মালিতে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ শান্তিরক্ষী নিহত
jugantor
মালিতে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ শান্তিরক্ষী নিহত

  অনলাইন ডেস্ক  

১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:০২:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মালিতে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ শান্তিরক্ষী নিহত

মালির মধ্যাঞ্চলে সহিংসতায় আইভরি কোস্ট থেকে আসা জাতিসংঘের তিন শান্তিরক্ষী নিহত হয়েছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত শাহিল অঞ্চলে বুধবার বন্দুকধারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে তাদের হত্যা করেন।

এমআইএনইউএসএমএ শান্তিরক্ষী মিশন এক বিবৃতিতে জানায়, সড়কের পাশে একটি বোমা বিস্ফোরিত হলে মধ্যাঞ্চলীয় শহর দুয়েন্তজাকে সংযোজকারী সড়ক ধরে আরও উত্তরে অবস্থিত তিমবুকতোর দিকে যাচ্ছিলেন শান্তিরক্ষীরা। তখনই তাদের ওপর এ হামলা হয়েছে।-খবর এএফপির

শান্তিরক্ষীরা জোরালো জবাব দিতে শুরু করলে বন্দুকধারীরা পালিয়ে যান। মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে আইভরি কোস্টের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান লাসিনা দৌম্বিয়া বলেন, এতে আরও চার শান্তিরক্ষী আহত হয়েছেন। যদিও আগে সংখ্যাটি ছয় বলেছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, অ্যাটাক হেলিকপ্টার ও মেডিকেল বিমান মোতায়েনের মাধ্যমে ঘটনাস্থলে আকাশশক্তি বাড়ানো হয়েছে। আহতদের সেখান থেকে সরিয়ে আনা হয়েছে।

নিউইয়র্কের জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনের মুখপাত্র বলেন, একজন শান্তিরক্ষী নিহত ও সাতজন আহত হয়েছেন।

২০১২ সালে মালি অস্থিতিশীল হওয়ার পর সেখানে একের পর এক হামলা হয়ে আসছে। এখন পর্যন্ত সেখানে কয়েক হাজার বেসামরিক নাগরিক ও সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন।

পরবর্তী সময়ে এই সংঘাত বুরকিনা ফাসো ও নাইজারের মতো মধ্য মালিতেও ছড়িয়ে পড়ে। পাশাপাশি নৃতাত্ত্বিক উত্তেজনাও বাড়তে থাকে।

মালির জাতিসংঘ মিশনে (এমআইএনইউএসএমএ) ১৩ হাজারেরও বেশি সেনা সদস্য রয়েছে। তারা দেশটির উত্তরাঞ্চলে ও মধ্যাঞ্চলে বিভিন্ন সশস্ত্র গোষ্ঠীর সহিংসতা দমন করার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন।

শুরুর পর থেকে এ মিশনের প্রায় ২৩০ জন সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন। এতে জাতিসংঘের ১২টিরও বেশি শান্তিরক্ষা মিশনের মধ্যে এটি সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মালিতে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ শান্তিরক্ষী নিহত

 অনলাইন ডেস্ক 
১৪ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মালিতে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ শান্তিরক্ষী নিহত
ছবি: সংগৃহীত

মালির মধ্যাঞ্চলে সহিংসতায় আইভরি কোস্ট থেকে আসা জাতিসংঘের তিন শান্তিরক্ষী নিহত হয়েছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত শাহিল অঞ্চলে বুধবার বন্দুকধারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে তাদের হত্যা করেন।

এমআইএনইউএসএমএ শান্তিরক্ষী মিশন এক বিবৃতিতে জানায়, সড়কের পাশে একটি বোমা বিস্ফোরিত হলে মধ্যাঞ্চলীয় শহর দুয়েন্তজাকে সংযোজকারী সড়ক ধরে আরও উত্তরে অবস্থিত তিমবুকতোর দিকে যাচ্ছিলেন শান্তিরক্ষীরা। তখনই তাদের ওপর এ হামলা হয়েছে।-খবর এএফপির

শান্তিরক্ষীরা জোরালো জবাব দিতে শুরু করলে বন্দুকধারীরা পালিয়ে যান। মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে আইভরি কোস্টের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান লাসিনা দৌম্বিয়া বলেন, এতে আরও চার শান্তিরক্ষী আহত হয়েছেন। যদিও আগে সংখ্যাটি ছয় বলেছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, অ্যাটাক হেলিকপ্টার ও মেডিকেল বিমান মোতায়েনের মাধ্যমে ঘটনাস্থলে আকাশশক্তি বাড়ানো হয়েছে। আহতদের সেখান থেকে সরিয়ে আনা হয়েছে।

নিউইয়র্কের জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনের মুখপাত্র বলেন, একজন শান্তিরক্ষী নিহত ও সাতজন আহত হয়েছেন।

২০১২ সালে মালি অস্থিতিশীল হওয়ার পর সেখানে একের পর এক হামলা হয়ে আসছে। এখন পর্যন্ত সেখানে কয়েক হাজার বেসামরিক নাগরিক ও সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন।

পরবর্তী সময়ে এই সংঘাত বুরকিনা ফাসো ও নাইজারের মতো মধ্য মালিতেও ছড়িয়ে পড়ে। পাশাপাশি নৃতাত্ত্বিক উত্তেজনাও বাড়তে থাকে।

মালির জাতিসংঘ মিশনে (এমআইএনইউএসএমএ) ১৩ হাজারেরও বেশি সেনা সদস্য রয়েছে। তারা দেশটির উত্তরাঞ্চলে ও মধ্যাঞ্চলে বিভিন্ন সশস্ত্র গোষ্ঠীর সহিংসতা দমন করার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন।

শুরুর পর থেকে এ মিশনের প্রায় ২৩০ জন সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন। এতে জাতিসংঘের ১২টিরও বেশি শান্তিরক্ষা মিশনের মধ্যে এটি সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।