তুরস্কে আফগান শান্তি আলোচনা পেছাল যে কারণে
jugantor
তুরস্কে আফগান শান্তি আলোচনা পেছাল যে কারণে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২১ এপ্রিল ২০২১, ১৪:৪২:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

তুরস্কে আফগান শান্তি আলোচনা পেছাল যে কারণে

আফগান সরকার ও তালেবানের প্রতিনিধিদের মধ্যে অনুষ্ঠিতব্য একটি বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে।

আগামী শনিবার তুরস্কের ঐতিহাসিক ইস্তানবুল শহরে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

জাতিসংঘ ও তুরস্কের উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য ওই আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রও সমর্থন দিলেও শেষ মুহূর্তে এসে এটি স্থগিতের ঘোষণা এলো।

রয়টার্স জানিয়েছে, তালেবান অংশ নিচ্ছিল না বলে আলোচনা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু মঙ্গলবার জানান, আলোচনা আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। পবিত্র রমজান মাসের পর বৈঠক হতে পারে।

তিনি বলেন, আমাদের কাছে মনে হয়েছে এ মুহূর্তে বৈঠক স্থগিত করাটাই ভালো হবে। এ নিয়ে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র ও কাতারের সঙ্গেও আমাদের কথা হয়েছে। ঈদের পর বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এদিকে তালেবানের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি হাউস কমিটিকে বলেছেন, তালেবানের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত তারা কী করে। যদি তারা আফগানিস্তানের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চায়, তা হলে তাদের চুক্তি মেনে চলতে হবে।

তিনি জানান, আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পর প্রতিবেশী কোনো দেশে গোয়েন্দা রাখার বিকল্প ভাবনা যুক্তরাষ্ট্র খতিয়ে দেখছে। তা হলে সেনা প্রত্যাহারের পরও দেশটির পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা যাবে। সে ক্ষেত্রে কোনো বিপদ এলে দ্রুত তার মোকাবিলা করা যাবে।

তুরস্কে আফগান শান্তি আলোচনা পেছাল যে কারণে

 যুগান্তর ডেস্ক 
২১ এপ্রিল ২০২১, ০২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তুরস্কে আফগান শান্তি আলোচনা পেছাল যে কারণে
ছবি: ডয়চে ভেলে

আফগান সরকার ও তালেবানের প্রতিনিধিদের মধ্যে অনুষ্ঠিতব্য একটি বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে।

আগামী শনিবার তুরস্কের ঐতিহাসিক ইস্তানবুল শহরে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। 

জাতিসংঘ ও তুরস্কের উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য ওই আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রও সমর্থন দিলেও শেষ মুহূর্তে এসে এটি স্থগিতের ঘোষণা এলো। 

রয়টার্স জানিয়েছে, তালেবান অংশ নিচ্ছিল না বলে আলোচনা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু মঙ্গলবার জানান, আলোচনা আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। পবিত্র রমজান মাসের পর বৈঠক হতে পারে।

তিনি বলেন, আমাদের কাছে মনে হয়েছে এ মুহূর্তে বৈঠক স্থগিত করাটাই ভালো হবে।  এ নিয়ে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র ও কাতারের সঙ্গেও আমাদের কথা হয়েছে।  ঈদের পর বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এদিকে তালেবানের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। 

মার্কিন জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি হাউস কমিটিকে বলেছেন, তালেবানের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত তারা কী করে। যদি তারা আফগানিস্তানের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চায়, তা হলে তাদের চুক্তি মেনে চলতে হবে।

তিনি জানান, আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পর প্রতিবেশী কোনো দেশে গোয়েন্দা রাখার বিকল্প ভাবনা যুক্তরাষ্ট্র খতিয়ে দেখছে। তা হলে সেনা প্রত্যাহারের পরও দেশটির পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা যাবে।  সে ক্ষেত্রে কোনো বিপদ এলে দ্রুত তার মোকাবিলা করা যাবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-তালেবান শান্তি আলোচনা