ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে যে শর্ত সৌদির
jugantor
ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে যে শর্ত সৌদির

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮:৪৫:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান।

ইসরাইলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্কের জন্য আগে স্বাধীন ফিলিস্তিন প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান।

শুক্রবার মেড-২০২০ নামে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিয়ে সৌদি যুবরাজ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণে আমাদের একটি শান্তি চুক্তি দরকার, যা মর্যাদাসম্পন্ন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র এবং কার্যকর সার্বভৌমত্বের অধিকার প্রদান করবে। তাহলেই সেটি ফিলিস্তিনিরা মেনে নিতে পারেন।

এ জন্য ১৯৬৭ সালের সীমানা অনুযায়ী স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠিত হলেই কেবল ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার কথা বিবেচনা করবে সৌদি আরব। খবর আল জাজিরার।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখন চুক্তি নিয়ে আলোচনা হতে হবে। এখন যা সবচেয়ে জরুরি তা হচ্ছে, ইসরাইলি ও ফিলিস্তিনিদের আলোচনার টেবিলে ফিরিয়ে আনা।

সেপ্টেম্বর মাসে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় হওয়া ওই চুক্তিকে ‘পিঠে ছুরিকাঘাত’ বলে মনে করছেন ফিলিস্তিনিরা।

ইসরাইল ও ফিলিস্তিনকে দুটি আলাদা রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া আরব শান্তি আলোচনার অন্যতম উদ্দেশ্য। ২০০২ সালে সৌদি আরবই প্রথম এ সমাধানের প্রস্তাব করেছিল।

১৯৪৭ সালে অবৈধভাবে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে জেঁকে বসার পর ১৯৬৭ সাল থেকে ইসরাইল পশ্চিমতীরে দখলদারিত্ব চালিয়ে আসছে।

ইসরাইলের এমন আচরণের বিরুদ্ধে মুসলিম, বিশেষত আরব দেশগুলো একমত থাকলেও সম্প্রতি বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উদ্যোগে পরিস্থিতি বদলে যাচ্ছে।

আরব আমিরাত ও বাহরাইন ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে।

সৌদির ইশারায় এমনটি করা হয়েছে বলে মনে করা হয় এবং পরবর্তী সময় সৌদিও একই কাজ করবে বলে সবার অনুমান করেছেন বিশেষগজ্ঞরা।

ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে যে শর্ত সৌদির

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান।
সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান। ছবি: আল জাজিরা

ইসরাইলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্কের জন্য আগে স্বাধীন ফিলিস্তিন প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান। 

শুক্রবার মেড-২০২০ নামে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিয়ে সৌদি যুবরাজ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণে আমাদের একটি শান্তি চুক্তি দরকার, যা মর্যাদাসম্পন্ন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র এবং কার্যকর সার্বভৌমত্বের অধিকার প্রদান করবে। তাহলেই সেটি ফিলিস্তিনিরা মেনে নিতে পারেন। 

এ জন্য ১৯৬৭ সালের সীমানা অনুযায়ী স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠিত হলেই কেবল ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার কথা বিবেচনা করবে সৌদি আরব। খবর আল জাজিরার। 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখন চুক্তি নিয়ে আলোচনা হতে হবে। এখন যা সবচেয়ে জরুরি তা হচ্ছে, ইসরাইলি ও ফিলিস্তিনিদের আলোচনার টেবিলে ফিরিয়ে আনা।

সেপ্টেম্বর মাসে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় হওয়া ওই চুক্তিকে ‘পিঠে ছুরিকাঘাত’ বলে মনে করছেন ফিলিস্তিনিরা।

ইসরাইল ও ফিলিস্তিনকে দুটি আলাদা রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া আরব শান্তি আলোচনার অন্যতম উদ্দেশ্য। ২০০২ সালে সৌদি আরবই প্রথম এ সমাধানের প্রস্তাব করেছিল।

১৯৪৭ সালে অবৈধভাবে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে জেঁকে বসার পর ১৯৬৭ সাল থেকে ইসরাইল পশ্চিমতীরে দখলদারিত্ব চালিয়ে আসছে। 

ইসরাইলের এমন আচরণের বিরুদ্ধে মুসলিম, বিশেষত আরব দেশগুলো একমত থাকলেও সম্প্রতি বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উদ্যোগে পরিস্থিতি বদলে যাচ্ছে। 

আরব আমিরাত ও বাহরাইন ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে। 

সৌদির ইশারায় এমনটি করা হয়েছে বলে মনে করা হয় এবং পরবর্তী সময় সৌদিও একই কাজ করবে বলে সবার অনুমান করেছেন বিশেষগজ্ঞরা। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আরব আমিরাত-ইসরাইল সম্পর্ক