মালয়েশিয়া বাংলাদেশ হাইকমিশনে গণহত্যা দিবস পালিত
jugantor
মালয়েশিয়া বাংলাদেশ হাইকমিশনে গণহত্যা দিবস পালিত

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে  

২৫ মার্চ ২০২১, ২২:৫০:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বিকালে দূতাবাসের হলরুমে এ দিবসটি পালন করা হয়।

হাইকমিশনার মো. গোলাম সারওয়ারের সভাপতিত্বে ও দূতালয় প্রধান ও প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) রুহুল অমিনের পরিচালনায় পবিত্র কালামে পাক থেকে তেলাওয়াত ও শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভা শুরু হয়।
আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন শ্রম কাউন্সিলর মো. জহিরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন শ্রম কাউন্সিলর (২) মো. হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডল।

গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় হাইকমিশনার গোলাম সারওয়ার তার বক্তব্যে বলেন, একাত্তরের অগ্নিঝরা এই দিনে বাঙালি জাতি তথা বিশ্ববাসী প্রত্যক্ষ করেছিল ইতিহাসের বিভীষিকাময় ভয়াল ও নৃশংসতম বর্বরতা।

একাত্তরের ২৫ মার্চ মধ্য রাতে গণহত্যার নীলনকশা ‘অপারেশন সার্চ লাইট’নামে পাকিস্তানি দানবরা মেতে উঠেছিল নির্বিচারে স্বাধীনতাকামী বাঙালি নিধনযজ্ঞে। ঢাকাসহ দেশের অনেক স্থানেই মাত্র এক রাতেই হানাদাররা নির্মমভাবে হত্যা করেছিল প্রায় লক্ষাধিক ঘুমন্ত বাঙালিকে।

হাইকমিশনার বলেন, ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দেন। তিনি ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।' ২৫ মার্চের কালরাতে পাকিস্তানি বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আধুনিক মারণাস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বাঙালি জাতি ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করে।

জাতীয় গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা কমোডর মোস্তাক আহমেদ, কাউন্সিলর (কন্স্যুলার) মো. মাসুদ হোসাইন, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার কাউন্সিলর মো. মশিউর রহমান তালুকদার, কাউন্সিলর (বাণিজ্যিক) মো. রাজিবুল আহসান, শ্রম শাখার প্রথম সচিব ফরিদ আহমদসহ দূতাবাসের সব স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আলোচনা সভা শেষে মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এদিকে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে মালয়েশিয়া সরকারের দেয়া বিধি-নিষেধের কারণে অনুষ্ঠানে কেবল দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। তবে দূতাবাসের ফেসবুক পেজে লাইভ প্রচার করে প্রবাসীদের অংশ নেয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়।

মালয়েশিয়া বাংলাদেশ হাইকমিশনে গণহত্যা দিবস পালিত

 আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে 
২৫ মার্চ ২০২১, ১০:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বিকালে দূতাবাসের হলরুমে এ দিবসটি পালন করা হয়।

হাইকমিশনার মো. গোলাম সারওয়ারের সভাপতিত্বে ও দূতালয় প্রধান ও প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) রুহুল অমিনের পরিচালনায় পবিত্র কালামে পাক থেকে তেলাওয়াত ও শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভা শুরু হয়।
আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন শ্রম কাউন্সিলর মো. জহিরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন শ্রম কাউন্সিলর (২) মো. হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডল।

গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় হাইকমিশনার গোলাম সারওয়ার তার বক্তব্যে বলেন, একাত্তরের অগ্নিঝরা এই দিনে বাঙালি জাতি তথা বিশ্ববাসী প্রত্যক্ষ করেছিল ইতিহাসের বিভীষিকাময় ভয়াল ও নৃশংসতম বর্বরতা।

একাত্তরের ২৫ মার্চ মধ্য রাতে গণহত্যার নীলনকশা ‘অপারেশন সার্চ লাইট’নামে পাকিস্তানি দানবরা মেতে উঠেছিল নির্বিচারে স্বাধীনতাকামী বাঙালি নিধনযজ্ঞে। ঢাকাসহ দেশের অনেক স্থানেই মাত্র এক রাতেই হানাদাররা নির্মমভাবে হত্যা করেছিল প্রায় লক্ষাধিক ঘুমন্ত বাঙালিকে।

হাইকমিশনার বলেন, ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দেন। তিনি ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।' ২৫ মার্চের কালরাতে পাকিস্তানি বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আধুনিক মারণাস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বাঙালি জাতি ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করে। 

জাতীয় গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা কমোডর মোস্তাক আহমেদ, কাউন্সিলর (কন্স্যুলার) মো. মাসুদ হোসাইন, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার কাউন্সিলর মো. মশিউর রহমান তালুকদার, কাউন্সিলর (বাণিজ্যিক) মো. রাজিবুল আহসান, শ্রম শাখার প্রথম সচিব ফরিদ আহমদসহ দূতাবাসের সব স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আলোচনা সভা শেষে মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এদিকে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে মালয়েশিয়া সরকারের দেয়া বিধি-নিষেধের কারণে অনুষ্ঠানে কেবল দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। তবে দূতাবাসের ফেসবুক পেজে লাইভ প্রচার করে প্রবাসীদের অংশ নেয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন