ট্রাম্পের জয় চেয়েছিল রাশিয়া, হার চেয়েছিল ইরান
jugantor
ট্রাম্পের জয় চেয়েছিল রাশিয়া, হার চেয়েছিল ইরান

  অনলাইন ডেস্ক  

১৭ মার্চ ২০২১, ১২:২৮:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে প্রভাব বাড়াতে অনুমোদন দিয়েছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তবে ট্রাম্পের পরাজয় নিশ্চিত করতে প্রচার চালিয়েছে চীন ও ইরান।

গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি ও বার্তা সংস্থা এএফপি এমন খবর দিয়েছে।

মার্কিন সরকারের গোয়েন্দা প্রতিবেদন বলছে, তখন সম্ভাব্য বিজয়ী জো বাইডেনকে নিয়ে ভুল তথ্য গুজব ছড়িয়েছে মস্কো। তবে চূড়ান্ত ফল নিয়ে কোনো বিদেশি সরকার আপস করেনি। এতে কা হস্তক্ষেপ ছিল না।

তবে নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ অস্বীকার করেছে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা পরিচালকের অফিস থেকে মঙ্গলবার ১৫ পাতার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারে রাশিয়ার পাশাপাশি ইরান চেষ্টা করেছিল বলে এতে জানানো হয়েছে।

গেল ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের এগিয়ে থাকা নিয়ে অসত্য তথ্য প্রচার করেছে রাশিয়া-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। ব্যাপক নির্বাচনী প্রক্রিয়া নিয়ে মানুষের আস্থা দুর্বল করে দিতে ভুল তথ্য ছড়ানো হয়েছিল।

রুশ গোয়েন্দাদের সঙ্গে যোগসাজশ আছে এমন ব্যক্তিরা গণমাধ্যম, জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের মিত্রদের কাছে বাইডেনবিরোধী বক্তব্য ছড়িয়েছে।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে হারিয়ে গত ২০ জানুয়ারি শপথ নেন ডেমোক্র্যাটদলীয় জো বাইডেন।

ট্রাম্পের বিজয়ের সুযোগ বাড়াতে চেষ্টা করেছিল রাশিয়া। আর তার সমর্থন কমিয়ে আনতে বহুমুখী প্রভাববিস্তারি প্রচার করেছিল ইরান।

শিয়াসংখ্যাগিরষ্ঠ দেশটির ওপর সর্বোচ্চ চাপ বাড়াতে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে গেছেন ট্রাম্প। তখন দুই দেশ যুদ্ধের মুখোমুখি অবস্থান চলে গিয়েছিলেন।

গত আগস্টে মার্কিন গোয়েন্দারা জানায়, চীন, রাশিয়া ও ইরান সক্রিয়ভাবে মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে।

রাশিয়া যেমন জো বাইডেনকে হেয় করতে চেয়েছেন, তেমনি চীন ও ইরান ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারাতে চেষ্টা করেছেন।

ট্রাম্পের জয় চেয়েছিল রাশিয়া, হার চেয়েছিল ইরান

 অনলাইন ডেস্ক 
১৭ মার্চ ২০২১, ১২:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে প্রভাব বাড়াতে অনুমোদন দিয়েছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তবে ট্রাম্পের পরাজয় নিশ্চিত করতে প্রচার চালিয়েছে চীন ও ইরান। 

গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি ও বার্তা সংস্থা এএফপি এমন খবর দিয়েছে।

মার্কিন সরকারের গোয়েন্দা প্রতিবেদন বলছে, তখন সম্ভাব্য বিজয়ী জো বাইডেনকে নিয়ে ভুল তথ্য গুজব ছড়িয়েছে মস্কো। তবে চূড়ান্ত ফল নিয়ে কোনো বিদেশি সরকার আপস করেনি। এতে কা হস্তক্ষেপ ছিল না।

তবে নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ অস্বীকার করেছে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা পরিচালকের অফিস থেকে মঙ্গলবার ১৫ পাতার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারে রাশিয়ার পাশাপাশি ইরান চেষ্টা করেছিল বলে এতে জানানো হয়েছে।

গেল ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের এগিয়ে থাকা নিয়ে অসত্য তথ্য প্রচার করেছে রাশিয়া-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। ব্যাপক নির্বাচনী প্রক্রিয়া নিয়ে মানুষের আস্থা দুর্বল করে দিতে ভুল তথ্য ছড়ানো হয়েছিল।

রুশ গোয়েন্দাদের সঙ্গে যোগসাজশ আছে এমন ব্যক্তিরা গণমাধ্যম, জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের মিত্রদের কাছে বাইডেনবিরোধী বক্তব্য ছড়িয়েছে।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে হারিয়ে গত ২০ জানুয়ারি শপথ নেন ডেমোক্র্যাটদলীয় জো বাইডেন।

ট্রাম্পের বিজয়ের সুযোগ বাড়াতে চেষ্টা করেছিল রাশিয়া। আর তার সমর্থন কমিয়ে আনতে বহুমুখী প্রভাববিস্তারি প্রচার করেছিল ইরান।

শিয়াসংখ্যাগিরষ্ঠ দেশটির ওপর সর্বোচ্চ চাপ বাড়াতে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে গেছেন ট্রাম্প। তখন দুই দেশ যুদ্ধের মুখোমুখি অবস্থান চলে গিয়েছিলেন।

গত আগস্টে মার্কিন গোয়েন্দারা জানায়, চীন, রাশিয়া ও ইরান সক্রিয়ভাবে মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে।

রাশিয়া যেমন জো বাইডেনকে হেয় করতে চেয়েছেন, তেমনি চীন ও ইরান ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারাতে চেষ্টা করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন-২০২০