বিচ্ছেদের পরও জনহিতৈষী কাজ একসঙ্গে চালিয়ে যাবেন বিল-মেলিন্ডা
jugantor
বিচ্ছেদের পরও জনহিতৈষী কাজ একসঙ্গে চালিয়ে যাবেন বিল-মেলিন্ডা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৪ মে ২০২১, ১১:৪৭:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ ২৭ বছরের সংসারের ইতি টানলেন মাইক্রসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটস। আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ হওয়ার পর তাদের আর একসঙ্গে চলা হবে না। দুজনের সম্পতি ভাগ-ভাটোয়ারার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আদালতকে।

সোমবারের পর থেকে দুজনের দুটি পথ বেঁকে গেলেও এক জায়গায় দুজনের দেখা হবে। সেটি হচ্ছে বিল গেটসের প্রতিষ্ঠা করা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন। ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠার পর এটি বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় দাতব্য প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে মানবহিতৈষী কাজ চালিয়ে যাবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ধনী দম্পতি।

বিল গেটস এই প্রতিষ্ঠানে চেয়ারম্যান। আর মেলিন্ডা কো-চেয়ার ও ট্রাস্টি।

সোমবার আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন বিল ও মেলিন্ডা গেটস। বিচ্ছেদ হলেও দাতব্য কার্যক্রম একসঙ্গে চালিয়ে নেওয়ার বিষয়ে প্রত্যয়ী বিল ও মেলিন্ডা গেটস। টুইটবার্তায় লেখেন, ‘গত ২৭ বছরে আমরা অসাধারণ তিনটি সন্তান পেয়েছি। এমন একটা ফাউন্ডেশন গড়ে তুলেছি, যে ফাউন্ডেশন বিশ্বজুড়ে মানুষের স্বাস্থ্য ও সক্ষমতা নিয়ে কাজ করছে। আমরা যে বিশ্বাস থেকে ফাউন্ডেশনটি চালু করেছি, সেটা থাকবে। এই ফাউন্ডেশনের কাজ একসঙ্গে চালিয়ে যাব।

বিল ও মেলিন্ডা মিলে দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন’ গড়ে তোলেন। বিশ্বব্যাপী এ ফাউন্ডেশন বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে কাজ করছে। বিশ্বজুড়ে সংক্রামক রোগব্যাধির বিরুদ্ধে লড়াই ও শিশুদের টিকাদানে উৎসাহিত করতে কোটি কোটি ডলার ব্যয় করছে এই ফাউন্ডেশন।

সর্বশেষ হালনাগাদ আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী, ২০১৯ সাল শেষে ফাউন্ডেশনের মোট সম্পদের পরিমাণ ৪ হাজার ৩৩০ কোটি ডলার।

ওয়েবসাইটের তথ্যের বরাত দিয়ে রয়টার্স বলছে, ১৯৯৪ ও ২০১৮ সালের মধ্যে ৬৫ বছর বয়সী বিল ও ৫৬ বছর বয়সী মেলিন্ডা মিলে এই ফাউন্ডেশনে ৩ হাজার ৬০০ কোটি ডলারের বেশি দান করেছেন।

এই প্রতিষ্ঠানের অধীনে জনহিতৈষী কার্যক্রম চালিয়ে যেতে ২০২০ সালে মাইক্রসফটের দায়িত্ব ছেড়ে দিয়েছেন বিল গেটস। এর আগে ২০০৮ সালে মাইক্রসফরের সিইও পদ থেকে সরে দাঁড়ান বিল।

প্রতিষ্ঠানটি বিশ্ব স্বাস্থ্য, মানুষে মানুষে সমতা নিশ্চিত করতে বিশ্বব্যাপী কাজ করছে। করোনা রোগীদের সহায়তায় আগামী দুই বছরে ১ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন দান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এই ফাউন্ডেশন। চলতি বছরের জানুয়ারিতেও এই দম্পতি জনহিতৈষী কাজে ২৯ বিলিয়ন ডলার দিয়েছেন।

বিল ও মেলিন্ডা ফাউন্ডেশন বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী সংগঠন জনস্বাস্থ্য, সংক্রামক ব্যাধি মোকাবিলা ও সমতা সৃষ্টিতে। গত দুই দশকে ৫০ বিলিয়নেরও বেশি ডলার ব্যয় করেছে দাতব্য কাজে।

রয়টার্স বলছে, গেটস দম্পতির বিবাহ বিচ্ছেদের পর প্রতিষ্ঠান পরিচালনা বিষয়ে জানতে চাইলেও তাৎক্ষণিকভাবে ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে কোনো জবাব মিলেনি।

