চীনের বাজারে তুরস্কের চোখ, বেইজিংয়ের উদ্দেশে আরেক ট্রেন 
jugantor
চীনের বাজারে তুরস্কের চোখ, বেইজিংয়ের উদ্দেশে আরেক ট্রেন 

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:০৬:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

চীনের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া তুর্কি ট্রেন

রুশ এস-৪০০ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তুরস্কের সম্পর্ক অবনতির পর চীনা বাজারে চোখ দিয়েছে আঙ্কারা। শনিবার পণ্যবাহী দুটি কন্টেইনারসহ একটি কার্গো ট্রেন ১২ দিন যাত্রা শেষে সফলভাবে চীনে পৌঁছায়। এরপরই ৪২ কন্টেইনার রফতানি পণ্য নিয়ে চীনের উদ্দেশে আরেকটি ট্রেন যাত্রা শুরু করে।

তুর্কি সংবাদমাধ্যম ইয়েনি শাফাক জানিয়েছে, উত্তরপশ্চিম তুরস্ক থেকে চীনের উদ্দেশে যাত্রা একটি বড় মাইলফলক। ৪২ কন্টেইনার নিয়ে রফতানি কার্গো ট্রেনটি রোববার বেইজিংয়ের পথে যাত্রা শুরু করে।

এই ট্রেনটি আঙ্কারা-সিভাস-কার্স রুট হয়ে জর্জিয়া, আজারবাইজান, কাসপিয়ান সাগরের উপর দিয়ে কাজাখাস্তানের হয়ে চীনের জিয়ান শহরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

ট্রেনটি দুটি মহাদেশ ও দুটি সাগরের ওপর দিয়ে পাঁচটি দেশকে অতিক্রম করে চীনে পৌঁছাবে।এতে এই কার্গো ট্রেনটির ১২ দিন সময় লাগবে তার গন্তব্যে পৌঁছাতে। এই ট্রেনটিকে সব মিলিয়ে সাড়ে আট হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিতে হবে।

এর আগে শনিবার তুরস্ক থেকে পণ্যবাহী একটি ট্রেন চীনে পৌঁছায়। ট্রেনটি ৪ ডিসেম্বর ইস্তানবুল থেকে থেকে যাত্রা শুরু করে। ৮ হাজার ৬৯৩ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে বেইজিংয়ের জিয়ান শহরে পৌঁছায়।

রাশিয়া থেকে এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনা নিয়ে তুরস্কের ওপর সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা দেয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আঙ্কারার প্রতিরক্ষা শিল্পের প্রধানসহ আরও দুইজনের ওপর এ নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে দেয়া হয়। যদিও এ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাখ্যান করেছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান।

চীনের বাজারে তুরস্কের চোখ, বেইজিংয়ের উদ্দেশে আরেক ট্রেন 

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চীনের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া তুর্কি ট্রেন
চীনের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া তুর্কি ট্রেন।ছবি: ইয়েনি শাফাক

রুশ এস-৪০০ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তুরস্কের সম্পর্ক অবনতির পর চীনা বাজারে চোখ দিয়েছে আঙ্কারা। শনিবার পণ্যবাহী দুটি কন্টেইনারসহ একটি কার্গো ট্রেন ১২ দিন যাত্রা শেষে সফলভাবে চীনে পৌঁছায়। এরপরই ৪২ কন্টেইনার রফতানি পণ্য নিয়ে চীনের উদ্দেশে আরেকটি ট্রেন যাত্রা শুরু করে।   

তুর্কি সংবাদমাধ্যম ইয়েনি শাফাক জানিয়েছে, উত্তরপশ্চিম তুরস্ক থেকে চীনের উদ্দেশে যাত্রা একটি বড় মাইলফলক।  ৪২ কন্টেইনার নিয়ে রফতানি কার্গো ট্রেনটি রোববার বেইজিংয়ের পথে যাত্রা শুরু করে।

এই ট্রেনটি আঙ্কারা-সিভাস-কার্স রুট হয়ে জর্জিয়া, আজারবাইজান, কাসপিয়ান সাগরের উপর দিয়ে কাজাখাস্তানের হয়ে চীনের জিয়ান শহরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

ট্রেনটি দুটি মহাদেশ ও দুটি সাগরের ওপর দিয়ে পাঁচটি দেশকে অতিক্রম করে চীনে পৌঁছাবে।এতে এই কার্গো ট্রেনটির ১২ দিন সময় লাগবে তার গন্তব্যে পৌঁছাতে। এই ট্রেনটিকে সব মিলিয়ে সাড়ে আট হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিতে হবে।  

এর আগে শনিবার তুরস্ক থেকে পণ্যবাহী একটি ট্রেন চীনে পৌঁছায়। ট্রেনটি ৪ ডিসেম্বর ইস্তানবুল থেকে থেকে যাত্রা শুরু করে।  ৮ হাজার ৬৯৩ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে বেইজিংয়ের জিয়ান শহরে পৌঁছায়। 

রাশিয়া থেকে এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনা নিয়ে তুরস্কের ওপর সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা দেয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আঙ্কারার প্রতিরক্ষা শিল্পের প্রধানসহ আরও দুইজনের ওপর এ নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে দেয়া হয়। যদিও এ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাখ্যান করেছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান।   

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-তুরস্ক এস-৪০০ বিতর্ক