এখনো অন্ধকার পাকিস্তান, চেষ্টা চলছে আলোয় ফেরার
jugantor
এখনো অন্ধকার পাকিস্তান, চেষ্টা চলছে আলোয় ফেরার

  অনলাইন ডেস্ক  

১০ জানুয়ারি ২০২১, ১৯:২০:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

পাকিস্তান

বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে শনিবার পুরো রাত অন্ধকারে ডুবে যায় পাকিস্তান। শনিবার স্থানীয় সময় রাত পৌনে ১২টার দিকে হঠাৎ করেই ব্ল্যাকআউট হয়ে যায় গোটা দেশ। এরপর রাতভর অনিশ্চয়তা। এমন অস্বস্তিকর পরিবেশের পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

পাকিস্তানের গণমাধ্যমগুলো বলছে, করাচি, লাহোর, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, পেশোয়ার, মুলতান, কোয়েটা, ফয়সলাবাদ, মুজফ্ফরগড়, নারোয়াল, ভাক্কার, কবিরওয়ালা, খানেওয়ালা, ভাওয়ালপুর এবং সুক্কুরসহ দেশের ১১৪ শহরে বিদ্যুৎ।

রোববার সকালে কিছু কিছু এলাকায় দীর্ঘ সময় পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে, অন্য এলাকাগুলোও আঁধার থেকে আলোয় ফেরায় চেষ্টা করছে। তবে পুরো দেশে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।

বিবিসি বলছে, শনিবার মধ্যরাতে পাকিস্তানে বিদ্যুৎ নিয়ে যে কাণ্ড ঘটেছে, সেই একই রকম কাণ্ড দেশটিতে প্রায়ই ঘটে থাকে। কোনো এলাকায় মাঝে মাঝেই বিদ্যুৎ থাকে না। হাসপাতালের মতো জরুরি প্রতিষ্ঠাগুলোতেও অনেক সময় কাজ করতে ডিজেল চালিত জেনোরেটর দিয়ে।

বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে বালুচিস্তানের ২৯ জেলা। এই বিপর্যয়ের জেরে মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবাও থমকে গেছে। এমনকি জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেও কোনো বিদ্যুৎ নেই।

৫০০ কেভিএ ট্রান্সমিশন লাইনে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণে পাকিস্তান জুড়ে ব্ল্যাকআউট চলছে।

সকালে পাকিস্তানের বিদ্যুৎমন্ত্রী ওমর আইয়ুব খান এক টুইট বার্তায় বলেন, বিদ্যুৎ প্রবাহ ব্যবস্থাপনায় ত্রুটির কারণে পাকিস্তানে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তিনি জানান, পেশোয়ারসহ কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ পুনঃস্থাপিত হয়েছে। অন্য এলাকাগুলোতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।

এর আগে ২০১৩ সালে বেলুচিস্তানে পাওয়ার প্লান্টে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ায় পুরোপুরি ভেঙে পড়ে দেশটির বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবস্থাপনা। তখনও অন্ধকার হয়ে পড়ে পুরো পাকিস্তান।

এখনো অন্ধকার পাকিস্তান, চেষ্টা চলছে আলোয় ফেরার

 অনলাইন ডেস্ক 
১০ জানুয়ারি ২০২১, ০৭:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পাকিস্তান
ছবি: সংগৃহীত

বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে শনিবার পুরো রাত অন্ধকারে ডুবে যায় পাকিস্তান। শনিবার স্থানীয় সময় রাত পৌনে ১২টার দিকে হঠাৎ করেই ব্ল্যাকআউট হয়ে যায় গোটা দেশ। এরপর রাতভর অনিশ্চয়তা। এমন অস্বস্তিকর পরিবেশের পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

পাকিস্তানের গণমাধ্যমগুলো বলছে,  করাচি, লাহোর, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, পেশোয়ার, মুলতান, কোয়েটা, ফয়সলাবাদ, মুজফ্ফরগড়, নারোয়াল, ভাক্কার, কবিরওয়ালা, খানেওয়ালা, ভাওয়ালপুর এবং সুক্কুরসহ দেশের ১১৪ শহরে বিদ্যুৎ।

রোববার সকালে কিছু কিছু এলাকায় দীর্ঘ সময় পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে, অন্য এলাকাগুলোও আঁধার থেকে আলোয় ফেরায় চেষ্টা করছে। তবে পুরো দেশে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।

বিবিসি বলছে, শনিবার মধ্যরাতে পাকিস্তানে বিদ্যুৎ নিয়ে যে কাণ্ড ঘটেছে, সেই একই রকম কাণ্ড দেশটিতে প্রায়ই ঘটে থাকে। কোনো এলাকায় মাঝে মাঝেই বিদ্যুৎ থাকে না। হাসপাতালের মতো জরুরি প্রতিষ্ঠাগুলোতেও অনেক সময় কাজ করতে ডিজেল চালিত জেনোরেটর দিয়ে।

বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে বালুচিস্তানের ২৯ জেলা। এই বিপর্যয়ের জেরে মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবাও থমকে গেছে। এমনকি জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেও কোনো বিদ্যুৎ নেই।

৫০০ কেভিএ ট্রান্সমিশন লাইনে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণে পাকিস্তান জুড়ে ব্ল্যাকআউট চলছে।

সকালে পাকিস্তানের বিদ্যুৎমন্ত্রী ওমর আইয়ুব খান এক টুইট বার্তায় বলেন, বিদ্যুৎ প্রবাহ ব্যবস্থাপনায় ত্রুটির কারণে পাকিস্তানে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তিনি জানান, পেশোয়ারসহ কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ পুনঃস্থাপিত হয়েছে। অন্য এলাকাগুলোতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।

এর আগে ২০১৩ সালে বেলুচিস্তানে পাওয়ার প্লান্টে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ায় পুরোপুরি ভেঙে পড়ে দেশটির বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবস্থাপনা। তখনও অন্ধকার হয়ে পড়ে পুরো পাকিস্তান।