মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’
jugantor
মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’

  অনলাইন ডেস্ক  

১৬ এপ্রিল ২০২১, ১৪:০৫:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’

মিয়ানমারে এবার অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’ ডাকা হয়েছে। শুক্রবারের এ ধর্মঘটে বাড়িতে থেকেই জান্তাবিরোধী আন্দোলনে নিহত ৭০০-এর বেশি মানুষকে স্মরণ করতে এবং ঘর থেকে বের হলে কালো কাপড় পরতে বলা হয়েছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে।

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী। এর পর থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটির লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে সেনাশাসনের বিরুদ্ধে তাদের সরব অবস্থান ব্যক্ত করেছেন।

রক্ত দিয়ে, নির্যাতন-নিপীড়ন উপেক্ষা করে দিনের পর দিন তারা জান্তাবিরোধী আন্দোলন চালিয়ে গেছেন।

সাম্প্রতিক দিনগুলোতে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর দমন-পীড়নের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনের কর্মীরা প্রতিবাদের নিত্যনতুন উপায় বের করার চেষ্টা করছেন। তারই অংশ হিসেবে শুক্রবার এ ‘নীরব ধর্মঘট’ ডাকা হয়েছে।

বিক্ষোভকারীদের অন্যতম নেতা এই থিনজার মং বলেন, চলুন, সড়কগুলোকে নীরব করে ফেলি। নিজেদের জীবন বিলিয়ে দেওয়া শহীদদের প্রতি শোক দেখাতে আমরা এই নীরব ধর্মঘট করব। এ নিঃশব্দ কণ্ঠই উচ্চস্বরে কথা বলবে।

‘নীরব ধর্মঘটের’ আগের রাতেই মিয়ানমারের মধ্যাঞ্চলীয় শহর মিংগিয়ানে সহিংসতায় দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’

 অনলাইন ডেস্ক 
১৬ এপ্রিল ২০২১, ০২:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’
ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমারে এবার অভ্যুত্থানবিরোধী ‘নীরব ধর্মঘট’ ডাকা হয়েছে।  শুক্রবারের এ ধর্মঘটে বাড়িতে থেকেই জান্তাবিরোধী আন্দোলনে নিহত ৭০০-এর বেশি মানুষকে স্মরণ করতে এবং ঘর থেকে বের হলে কালো কাপড় পরতে বলা হয়েছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে।

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী।  এর পর থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটির লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে সেনাশাসনের বিরুদ্ধে তাদের সরব অবস্থান ব্যক্ত করেছেন। 

রক্ত দিয়ে, নির্যাতন-নিপীড়ন উপেক্ষা করে দিনের পর দিন তারা জান্তাবিরোধী আন্দোলন চালিয়ে গেছেন।

সাম্প্রতিক দিনগুলোতে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর দমন-পীড়নের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনের কর্মীরা প্রতিবাদের নিত্যনতুন উপায় বের করার চেষ্টা করছেন। তারই অংশ হিসেবে শুক্রবার এ ‘নীরব ধর্মঘট’ ডাকা হয়েছে।

বিক্ষোভকারীদের অন্যতম নেতা এই থিনজার মং বলেন, চলুন, সড়কগুলোকে নীরব করে ফেলি। নিজেদের জীবন বিলিয়ে দেওয়া শহীদদের প্রতি শোক দেখাতে আমরা এই নীরব ধর্মঘট করব। এ নিঃশব্দ কণ্ঠই উচ্চস্বরে কথা বলবে। 

‘নীরব ধর্মঘটের’ আগের রাতেই মিয়ানমারের মধ্যাঞ্চলীয় শহর মিংগিয়ানে সহিংসতায় দুজনের মৃত্যু হয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : অং সান সু চি আটক

আরও খবর