ভোট বানচালের আবেদন খারিজ করলেন ট্রাম্পের নিয়োগকৃত সেই বিচারক
jugantor
ভোট বানচালের আবেদন খারিজ করলেন ট্রাম্পের নিয়োগকৃত সেই বিচারক

  অনলাইন ডেস্ক  

০২ জানুয়ারি ২০২১, ২০:৪৫:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি

ট্রাম্প ও তার অন্ধ সমর্থকদের কেউ কেউ এখনো তার দ্বিতীয় মেয়াদের দিবাস্বপ্ন দেখছেন। এ জন্য ইলেকটোরাল কলেজ ভোট বানচালে আবারও আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা।

রিপাবলিকান প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য টেক্সাসের লুই গহমার্ট ও আরিজোনার কয়েকজন ইলেকটোরাল কলেজ ভোটার ভোট বানচালে আদালতে আবেদন করেছিলেন। তাদের আর্জি ছিল ৬ জানুয়ারি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট সত্যায়নের ক্ষেত্রে ইলেকটরদের ভোট প্রত্যাখ্যান করার জন্য ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে ক্ষমতা দেয়া হোক। কারণ ভোটে জালিয়াতি ও কারচুপি করে জো বাইডেনকে জেতানো হয়েছে।

হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের টিকে থাকার সর্বশেষ চেষ্টা হচ্ছে ইলেকটোরাল ভোট সত্যায়ন বানচাল করা। ট্রাম্প ও তার উগ্রভক্তরা এই স্বপ্ন দেখছেন। কারণ এখনো সিনেটে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। সর্বোপরি, পদাধিকার বলে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স কংগ্রেসের ওই যৌথ অধিবেশনের সভাপতি।

ফলে পেন্স যাতে বাইডেনের পক্ষে যাওয়া ইলেকটোরাল ভোটের ফল বদলে দিতে পারেন তাকে সেই ক্ষমতা দেওয়ার জন্য আবেদনটি করা হয় ফেডারেল বেঞ্চে। কিন্তু আবেদনকারীরা নির্বাচনের ফলাফলে কোনো ধরনের ক্ষতিগ্রস্ত নন। এ কারণে তাদের এমন আবেদনের কোনো আইনি ভিত্তি নেই বলে আবেদনটি খারিজ করেন বিচারক জেরেমি কেরনোডল। এর মধ্য দিয়ে ট্রাম্প সমর্থকদের ফল পরিবর্তনের চেষ্টা শেষ মুহূর্তে এসে আবারও ধাক্কা খেল।

ভোট বানচালের আবেদন খারিজ করলেন ট্রাম্পের নিয়োগকৃত সেই বিচারক

 অনলাইন ডেস্ক 
০২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি

ট্রাম্প ও তার অন্ধ সমর্থকদের কেউ কেউ এখনো তার দ্বিতীয় মেয়াদের দিবাস্বপ্ন দেখছেন। এ জন্য ইলেকটোরাল কলেজ ভোট বানচালে আবারও আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা। 

রিপাবলিকান প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য টেক্সাসের লুই গহমার্ট ও আরিজোনার কয়েকজন ইলেকটোরাল কলেজ ভোটার ভোট বানচালে আদালতে আবেদন করেছিলেন। তাদের আর্জি ছিল ৬ জানুয়ারি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট সত্যায়নের ক্ষেত্রে ইলেকটরদের ভোট প্রত্যাখ্যান করার জন্য ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে ক্ষমতা দেয়া হোক। কারণ ভোটে জালিয়াতি ও কারচুপি করে জো বাইডেনকে জেতানো হয়েছে। 

হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের টিকে থাকার সর্বশেষ চেষ্টা হচ্ছে ইলেকটোরাল ভোট সত্যায়ন বানচাল করা। ট্রাম্প ও তার উগ্রভক্তরা এই স্বপ্ন দেখছেন। কারণ এখনো সিনেটে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। সর্বোপরি, পদাধিকার বলে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স কংগ্রেসের ওই যৌথ অধিবেশনের সভাপতি।

ফলে পেন্স যাতে বাইডেনের পক্ষে যাওয়া ইলেকটোরাল ভোটের ফল বদলে দিতে পারেন তাকে সেই ক্ষমতা দেওয়ার জন্য আবেদনটি করা হয় ফেডারেল বেঞ্চে। কিন্তু আবেদনকারীরা নির্বাচনের ফলাফলে কোনো ধরনের ক্ষতিগ্রস্ত নন। এ কারণে তাদের এমন আবেদনের কোনো আইনি ভিত্তি নেই বলে আবেদনটি খারিজ করেন বিচারক জেরেমি কেরনোডল। এর মধ্য দিয়ে ট্রাম্প সমর্থকদের ফল পরিবর্তনের চেষ্টা শেষ মুহূর্তে এসে আবারও ধাক্কা খেল।  

 

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন-২০২০