দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি গ্রেফতার 
jugantor
দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি গ্রেফতার 

  শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ২০:৫০:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকায় একজন বাংলাদেশি নাগরিক খুন করেছে তার আফ্রিকান স্ত্রী ও ৯ মাসের কন্যাসন্তানকে। নৃশংস এ খুনের পর পলাতক ছিল অভিযুক্ত বাংলাদেশি। দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা জোহানসবার্গ থেকে তাকে গ্রেফতার করেছে।

জানা যায়, জানুয়ারি মাসের ১৩ তারিখ দক্ষিণ আফ্রিকার লিম্পুপু প্রদেশের মকোপানি নামক এলাকায় বসবাসকারী বাংলাদেশি নাগরিক মুহাম্মদ নাসির তার আফ্রিকান স্ত্রী ও ৯ মাসের শিশুকন্যাকে নিয়ে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে স্থানীয় একটি গেস্ট হাউসে রুম ভাড়া করে।

ওই রাতে গেস্ট হাউসের রুমে স্ত্রী ও ৯ মাসের শিশুকন্যাকে গলা কেটে হত্যা করে নাসির কৌশলে পালিয়ে যায়। ১৪ জানুয়ারি গেস্ট হাউস কর্তৃপক্ষ রুমের দরজা ভেঙে পুলিশের সহযোগিতায় রক্তাক্ত অবস্থায় মহিলা ও শিশুর লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়।

পরে পুলিশের যৌথ বাহিনী গেস্ট হাউসে রেজিস্ট্রার বই থেকে নাসিরের পাসপোর্টসহ ঠিকানা উদ্ধার করে এবং নাসিরকে মোস্ট ওয়ান্টেড তালিভুক্ত করে দেশের সব মিডিয়াতে প্রচার চালাতে থাকে এবং পুলিশ সন্দেহজনক সব এলাকায় নাসিরের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রাখে।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দক্ষিণ আফ্রিকা পুলিশ সার্ভিস, গোয়েন্দা সংস্থা, ক্রাইম ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চসহ তিন প্রদেশের পুলিশের যৌথ টিম জোহানসবার্গের ব্রিক্সসটাউনের একটি বাসা থেকে নাসিরকে গ্রেফতার করে।

উল্লেখ্য, খুনের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া মুহাম্মদ নাসির ফরিদপুর জেলার ভাঙা উপজেলার তালাকান্দা পিরারচরের বাসিন্দা।

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি গ্রেফতার 

 শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকায় একজন বাংলাদেশি নাগরিক খুন করেছে তার আফ্রিকান স্ত্রী ও ৯ মাসের কন্যাসন্তানকে। নৃশংস এ খুনের পর পলাতক ছিল অভিযুক্ত বাংলাদেশি। দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা জোহানসবার্গ থেকে তাকে গ্রেফতার করেছে। 

জানা যায়, জানুয়ারি মাসের ১৩ তারিখ দক্ষিণ আফ্রিকার লিম্পুপু প্রদেশের মকোপানি নামক এলাকায় বসবাসকারী বাংলাদেশি নাগরিক মুহাম্মদ নাসির তার আফ্রিকান স্ত্রী ও ৯ মাসের শিশুকন্যাকে নিয়ে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে স্থানীয় একটি গেস্ট হাউসে রুম ভাড়া করে।

ওই রাতে গেস্ট হাউসের রুমে স্ত্রী ও ৯ মাসের শিশুকন্যাকে গলা কেটে হত্যা করে নাসির কৌশলে পালিয়ে যায়। ১৪ জানুয়ারি গেস্ট হাউস কর্তৃপক্ষ রুমের দরজা ভেঙে পুলিশের সহযোগিতায় রক্তাক্ত অবস্থায় মহিলা ও শিশুর লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়। 

পরে পুলিশের যৌথ বাহিনী গেস্ট হাউসে রেজিস্ট্রার বই থেকে নাসিরের পাসপোর্টসহ ঠিকানা উদ্ধার করে এবং নাসিরকে মোস্ট ওয়ান্টেড তালিভুক্ত করে দেশের সব মিডিয়াতে প্রচার চালাতে থাকে এবং পুলিশ সন্দেহজনক সব এলাকায় নাসিরের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রাখে। 

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দক্ষিণ আফ্রিকা পুলিশ সার্ভিস, গোয়েন্দা সংস্থা, ক্রাইম ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চসহ তিন প্রদেশের পুলিশের যৌথ টিম জোহানসবার্গের ব্রিক্সসটাউনের একটি বাসা থেকে নাসিরকে গ্রেফতার করে।  

উল্লেখ্য, খুনের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া মুহাম্মদ নাসির ফরিদপুর জেলার ভাঙা উপজেলার তালাকান্দা পিরারচরের বাসিন্দা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন