রোমে নববর্ষের আতশবাজিতে পুড়ে মরল শত শত পাখি
jugantor
রোমে নববর্ষের আতশবাজিতে পুড়ে মরল শত শত পাখি

  অনলাইন ডেস্ক  

০২ জানুয়ারি ২০২১, ২০:২৮:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ছবি: সংগৃহীত

নববর্ষের উদযাপনের বলি হলো ইতালির শত শত পাখি। ইতালির রাজধানী রুমে নববর্ষ উদযাপনে অনেকেই আতশবাজিতে মেতে উঠেছিলেন। এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জীববৈচিত্রের। আতশবাজির কারণে শত শত পাখির মৃতু্য হয়েছে বলে শুক্রবার জানিয়েছে পশুপাখি অধিকার গ্রুপ। এ ঘটনাকে তারা ‘গণহত্যা’ বলে দাবি করেছেন। খবর এপি ও নিউ ইয়র্ক টাইমস।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মৃত্যুর কারণ এখনও স্পষ্ট নয়। তবে আন্তর্জাতিক প্রাণী অধিকার সংরক্ষণ সংস্থা ওআইপিএ জানিয়েছে, এটা উচ্চ তরঙ্গের শব্দ, ও আকাশে মাত্রাতিরিক্ত আলোর ঝলকানি দেখে ভয়ে তারা সবাই একসঙ্গে উড়তে গিয়ে একে অপরের সঙ্গে প্রচণ্ডভাবে ধাক্কা খেয়ে মারা যেতে পারে। কিছু পাখি বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যেতে পারে বলে ধারণা পাখিপ্রেমীদের।

স্কাই নিউজের একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ইতালির রাজধানী রোমের প্রধান ট্রেন স্টেশনের কাছে অনেক পাখি পড়ে রয়েছে। এদের মধ্যে অধিকাংশ স্টার্লিং পাখি।

এদিকে ঠিক কী কারণে এত পাখি মারা গেল সে বিষয়ে এখনো কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি ইতালি সরকার। তবে আইওপিএ'র দাবি, ব্যাপক হারে আতশবাজি পোড়ানোর কারণে পাখিদের এই পরিণতি।

ওআইপিএর মুখপাত্র লোরডানা ডিজিলিও বলেন, ‘পাখিগুলো ভয়ে মারা যেতে পারে। হয়তো বিকট শব্দ শুনে সবাই একসঙ্গে আকাশে উড়েছে। একে-অপরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়েছে। জানালায় গিয়ে আচড়ে পড়েছে। বিদ্যুতের তারে বেঁধেছে। ভুলে গেলে চলবে না, তারা হার্ট-অ্যাটাকেও মরতে পারে।’

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে রোমে আতশবাজি নিষিদ্ধ করা হয়। রাত ১০টা পর্যন্ত শহরে কারফিউ ছিল। এই ঘটনার পর আতশবাজির বিক্রি নিষিদ্ধের আহ্বান জানিয়েছে আইওপিএ।

নিউ ইয়র্ক টাইমস এ ঘটনার শিরোনাম করেছে,‘নতুন বছরে আতশবাজিতে ‘গণহত্যার’ শিকার পাখিরা’।

রোমে নববর্ষের আতশবাজিতে পুড়ে মরল শত শত পাখি

 অনলাইন ডেস্ক 
০২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ছবি: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত

নববর্ষের উদযাপনের বলি হলো ইতালির শত শত পাখি।  ইতালির রাজধানী রুমে নববর্ষ উদযাপনে অনেকেই আতশবাজিতে মেতে উঠেছিলেন। এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জীববৈচিত্রের। আতশবাজির কারণে শত শত পাখির মৃতু্য হয়েছে বলে শুক্রবার জানিয়েছে পশুপাখি অধিকার গ্রুপ।  এ ঘটনাকে তারা ‘গণহত্যা’ বলে দাবি করেছেন। খবর এপি ও নিউ ইয়র্ক টাইমস।
 
প্রতিবেদনে বলা হয়, মৃত্যুর কারণ এখনও স্পষ্ট নয়। তবে আন্তর্জাতিক প্রাণী অধিকার সংরক্ষণ সংস্থা ওআইপিএ জানিয়েছে, এটা উচ্চ তরঙ্গের শব্দ, ও আকাশে মাত্রাতিরিক্ত আলোর ঝলকানি দেখে ভয়ে তারা সবাই একসঙ্গে উড়তে গিয়ে একে অপরের সঙ্গে প্রচণ্ডভাবে ধাক্কা খেয়ে মারা যেতে পারে। কিছু পাখি বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যেতে পারে বলে ধারণা পাখিপ্রেমীদের।

স্কাই নিউজের একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ইতালির রাজধানী রোমের প্রধান ট্রেন স্টেশনের কাছে অনেক পাখি পড়ে রয়েছে। এদের মধ্যে অধিকাংশ স্টার্লিং পাখি।

এদিকে ঠিক কী কারণে এত পাখি মারা গেল সে বিষয়ে এখনো কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি ইতালি সরকার। তবে আইওপিএ'র দাবি, ব্যাপক হারে আতশবাজি পোড়ানোর কারণে পাখিদের এই পরিণতি।

ওআইপিএর মুখপাত্র লোরডানা ডিজিলিও বলেন, ‘পাখিগুলো ভয়ে মারা যেতে পারে। হয়তো বিকট শব্দ শুনে সবাই একসঙ্গে আকাশে উড়েছে।  একে-অপরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়েছে। জানালায় গিয়ে আচড়ে পড়েছে। বিদ্যুতের তারে বেঁধেছে।  ভুলে গেলে চলবে না, তারা হার্ট-অ্যাটাকেও মরতে পারে।’

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে রোমে আতশবাজি নিষিদ্ধ করা হয়।  রাত ১০টা পর্যন্ত শহরে কারফিউ ছিল।  এই ঘটনার পর  আতশবাজির বিক্রি নিষিদ্ধের আহ্বান জানিয়েছে আইওপিএ।

নিউ ইয়র্ক টাইমস এ ঘটনার শিরোনাম করেছে, ‘নতুন বছরে আতশবাজিতে ‘গণহত্যার’ শিকার পাখিরা’।