পাকিস্তান থেকে আসায় কবুতরের বিরুদ্ধে মামলা করতে চায় বিএসএফ
jugantor
পাকিস্তান থেকে আসায় কবুতরের বিরুদ্ধে মামলা করতে চায় বিএসএফ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২১ এপ্রিল ২০২১, ২১:২৬:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

কবুতর

পাকিস্তান থেকে আসা একটি কবুতরকে ধরে থানায় দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ। অনুপ্রবেশ করায় দায়ে কবুতরটির বিরুদ্ধে মামলা করতে চাইছে বিএসএফ।

পাকিস্তান থেকে পাঞ্জাব সীমান্ত দিয়ে কবুতরটি অনুপ্রবেশ করে।ওই কবুতরের পায়ে যোগাযোগের ঠিকানা লেখা একটি ছোট কাগজের টুকরো বাঁধা ছিল। বিএসএফ কর্মীরা পাখিটির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পাখিটি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

বুধবার অমৃতসর জেলার ঊর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তা সুপার ধ্রুব ডাহিয়া জানান, বিএসএফ কবুতরটির বিরুদ্ধে এফআইআর রেজিস্ট্রেশন করতে চাইছে।

তিনি বলেন, ‘কবুতরটি পাখি হওয়ায় এর বিরুদ্ধে এফআইআর নথিভুক্ত করা যেতে পারে বলে আমার মনে হয় না। তবে আমরা বিশেষজ্ঞদের মতের জন্য বিষয়টি আমাদের আইনজীবীদের কাছে পাঠাচ্ছি।’

তিনি আরও জানান, কবুতরের পায়ে বেধে দেওয়া ওই কাগজের নম্বরটি বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। কবুতরটি বর্তমানে খানগড় থানায় আছে।

নিরাপত্তা বাহিনী একে গুপ্তচরবৃত্তির প্রচেষ্টা হিসেবে সন্দেহ করে। কবুতর তথ্য আদান প্রদানে ব্যবহার করা হয়। সাধারণত কবুতরের পায়ে বাধা নোটগুলোতে সাংকেতিক বার্তা পাঠানো হয়।

এক কর্মকর্তা বলেন, গত শনিবার অমৃতসর জেলার রোড়াওয়ালা সীমান্ত চৌকিতে একটি বিএসএফ সদস্যের কাঁধে এসে বসেছিল কবুতরটি। স্পষ্টতই সেটি সীমান্তের ওপার থেকে উড়ে আসে।

সূত্র: পিটিআই।

পাকিস্তান থেকে আসায় কবুতরের বিরুদ্ধে মামলা করতে চায় বিএসএফ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২১ এপ্রিল ২০২১, ০৯:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কবুতর
ফাইল ছবি

পাকিস্তান থেকে আসা একটি কবুতরকে ধরে থানায় দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ। অনুপ্রবেশ করায় দায়ে কবুতরটির বিরুদ্ধে মামলা করতে চাইছে বিএসএফ।

পাকিস্তান থেকে পাঞ্জাব সীমান্ত দিয়ে কবুতরটি অনুপ্রবেশ করে।ওই কবুতরের পায়ে যোগাযোগের ঠিকানা লেখা একটি ছোট কাগজের টুকরো বাঁধা ছিল। বিএসএফ কর্মীরা পাখিটির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পাখিটি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

বুধবার অমৃতসর জেলার ঊর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তা সুপার ধ্রুব ডাহিয়া জানান, বিএসএফ কবুতরটির বিরুদ্ধে এফআইআর রেজিস্ট্রেশন করতে চাইছে।

তিনি বলেন, ‘কবুতরটি পাখি হওয়ায় এর বিরুদ্ধে এফআইআর নথিভুক্ত করা যেতে পারে বলে আমার মনে হয় না। তবে আমরা বিশেষজ্ঞদের মতের জন্য বিষয়টি আমাদের আইনজীবীদের কাছে পাঠাচ্ছি।’

তিনি আরও জানান, কবুতরের পায়ে বেধে দেওয়া ওই কাগজের নম্বরটি বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। কবুতরটি বর্তমানে খানগড় থানায় আছে।

নিরাপত্তা বাহিনী একে গুপ্তচরবৃত্তির প্রচেষ্টা হিসেবে সন্দেহ করে। কবুতর তথ্য আদান প্রদানে ব্যবহার করা হয়। সাধারণত কবুতরের পায়ে বাধা নোটগুলোতে সাংকেতিক বার্তা পাঠানো হয়।

এক কর্মকর্তা বলেন, গত শনিবার অমৃতসর জেলার রোড়াওয়ালা সীমান্ত চৌকিতে একটি বিএসএফ সদস্যের কাঁধে এসে বসেছিল কবুতরটি। স্পষ্টতই সেটি সীমান্তের ওপার থেকে উড়ে আসে। 

সূত্র: পিটিআই।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন