নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে দল থেকে বহিষ্কার
jugantor
নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে দল থেকে বহিষ্কার

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৩৯:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। ফাইল ছবি

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলিকে নিজ দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার জেরে রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেই রোববার ওলিকে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এ দিন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে ওলির সদস্যপদ খারিজ করা হয় বলে দলীয় মুখপাত্র নারায়ণ কাজি শ্রেষ্ঠা জানিয়েছেন। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

নেপালের সাবেক মাওবাদী বিদ্রোহীদের সঙ্গে গড়া জোটের নেতৃত্ব দিয়ে ২০১৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে ব্যাপক জয় পেয়েছিলেন ওলি।

কিন্তু নিজ দল নেপাল কমিউনিস্ট পার্টিকে এড়িয়ে অন্তরঙ্গ একটি উপদলকে নিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

পূর্ব শর্ত অনুযায়ী শাসনকালের পাঁচ বছরের মেয়াদ নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিয়েছিলেন ওলি এবং বিপ্লবী নেতাপুষ্প কুমার দহল ‘প্রচণ্ড’।

কিন্তু সেই শর্ত উপেক্ষা করে নির্দিষ্ট সময়ে প্রচণ্ডের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে অস্বীকার করেন ওলি। এই নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে চরম মতবিরোধ দেখা দেয়।

নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে দল থেকে বহিষ্কার

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। ফাইল ছবি
নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। ফাইল ছবি

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলিকে নিজ দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।  

পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার জেরে রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেই রোববার ওলিকে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি থেকে বহিষ্কার করা হয়।  

এ দিন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে ওলির সদস্যপদ খারিজ করা হয় বলে দলীয় মুখপাত্র নারায়ণ কাজি শ্রেষ্ঠা জানিয়েছেন। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।  

নেপালের সাবেক মাওবাদী বিদ্রোহীদের সঙ্গে গড়া জোটের নেতৃত্ব দিয়ে ২০১৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে ব্যাপক জয় পেয়েছিলেন ওলি। 

কিন্তু নিজ দল নেপাল কমিউনিস্ট পার্টিকে এড়িয়ে অন্তরঙ্গ একটি উপদলকে নিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।  

পূর্ব শর্ত অনুযায়ী শাসনকালের পাঁচ বছরের মেয়াদ নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিয়েছিলেন ওলি এবং বিপ্লবী নেতাপুষ্প কুমার দহল ‘প্রচণ্ড’। 

কিন্তু সেই শর্ত উপেক্ষা করে নির্দিষ্ট সময়ে প্রচণ্ডের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে অস্বীকার করেন ওলি। এই নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে চরম মতবিরোধ দেখা দেয়। 
 

 
আরও খবর