার বিভিন্ন ক্লু পাওয়ার দাবি ইরানের

  যুগান্তর ডেস্ক  

০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:৩৪:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ফাখরিজাদেহকে হত্যার বিভিন্ন ক্লু পাওয়ার দাবি ইরানের

ইরানের অন্যতম পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহকে হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন ক্লু পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির গোয়েন্দা বিষয়ক মন্ত্রী মাহমুদ আলাভি।

তিনি বলেছেন, শীর্ষ এ বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বিভিন্ন আঙ্গিক থেকে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর পরই ইরানের নিরাপত্তা বাহিনী সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা শুরু করেছে এবং তারা ইতিমধ্যে বিভিন্ন ধরনের ক্লু খুঁজে বের করতে সফল হয়েছে।

সোমবার তেহরানের ইমামজাদা সালেহর মাজার প্রাঙ্গনে ফাখরিজাদের দাফন অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তৃতায় মাহমুদ আলাভি এসব কথা বলেন। খবর ইরনার।

গোয়েন্দা মন্ত্রী বলেন, এখনই এ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে না কারণ বিষয়গুলো তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। তবে ইরানের জনগণকে সময়মতো অবশ্যই তদন্তের ফলাফল জানানো হবে।

এদিন শহীদের মর্যাদা দিয়ে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মোহসেন ফাখরিজাদেহ তেহরানের ইমামজাদা সালেহর মাজার প্রাঙ্গনে দাফন করা হয়।

করোনাভাইরাসের কারণে ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত ফাখরিজাদের জানাজায় শুধু নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তিই উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে সামরিক বাহিনীর বেশ কয়েক ডজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ফাখরিজাদের পরিবারের সদস্যরা ছিলেন।

পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলো দীর্ঘদিন থেকেই ফাখরিজাদেকে ইরানের গোপন পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচির মূল ব্যক্তি বলে সন্দেহ করে এসেছে। কূটনৈতিকরা তাকে ‌‘ইরানের বোমার জনক’ আখ্যা দিয়েছিলেন।

শুক্রবার তেহরানের কাছে গুপ্ত হামলার শিকার হয়ে মারা যান তিনি। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য ইরানের দীর্ঘদিনের শত্রু ইসরাইলকে দায়ী করেছে ইরানের রাজনৈতিক নেতারা ও সামরিক বাহিনী।

দেশটির পক্ষ থেকে ফাখরিজাদেহের হত্যার প্রতিশোধের কথা বলা হয়।

ফাখরিজাদেহ হত্যার বিভিন্ন ক্লু পাওয়ার দাবি ইরানের

 যুগান্তর ডেস্ক 
০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ফাখরিজাদেহকে হত্যার বিভিন্ন ক্লু পাওয়ার দাবি ইরানের
ছবি: ইরনা

ইরানের অন্যতম পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহকে হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন ক্লু পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির গোয়েন্দা বিষয়ক মন্ত্রী মাহমুদ আলাভি। 

তিনি বলেছেন, শীর্ষ এ বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বিভিন্ন আঙ্গিক থেকে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর পরই ইরানের নিরাপত্তা বাহিনী সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা শুরু করেছে এবং তারা ইতিমধ্যে বিভিন্ন ধরনের ক্লু খুঁজে বের করতে সফল হয়েছে। 

সোমবার তেহরানের ইমামজাদা সালেহর মাজার প্রাঙ্গনে ফাখরিজাদের দাফন অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তৃতায় মাহমুদ আলাভি এসব কথা বলেন। খবর ইরনার। 

গোয়েন্দা মন্ত্রী বলেন, এখনই এ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে না কারণ বিষয়গুলো তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। তবে ইরানের জনগণকে সময়মতো অবশ্যই তদন্তের ফলাফল জানানো হবে।

এদিন শহীদের মর্যাদা দিয়ে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মোহসেন ফাখরিজাদেহ তেহরানের ইমামজাদা সালেহর মাজার প্রাঙ্গনে দাফন করা হয়।  

করোনাভাইরাসের কারণে ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত ফাখরিজাদের জানাজায় শুধু নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তিই উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে সামরিক বাহিনীর বেশ কয়েক ডজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ফাখরিজাদের পরিবারের সদস্যরা ছিলেন।

পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলো দীর্ঘদিন থেকেই ফাখরিজাদেকে ইরানের গোপন পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচির মূল ব্যক্তি বলে সন্দেহ করে এসেছে। কূটনৈতিকরা তাকে ‌‘ইরানের বোমার জনক’ আখ্যা দিয়েছিলেন।

শুক্রবার তেহরানের কাছে গুপ্ত হামলার শিকার হয়ে মারা যান তিনি। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য ইরানের দীর্ঘদিনের শত্রু ইসরাইলকে দায়ী করেছে ইরানের রাজনৈতিক নেতারা ও সামরিক বাহিনী। 

দেশটির পক্ষ থেকে ফাখরিজাদেহের হত্যার প্রতিশোধের কথা বলা হয়।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ইরানের পরমাণু বিজ্ঞানীকে হত্যা