ক্ষমতার মেয়াদ আরও বাড়াতে পারে মিয়ানমারের জান্তা সরকার
jugantor
ক্ষমতার মেয়াদ আরও বাড়াতে পারে মিয়ানমারের জান্তা সরকার

  অনলাইন ডেস্ক  

০৭ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৩১:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারের জান্তা সরকার নিজেদের পাকাপোক্ত করতে আরও সময় ধরে ক্ষমতায় থাকতে পারে। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, এমন বাড়তি সময় আরও দুই বছর হতে পারে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে সামরিক জান্তা। এরপর কয়েকটি মামলায় গৃহবন্দি রাখা অং সান সু চিকে।

দেশটিতে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে অব্যাহত আন্দোলনে সহিংসতা বেড়েই চলছে। স্থানীয় মানবাধিকার সংগঠনগুলোর হিসাবে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন।

দেশটিতে গত নভেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ক্ষমতা দখল করেন সেনাবাহিনী প্রধান মিন অং হ্লাইয়ং। তবে নির্বাচনে কারচুপির বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে নির্বাচন কমিশন।

মঙ্গলবার দিনের পাশাপাশি রাতেও বিভিন্ন শহরের রাস্তায় অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে। অনেক জায়গায় আন্দোলনকারীরা সামরিক বাহিনীর করা ২০০৮ সালের সংবিধানের কপি পুড়িয়েছে।

জান্তা সরকার শতশত মানুষকে গ্রেফতার করেও তারা আন্দোলন দমাতে পারছে না।

শিল্পী, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বুদ্ধিজীবীদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার দেশটির বিখ্যাত কমেডিয়ান জারগনারকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ।

এদিকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মহলকে দেশটির সেনাবাহিনীর প্রধান বলছেন, তিনি একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্ত করবেন।

নির্বাচনে সু চি বা তার দল অংশগ্রহণ করতে পারবে কিনা এমন প্রশ্নে নিরব থাকেন সামরিক বাহিনীর প্রধান।
সূত্র: আলজাজিরা।

ক্ষমতার মেয়াদ আরও বাড়াতে পারে মিয়ানমারের জান্তা সরকার

 অনলাইন ডেস্ক 
০৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারের জান্তা সরকার নিজেদের পাকাপোক্ত করতে আরও সময় ধরে ক্ষমতায় থাকতে পারে। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, এমন বাড়তি সময় আরও দুই বছর হতে পারে। 

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে সামরিক জান্তা। এরপর কয়েকটি মামলায় গৃহবন্দি রাখা অং সান সু চিকে।

দেশটিতে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে অব্যাহত আন্দোলনে সহিংসতা বেড়েই চলছে। স্থানীয় মানবাধিকার সংগঠনগুলোর হিসাবে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন।

দেশটিতে গত নভেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ক্ষমতা দখল করেন সেনাবাহিনী প্রধান মিন অং হ্লাইয়ং। তবে নির্বাচনে কারচুপির বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে নির্বাচন কমিশন। 

মঙ্গলবার দিনের পাশাপাশি রাতেও বিভিন্ন শহরের রাস্তায় অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে। অনেক জায়গায় আন্দোলনকারীরা সামরিক বাহিনীর করা ২০০৮ সালের সংবিধানের কপি পুড়িয়েছে।

জান্তা সরকার শতশত মানুষকে গ্রেফতার করেও তারা আন্দোলন দমাতে পারছে না।

শিল্পী, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বুদ্ধিজীবীদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার দেশটির বিখ্যাত কমেডিয়ান জারগনারকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ।

এদিকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মহলকে দেশটির সেনাবাহিনীর প্রধান বলছেন, তিনি একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্ত করবেন। 

নির্বাচনে সু চি বা তার দল অংশগ্রহণ করতে পারবে কিনা এমন প্রশ্নে নিরব থাকেন সামরিক বাহিনীর প্রধান।
সূত্র: আলজাজিরা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : অং সান সু চি আটক

আরও খবর