অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতি 
jugantor
অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতি 

  শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে   

০২ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:০২:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসা অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছেন। নির্বাচনকালীন বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে অবৈধ সুযোগ-সুবিধা আদায়ের অভিযোগে রাষ্ট্রপতি রামাপোসার বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোটের এ অভিযোগ এনেছেন দেশটির বিরোধী দল আফ্রিকান ট্রান্সফরমেশন মোমেন্ট (এটিএম)।

মূলত গত ২০১৯ সালের শেষদিকে দলটি রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনলেও চলতি বছর করোনা পরিস্থিতিতে অনাস্থা ভোটের অভিযোগটি আটকে যায়। দেশটির বিরোধী দল এটিএম সোমবার তাদের দলীয় আইনজীবীর মাধ্যমে আবার অনাস্থা ভোটের অভিযোগটি সংসদের স্পিকারের কাছে পেশ করেছেন।

সংসদের স্পিকারের কাছে তারা লিখিত অভিযোগে বলেছেন, বর্তমান রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসা নির্বাচনের আগে বিভিন্ন বেসরকারি কোম্পানির কাছ থেকে নির্বাচনী খরচ বাবদ মোটা অংকের অর্থ আদায় করছেন; যা রীতিমতো অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক। তাই রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে তারা সংসদে অনাস্থা ভোটের দাবি জানিয়েছে।

কারণ নির্বাচিত হওয়ার পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচনী হিসাব দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, দক্ষিণ আফ্রিকার জাতীয় সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ সদস্য ক্ষমতাসীন এএনসির; এজন্য এটিএমের অনাস্থা ভোটের কোনো প্রভাব পড়বে না রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসার ওপর।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৮ সালে রাষ্ট্রপতি জ্যাকব জুমা নিজ দল এএনসির অনাস্থা ভোটে হেরে গিয়ে রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বরখাস্ত হয়েছিলেন।

অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতি 

 শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে  
০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসা অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছেন। নির্বাচনকালীন বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে অবৈধ সুযোগ-সুবিধা আদায়ের অভিযোগে রাষ্ট্রপতি রামাপোসার বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোটের এ অভিযোগ এনেছেন দেশটির বিরোধী দল আফ্রিকান ট্রান্সফরমেশন মোমেন্ট (এটিএম)।

মূলত গত ২০১৯ সালের শেষদিকে দলটি রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনলেও চলতি বছর করোনা পরিস্থিতিতে অনাস্থা ভোটের অভিযোগটি আটকে যায়। দেশটির বিরোধী দল এটিএম সোমবার তাদের দলীয় আইনজীবীর মাধ্যমে আবার অনাস্থা ভোটের অভিযোগটি সংসদের স্পিকারের কাছে পেশ করেছেন। 

সংসদের স্পিকারের কাছে তারা লিখিত অভিযোগে বলেছেন, বর্তমান রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসা নির্বাচনের আগে বিভিন্ন বেসরকারি কোম্পানির কাছ থেকে নির্বাচনী খরচ বাবদ মোটা অংকের অর্থ আদায় করছেন; যা রীতিমতো অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক। তাই রাষ্ট্রপতির বিরুদ্ধে তারা সংসদে অনাস্থা ভোটের দাবি জানিয়েছে।

কারণ নির্বাচিত হওয়ার পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচনী হিসাব দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, দক্ষিণ আফ্রিকার জাতীয় সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ সদস্য ক্ষমতাসীন এএনসির; এজন্য এটিএমের অনাস্থা ভোটের কোনো প্রভাব পড়বে না রাষ্ট্রপতি সিরিল রামাপোসার ওপর। 

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৮ সালে রাষ্ট্রপতি জ্যাকব জুমা নিজ দল এএনসির অনাস্থা ভোটে হেরে গিয়ে রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বরখাস্ত হয়েছিলেন।