ইউরোপে বিস্তার করছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট
jugantor
ইউরোপে বিস্তার করছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০১ মে ২০২১, ০৪:০৯:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনার নতুন ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বি.১.৬১৭ ছড়িয়ে পড়ছে ইউরোপের দেশগুলোতে।ইউরোপের কয়েকটি দেশসহ ১৭টি দেশে ইতোমধ্যে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইউরোপের প্রধান সতর্ক করেছেন।ইউরোপের যেসব দেশে বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছে সেসব দেশে করোনার ভারতীয় ধরন নতুন করে সংকট তৈরি করতে পারে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজেজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল (ইসিডিসি) জানিয়েছে, বি.১.৬১৭ ভাইরাসটি দক্ষিণ এশীয় দেশ ভারতের। এটি ইতোমধ্যে ইউরোপের ৭টি দেশে শনাক্ত হয়েছে। এটি বেলজিয়াম, জার্মানি, আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, সুইজারল্যান্ড, ফ্রেঞ্চ ক্যারিবিয়ান দ্বীপ গুয়াদেলৌপ এবং যুক্তরাজ্য।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যে এ ধরনের ভাইরাস বেশি শনাক্ত হয়েছে। ২১ এপ্রিল পর্যন্ত ১৩২ জনের শরীরে এটি শনাক্ত হয় বলে জানিয়েছে ইউরো নিউজ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, কোভিড-১৯-এর বি.১.৬১৭ ভ্যারিয়েন্ট অন্তত ১৭টি দেশে পাওয়া গেছে। ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যে সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে।বৃহস্পতিবার রোমানিয়া কর্তৃপক্ষও এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের কথা জানিয়েছে।

যে কোনো ভাইরাসই ক্রমাগত নিজের ভেতরে নিজেই মিউটেশন করতে থাকে৷ অর্থাৎ নিজেকে বদলাতে থাকে। এর ফলে একই ভাইরাসের নানা রূপ তৈরি হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই পরিবর্তন প্রক্রিয়া নিয়ে তেমন মাথাব্যথার প্রয়োজন হয়না, কারণ নতুন তৈরি অনেক ভ্যারিয়েন্ট মূল ভাইরাসের চেয়ে দুর্বল এবং কম ক্ষতিকর হয়। কিন্তু কিছু ভ্যারিয়েন্ট অনেক বেশি ছোঁয়াচে হয়ে ওঠে- যার ফলে টিকা দিয়ে একে কাবু করা কঠিন হয়ে পড়ে। করোনাভাইরাসের বি.১.৬১৭ ভ্যারিয়েন্ট প্রথম ভারতে শনাক্ত হয় অক্টোবর মাসে। দেশটিতে এরপরই সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ইতোমধ্যে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বে রেকর্ড ভেঙেছে ভারত। একদিনে মৃত্যুর সংখ্যাও তিন হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

ইউরোপে বিস্তার করছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০১ মে ২০২১, ০৪:০৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনার নতুন ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বি.১.৬১৭ ছড়িয়ে পড়ছে ইউরোপের দেশগুলোতে।ইউরোপের কয়েকটি দেশসহ ১৭টি দেশে ইতোমধ্যে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইউরোপের প্রধান সতর্ক করেছেন।ইউরোপের যেসব দেশে বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছে সেসব দেশে করোনার ভারতীয় ধরন নতুন করে সংকট তৈরি করতে পারে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। 

ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজেজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল (ইসিডিসি) জানিয়েছে, বি.১.৬১৭ ভাইরাসটি দক্ষিণ এশীয় দেশ ভারতের। এটি ইতোমধ্যে ইউরোপের ৭টি দেশে শনাক্ত হয়েছে। এটি বেলজিয়াম, জার্মানি, আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, সুইজারল্যান্ড, ফ্রেঞ্চ ক্যারিবিয়ান দ্বীপ গুয়াদেলৌপ এবং যুক্তরাজ্য। 

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যে এ ধরনের ভাইরাস বেশি শনাক্ত হয়েছে। ২১ এপ্রিল পর্যন্ত ১৩২ জনের শরীরে এটি শনাক্ত হয় বলে জানিয়েছে ইউরো নিউজ। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, কোভিড-১৯-এর বি.১.৬১৭ ভ্যারিয়েন্ট অন্তত ১৭টি দেশে পাওয়া গেছে। ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যে সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে।বৃহস্পতিবার রোমানিয়া কর্তৃপক্ষও এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের কথা জানিয়েছে।

যে কোনো ভাইরাসই ক্রমাগত নিজের ভেতরে নিজেই মিউটেশন করতে থাকে৷ অর্থাৎ নিজেকে বদলাতে থাকে। এর ফলে একই ভাইরাসের নানা রূপ তৈরি হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই পরিবর্তন প্রক্রিয়া নিয়ে তেমন মাথাব্যথার প্রয়োজন হয়না, কারণ নতুন তৈরি অনেক ভ্যারিয়েন্ট মূল ভাইরাসের চেয়ে দুর্বল এবং কম ক্ষতিকর হয়। কিন্তু কিছু ভ্যারিয়েন্ট অনেক বেশি ছোঁয়াচে হয়ে ওঠে- যার ফলে টিকা দিয়ে একে কাবু করা কঠিন হয়ে পড়ে। করোনাভাইরাসের বি.১.৬১৭ ভ্যারিয়েন্ট প্রথম ভারতে শনাক্ত হয় অক্টোবর মাসে। দেশটিতে এরপরই সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ইতোমধ্যে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বে রেকর্ড ভেঙেছে ভারত। একদিনে মৃত্যুর সংখ্যাও তিন হাজার ছাড়িয়ে গেছে। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও খবর