উসমানীয় সিংহাসনের সর্বশেষ উত্তরসূরি মারা গেছেন
jugantor
উসমানীয় সিংহাসনের সর্বশেষ উত্তরসূরি মারা গেছেন

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৩৯:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

উসমানীয় সিংহাসনের সর্বশেষ উত্তরসূরি মারা গেছেন

বিলুপ্ত হওয়া উসমানীয় সাম্রাজ্যের সর্বশেষ উত্তরসূরি দুন্দার আবদুল করিম ওসমানোদলু সোমবার মৃত্যুবরণ করেছেন। তার পরিবারের বিবৃতির বরাতে ডেইলি সাবাহ এমন খবর দিয়েছে।

মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। এক টুইটবার্তায় তার পরিবার সদস্য ওরহান ওসমানোগুলু বলেন, আমাদের পরিবারের বাবা, উসমানীয় বংশধর ও আমার চাচা প্রিন্স দুন্দার আবদুল করিম উসমানগলু সিরিয়ার দামেস্কোয় মারা গেছেন। আল্লাহ তাকে শান্তিতে রাখুন।

১৯২৪ সালে উসমানীয় খেলাফতের বিলুপ্তির পর দুন্দার আবদুল করিমের বাবাকে তুরস্ক থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। পরে তারা সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কোয় বসবাস শুরু করেন। আবদুল করিমেরও এই শহরে জন্ম হয়েছে।

সিরিয়া থেকে তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন উসমানীয় খেলাফতের বংশধরদের মধ্যে যারা তুরস্কে বসবাস করছেন তারা। কিন্তু চলমান যুদ্ধের মধ্যে তাদের সম্পর্ক আবার ছিন্ন হয়ে যায়।

১১৫২ সালে উসমানীয় বংশধর নারীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছিল। আর পুরুষদের ১৯৭৪ সালে দেশে ফিরে আসার অনুমতি দেয়া হয়। অল্প কয়েকজন দেশে ফিরে আসলেও বাকিরা বিদেশে শিকড় গেড়েছেন।

উসমানীয় সিংহাসনের সর্বশেষ উত্তরসূরি মারা গেছেন

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
উসমানীয় সিংহাসনের সর্বশেষ উত্তরসূরি মারা গেছেন
ছবি: সংগৃহীত

বিলুপ্ত হওয়া উসমানীয় সাম্রাজ্যের সর্বশেষ উত্তরসূরি দুন্দার আবদুল করিম ওসমানোদলু সোমবার মৃত্যুবরণ করেছেন। তার পরিবারের বিবৃতির বরাতে ডেইলি সাবাহ এমন খবর দিয়েছে।

মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। এক টুইটবার্তায় তার পরিবার সদস্য ওরহান ওসমানোগুলু বলেন, আমাদের পরিবারের বাবা, উসমানীয় বংশধর ও আমার চাচা প্রিন্স দুন্দার  আবদুল করিম উসমানগলু সিরিয়ার দামেস্কোয় মারা গেছেন। আল্লাহ তাকে শান্তিতে রাখুন।

১৯২৪ সালে উসমানীয় খেলাফতের বিলুপ্তির পর দুন্দার আবদুল করিমের বাবাকে তুরস্ক থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। পরে তারা সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কোয় বসবাস শুরু করেন। আবদুল করিমেরও এই শহরে জন্ম হয়েছে।

সিরিয়া থেকে তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন উসমানীয় খেলাফতের বংশধরদের মধ্যে যারা তুরস্কে বসবাস করছেন তারা। কিন্তু চলমান যুদ্ধের মধ্যে তাদের সম্পর্ক আবার ছিন্ন হয়ে যায়।

১১৫২ সালে উসমানীয় বংশধর নারীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছিল। আর পুরুষদের ১৯৭৪ সালে দেশে ফিরে আসার অনুমতি দেয়া হয়। অল্প কয়েকজন দেশে ফিরে আসলেও বাকিরা বিদেশে শিকড় গেড়েছেন।