লটারিতে পাওয়া ২১ কোটি টাকা যেভাবে উড়ান কিশোরী 
jugantor
লটারিতে পাওয়া ২১ কোটি টাকা যেভাবে উড়ান কিশোরী 

  অনলাইন ডেস্ক  

৩০ মার্চ ২০২১, ১৩:৪৩:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

২০০৩ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে লটারিতে ১৮ লাখ পাউন্ড জিতেছিলেন ক্যালি রোগার্স নামে এক কিশোরী, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২১ কোটি টাকারও বেশি। ব্রিটেনের কনিষ্ঠতম জ্যাকপটজয়ী ছিলেন তিনি।

কিন্তু বর্তমানে সেই টাকা উড়িয়ে শেষ করার পর অন্যের অনুগ্রহে বেঁচে আছেন তিনি।

লটারি পাওয়ার সময় ক্যালি তার পালিত মা-বাবার সঙ্গে ইংল্যান্ডের কামব্রিয়ায় থাকতেন। লটারি পাওয়ার কিছু দিন পর নিকি লসন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এর পর তারা দুজনে এক লাখ ৮০ হাজার পাউন্ডের একটি বাড়ি কিনে থাকতে শুরু করেন। পরে নিকিকে বিয়ে করেন ক্যালি। তাদের সংসারে দুটি সন্তান আসে।

কিন্তু পাঁচ বছরের মধ্যেই তাদের সম্পর্কে ফাটল ধরে। ক্যালি একবার আত্মহত্যার চেষ্টাও করেন। এর পর তার দুই সন্তানকে তার কাছ থেকে নিয়ে যান তার স্বামী। এতে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন তিনি।

এর পর থেকে শুরু করেন বিলাসী জীবন। ১৭ হাজার পাউন্ড খরচ করে স্তনের অস্ত্রোপচার করান ক্যালি। রাত-দিন পার্টি, মাদকের নেশা গ্রাস করে তাকে। এ সময় তার অনেক বন্ধু জোটে; যারা তার অর্থের জন্য লোলুপ ছিল।

আড়াই লাখ পাউন্ড শুধু নেশার পেছনেই খরচ করেছেন বলে জানান তিনি। ৩ লাখ পাউন্ডের ডিজাইনার জামা রয়েছে তার আলমারিতে। যখন তখন বন্ধুবান্ধবদের আবদার মেটাতে মোটা টাকা খরচ করতেন। এর পাশাপাশি নিজের জন্য বড় অঙ্কের খরচ তো রয়েছেই।

একসময় আয়েশি জীবন কাটানো ক্যালি এখন জীবনধারণের জন্য নির্ভরশীল প্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধবদের ওপর।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার।

লটারিতে পাওয়া ২১ কোটি টাকা যেভাবে উড়ান কিশোরী 

 অনলাইন ডেস্ক 
৩০ মার্চ ২০২১, ০১:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

২০০৩ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে লটারিতে ১৮ লাখ পাউন্ড জিতেছিলেন ক্যালি রোগার্স নামে এক কিশোরী, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২১ কোটি টাকারও বেশি। ব্রিটেনের কনিষ্ঠতম জ্যাকপটজয়ী ছিলেন তিনি।

কিন্তু বর্তমানে সেই টাকা উড়িয়ে শেষ করার পর অন্যের অনুগ্রহে বেঁচে আছেন তিনি। 

লটারি পাওয়ার সময় ক্যালি তার পালিত মা-বাবার সঙ্গে ইংল্যান্ডের কামব্রিয়ায় থাকতেন। লটারি পাওয়ার কিছু দিন পর নিকি লসন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এর পর তারা দুজনে এক লাখ ৮০ হাজার পাউন্ডের একটি বাড়ি কিনে থাকতে শুরু করেন। পরে নিকিকে বিয়ে করেন ক্যালি। তাদের সংসারে দুটি সন্তান আসে।

কিন্তু পাঁচ বছরের মধ্যেই তাদের সম্পর্কে ফাটল ধরে। ক্যালি একবার আত্মহত্যার চেষ্টাও করেন। এর পর তার দুই সন্তানকে তার কাছ থেকে নিয়ে যান তার স্বামী। এতে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন তিনি।

এর পর থেকে শুরু করেন বিলাসী জীবন। ১৭ হাজার পাউন্ড খরচ করে স্তনের অস্ত্রোপচার করান ক্যালি। রাত-দিন পার্টি, মাদকের নেশা গ্রাস করে তাকে। এ সময় তার অনেক বন্ধু জোটে; যারা তার অর্থের জন্য লোলুপ ছিল। 

আড়াই লাখ পাউন্ড শুধু নেশার পেছনেই খরচ করেছেন বলে জানান তিনি।  ৩ লাখ পাউন্ডের ডিজাইনার জামা রয়েছে তার আলমারিতে। যখন তখন বন্ধুবান্ধবদের আবদার মেটাতে মোটা টাকা খরচ করতেন। এর পাশাপাশি নিজের জন্য বড় অঙ্কের খরচ তো রয়েছেই।

একসময় আয়েশি জীবন কাটানো ক্যালি এখন জীবনধারণের জন্য নির্ভরশীল প্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধবদের ওপর।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর