থাইল্যান্ডে করোনায় ক্ষতির মুখে পরেছে প্রবাসী বাঙালিরা
jugantor
থাইল্যান্ডে করোনায় ক্ষতির মুখে পরেছে প্রবাসী বাঙালিরা

  কামরুল আলম রানা, থাইল্যান্ড থেকে  

২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:৫৯:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

পৃথিবীতে পর্যটন নির্ভর দেশ হিসেবে থাইল্যান্ড সারাবিশ্বে পরিচিত। সারা বছর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে থাইল্যান্ডে ছুটে আসে লাখ লাখ পর্যটক।

পর্যটকদের জন্য তারা দিয়ে রেখেছে নানা রকম সুযোগ সুবিধা। তাই সারাবিশ্বের পর্যটকদের পছন্দের প্রথম তালিকায় থাকে থাইল্যান্ড। গত বছরের প্রথম দিকে করোনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে কমতে থাকে পর্যটক। করোনার বিস্তার ঠেকাতেথাই সরকার আন্তর্জাতিক সীমান্ত বন্ধ করে দেয় এবং টুরিস্ট ভিসা বন্ধ করে দেয়।

যারা একান্ত জরুরি প্রয়োজনে থাইল্যান্ড আসতে চায় তাদের থাকতে হয় সরকার নির্ধারিত হোটেলগুলোতে ১৪ দিনের কোয়ারান্টাইনে। তাই থাইল্যান্ড এখন পর্যটন শূন্য প্রায়।
থাইল্যান্ডে অল্পসংখ্যক বাংলাদেশিদের বসবাস। আর সবাই পর্যটন নির্ভর ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। যেমন রেস্টুরেন্ট, টেইলর শপ, টুর ট্রাভেল ও আমদানি- রপ্তানি ব্যবসা করে থাকে।

থাইল্যান্ডে পর্যটক আসা বন্ধ থাকায় সবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেও মাসের পর মাস দিতে হচ্ছে দোকান ও অফিস ভাড়া। এমন পরিস্থিতি থাইল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশি পড়েছেন বিরাট ক্ষতি মুখে। অনেকে ক্ষতি কাটাতে না পেরে বাধ্য হয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছেড়ে দিয়ে দেশে চলে যাচ্ছেন।

আর যারা এখনও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টিকে রেখেছে তারা অপেক্ষা করছে থাইল্যান্ডের সুদিনের।

থাইল্যান্ডে করোনায় ক্ষতির মুখে পরেছে প্রবাসী বাঙালিরা

 কামরুল আলম রানা, থাইল্যান্ড থেকে 
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:৫৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পৃথিবীতে পর্যটন নির্ভর দেশ হিসেবে থাইল্যান্ড সারাবিশ্বে পরিচিত। সারা বছর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে থাইল্যান্ডে ছুটে আসে লাখ লাখ পর্যটক।

পর্যটকদের জন্য তারা দিয়ে রেখেছে নানা রকম সুযোগ সুবিধা। তাই সারাবিশ্বের পর্যটকদের পছন্দের প্রথম তালিকায় থাকে থাইল্যান্ড। গত বছরের প্রথম দিকে করোনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে কমতে থাকে পর্যটক। করোনার বিস্তার ঠেকাতে থাই সরকার আন্তর্জাতিক সীমান্ত বন্ধ করে দেয় এবং টুরিস্ট ভিসা বন্ধ করে দেয়। 

যারা একান্ত জরুরি প্রয়োজনে থাইল্যান্ড আসতে চায় তাদের থাকতে হয় সরকার নির্ধারিত হোটেলগুলোতে ১৪ দিনের কোয়ারান্টাইনে। তাই থাইল্যান্ড এখন পর্যটন শূন্য প্রায়।
থাইল্যান্ডে অল্পসংখ্যক বাংলাদেশিদের বসবাস। আর সবাই পর্যটন নির্ভর ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। যেমন রেস্টুরেন্ট, টেইলর শপ, টুর ট্রাভেল ও আমদানি- রপ্তানি ব্যবসা করে থাকে। 

থাইল্যান্ডে পর্যটক আসা বন্ধ থাকায় সবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেও মাসের পর মাস দিতে হচ্ছে দোকান ও অফিস ভাড়া। এমন পরিস্থিতি থাইল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশি পড়েছেন বিরাট ক্ষতি মুখে। অনেকে ক্ষতি কাটাতে না পেরে বাধ্য হয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছেড়ে দিয়ে দেশে চলে যাচ্ছেন। 

আর যারা এখনও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টিকে রেখেছে তারা অপেক্ষা করছে থাইল্যান্ডের সুদিনের।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন