মিয়ানমারে দুপক্ষের তুমুল সংঘর্ষ, অসহযোগ চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থী ও চিকিৎসকরা
jugantor
মিয়ানমারে দুপক্ষের তুমুল সংঘর্ষ, অসহযোগ চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থী ও চিকিৎসকরা

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:৩৯:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারে দুপক্ষের তুমুল সংঘর্ষ, অসহযোগ চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থী ও চিকিৎসকরা

মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে অভ্যুত্থানবিরোধী এবং পক্ষ অবলম্বনকারীর মধ্যে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে। এতে একজন ফটোসাংবাদিক আহত হয়েছেন বলে আলজাজিরা জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার অভ্যুত্থানের পক্ষে ইয়াঙ্গুনে প্রায় হাজারখানেক মানুষ একটি র্যালি করে। তাদের অনেকে ফটোগ্রাফার ও মিডিয়াকর্মীদের হুমকি দিতে থাকে। একপর্যায়ে অভ্যুত্থানবিরোধীদের সঙ্গে সংঘর্ষ, হাতাহাতি শুরু হয়।

এদিকে কাজে যোগদানের জন্য জান্তার তীব্র চাপ থাকলেও তা উপেক্ষা করে অসহযোগ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মিয়ানমারের ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। কিন্তু এদিন শিক্ষাথীদের ক্যাম্পাস থেকে বের হতে দেয়নি পুলিশ। ক্যাম্পাসের গেট আটকে রেখেছিল তারা।

১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর অভ্যুত্থানের পর সবার আগে সেনা প্রশাসনের সঙ্গে অসহযোগিতা এবং ধর্মঘটের ঘোষণা দেন ডাক্তাররা।

সেনাবাহিনী তাদের কাজে ফেরানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে। ভয়ভীতি প্রদর্শনে কাজ না হওয়ায় এখনও সামরিক বাহিনী নানা কূটকৌশলের আশ্রয় নিচ্ছে। বিভিন্ন সময় ডাক্তারদের আবাসিক এলাকা ও কোয়ার্টারের কাছে গিয়ে হানা দিয়েছে।

ইয়াঙ্গুনের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে ২৫ বছর বয়সী বিক্ষোভকারী কং সাত ওয়াই বলেন, ‘অভ্যুত্থানের পর থেকে আমাদের জীবন আশা হারিয়েছে, স্বপ্নের মৃত্যু হয়েছে। স্বৈরতন্ত্রকে সমর্থন করা শিক্ষাব্যবস্থাকে আমরা গ্রহণ করব না।’

অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে নাগরিক অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন দেশটির বহু পেশাজীবী ও সরকারি কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার এই অসহযোগের সমর্থনে মিছিল করবেন চিকিৎসকরা।

মিয়ানমারে দুপক্ষের তুমুল সংঘর্ষ, অসহযোগ চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থী ও চিকিৎসকরা

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৩:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মিয়ানমারে দুপক্ষের তুমুল সংঘর্ষ, অসহযোগ চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থী ও চিকিৎসকরা
ছবি: আল জাজিরা

মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে অভ্যুত্থানবিরোধী এবং পক্ষ অবলম্বনকারীর মধ্যে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে। এতে একজন ফটোসাংবাদিক আহত হয়েছেন বলে আলজাজিরা জানিয়েছে। 

খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার অভ্যুত্থানের পক্ষে ইয়াঙ্গুনে প্রায় হাজারখানেক মানুষ একটি র্যালি করে। তাদের অনেকে ফটোগ্রাফার ও মিডিয়াকর্মীদের হুমকি দিতে থাকে। একপর্যায়ে অভ্যুত্থানবিরোধীদের সঙ্গে সংঘর্ষ, হাতাহাতি শুরু হয়। 

এদিকে কাজে যোগদানের জন্য জান্তার তীব্র চাপ থাকলেও তা উপেক্ষা করে অসহযোগ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মিয়ানমারের ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা।  

বৃহস্পতিবার দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। কিন্তু এদিন শিক্ষাথীদের ক্যাম্পাস থেকে বের হতে দেয়নি পুলিশ। ক্যাম্পাসের গেট আটকে রেখেছিল তারা।

১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর অভ্যুত্থানের পর সবার আগে সেনা প্রশাসনের সঙ্গে অসহযোগিতা এবং ধর্মঘটের ঘোষণা দেন ডাক্তাররা। 

সেনাবাহিনী তাদের কাজে ফেরানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে। ভয়ভীতি প্রদর্শনে কাজ না হওয়ায় এখনও সামরিক বাহিনী নানা কূটকৌশলের আশ্রয় নিচ্ছে। বিভিন্ন সময় ডাক্তারদের আবাসিক এলাকা ও কোয়ার্টারের কাছে গিয়ে হানা দিয়েছে।  

ইয়াঙ্গুনের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে ২৫ বছর বয়সী বিক্ষোভকারী কং সাত ওয়াই বলেন, ‘অভ্যুত্থানের পর থেকে আমাদের জীবন আশা হারিয়েছে, স্বপ্নের মৃত্যু হয়েছে।  স্বৈরতন্ত্রকে সমর্থন করা শিক্ষাব্যবস্থাকে আমরা গ্রহণ করব না।’

অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে নাগরিক অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন দেশটির বহু পেশাজীবী ও সরকারি কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার এই অসহযোগের সমর্থনে মিছিল করবেন চিকিৎসকরা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : অং সান সু চি আটক