সৌদি যুবরাজকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনুন: যুক্তরাষ্ট্রকে জাতিসংঘ
jugantor
সৌদি যুবরাজকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনুন: যুক্তরাষ্ট্রকে জাতিসংঘ

  অনলাইন ডেস্ক  

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:৩১:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি আরবের রাজপরিবারের কঠোর সমালোচক হিসেবে পরিচিত ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার নির্দেশ দেওয়ার অপরাধে দেশটির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের (এমবিএস) বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি অ্যাগনেস ক্যালামার্ড।

তিনি এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসকে বলেছেন, এমবিএসের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার পাশাপাশি তার আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক লেনদেনের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হবে। খবর রয়টার্সের।

ক্যালামার্ড বলেন, যারা খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন, তাদের আন্তর্জাতিক সমাজ থেকে একঘরে করে রাখতে পারলে একই ধরনের অপরাধ করার কথা যারা চিন্তা করে তারা শিক্ষা পাবেন।

খাশোগি হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে পুঙ্খানুপুঙ্খ গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ করে দেওয়ার জন্যও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি।

সৌদি আরবের ক্ষমতাধর যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ব্যক্তিগতভাবে সে দেশের ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে প্রকাশিত মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে জানা গেছে।

২০১৮ সালে তৈরি করা মার্কিন সরকারের গোয়েন্দা প্রতিবেদনটি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ধামাচাপা দিয়ে রাখলেও বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তা প্রকাশ করে দিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে– মোহাম্মদ বিন সালমান এমন একটি পরিকল্পনা অনুমোদন করেছিলেন, যাতে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে, খাশোগিকে ‘ধরে আনতে অথবা হত্যা করতে’ হবে।

এই প্রথম মার্কিন সরকার খাশোগিকে হত্যার জন্য সরাসরি সৌদি যুবরাজকে দায়ী করল। তবে বাইডেন প্রশাসন বলে দিয়েছে– তারা খুনি বিন সালমানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে না।

সৌদি যুবরাজকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনুন: যুক্তরাষ্ট্রকে জাতিসংঘ

 অনলাইন ডেস্ক 
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:৩১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি আরবের রাজপরিবারের কঠোর সমালোচক হিসেবে পরিচিত ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার নির্দেশ দেওয়ার অপরাধে দেশটির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের (এমবিএস) বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি অ্যাগনেস ক্যালামার্ড।

তিনি এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসকে বলেছেন, এমবিএসের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার পাশাপাশি তার আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক লেনদেনের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হবে। খবর রয়টার্সের।

ক্যালামার্ড বলেন, যারা খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন, তাদের আন্তর্জাতিক সমাজ থেকে একঘরে করে রাখতে পারলে একই ধরনের অপরাধ করার কথা যারা চিন্তা করে তারা শিক্ষা পাবেন।  

খাশোগি হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে পুঙ্খানুপুঙ্খ গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ করে দেওয়ার জন্যও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি।

সৌদি আরবের ক্ষমতাধর যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ব্যক্তিগতভাবে সে দেশের ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে প্রকাশিত মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে জানা গেছে।

২০১৮ সালে তৈরি করা মার্কিন সরকারের গোয়েন্দা প্রতিবেদনটি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ধামাচাপা দিয়ে রাখলেও বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তা প্রকাশ করে দিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে– মোহাম্মদ বিন সালমান এমন একটি পরিকল্পনা অনুমোদন করেছিলেন, যাতে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যে, খাশোগিকে ‘ধরে আনতে অথবা হত্যা করতে’ হবে।

এই প্রথম মার্কিন সরকার খাশোগিকে হত্যার জন্য সরাসরি সৌদি যুবরাজকে দায়ী করল। তবে বাইডেন প্রশাসন বলে দিয়েছে– তারা খুনি বিন সালমানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : সাংবাদিক জামাল খাসোগি নিখোঁজ

আরও খবর