বিচ্ছেদের পরও জনহিতৈষী কাজ একসঙ্গে চালিয়ে যাবেন বিল-মেলিন্ডা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৪ মে ২০২১, ১১:৪৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ ২৭ বছরের সংসারের ইতি টানলেন মাইক্রসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটস। আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ হওয়ার পর তাদের আর একসঙ্গে চলা হবে না। দুজনের সম্পতি ভাগ-ভাটোয়ারার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আদালতকে।

সোমবারের পর থেকে দুজনের দুটি পথ বেঁকে গেলেও এক জায়গায় দুজনের দেখা হবে। সেটি হচ্ছে বিল গেটসের প্রতিষ্ঠা করা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন।  ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠার পর এটি বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় দাতব্য প্রতিষ্ঠান।  এই প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে মানবহিতৈষী কাজ চালিয়ে যাবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ধনী দম্পতি।

বিল গেটস এই প্রতিষ্ঠানে চেয়ারম্যান। আর মেলিন্ডা কো-চেয়ার ও ট্রাস্টি।

সোমবার আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন বিল ও মেলিন্ডা গেটস। বিচ্ছেদ হলেও দাতব্য কার্যক্রম একসঙ্গে চালিয়ে নেওয়ার বিষয়ে প্রত্যয়ী বিল ও মেলিন্ডা গেটস। টুইটবার্তায় লেখেন, ‘গত ২৭ বছরে আমরা অসাধারণ তিনটি সন্তান পেয়েছি। এমন একটা ফাউন্ডেশন গড়ে তুলেছি, যে ফাউন্ডেশন বিশ্বজুড়ে মানুষের স্বাস্থ্য ও সক্ষমতা নিয়ে কাজ করছে। আমরা যে বিশ্বাস থেকে ফাউন্ডেশনটি চালু করেছি, সেটা থাকবে। এই ফাউন্ডেশনের কাজ একসঙ্গে চালিয়ে যাব।

বিল ও মেলিন্ডা মিলে দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন’ গড়ে তোলেন। বিশ্বব্যাপী এ ফাউন্ডেশন বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে কাজ করছে। বিশ্বজুড়ে সংক্রামক রোগব্যাধির বিরুদ্ধে লড়াই ও শিশুদের টিকাদানে উৎসাহিত করতে কোটি কোটি ডলার ব্যয় করছে এই ফাউন্ডেশন।

সর্বশেষ হালনাগাদ আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী, ২০১৯ সাল শেষে ফাউন্ডেশনের মোট সম্পদের পরিমাণ ৪ হাজার ৩৩০ কোটি ডলার।

ওয়েবসাইটের তথ্যের বরাত দিয়ে রয়টার্স বলছে, ১৯৯৪ ও ২০১৮ সালের মধ্যে ৬৫ বছর বয়সী বিল ও ৫৬ বছর বয়সী মেলিন্ডা মিলে এই ফাউন্ডেশনে ৩ হাজার ৬০০ কোটি ডলারের বেশি দান করেছেন।

এই প্রতিষ্ঠানের অধীনে জনহিতৈষী কার্যক্রম চালিয়ে যেতে ২০২০ সালে মাইক্রসফটের দায়িত্ব ছেড়ে দিয়েছেন বিল গেটস।  এর আগে ২০০৮ সালে মাইক্রসফরের সিইও পদ থেকে সরে দাঁড়ান বিল।

প্রতিষ্ঠানটি বিশ্ব স্বাস্থ্য, মানুষে মানুষে সমতা নিশ্চিত করতে বিশ্বব্যাপী কাজ করছে।  করোনা রোগীদের সহায়তায় আগামী দুই বছরে ১ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন দান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এই ফাউন্ডেশন। চলতি বছরের জানুয়ারিতেও এই দম্পতি জনহিতৈষী কাজে ২৯ বিলিয়ন ডলার দিয়েছেন।

বিল ও মেলিন্ডা ফাউন্ডেশন বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী সংগঠন জনস্বাস্থ্য, সংক্রামক ব্যাধি মোকাবিলা ও সমতা সৃষ্টিতে। গত দুই দশকে ৫০ বিলিয়নেরও বেশি ডলার ব্যয় করেছে দাতব্য কাজে। 

রয়টার্স বলছে, গেটস দম্পতির বিবাহ বিচ্ছেদের পর প্রতিষ্ঠান পরিচালনা বিষয়ে জানতে চাইলেও তাৎক্ষণিকভাবে ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে কোনো জবাব মিলেনি।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বিল গেটস ও মেলিন্ডার বিচ্ছেদ