বিচ্ছেদ ঘোষণার পর ব্যক্তিগত নির্জন দ্বীপ ভাড়া করেন মেলিন্ডা!
jugantor
বিচ্ছেদ ঘোষণার পর ব্যক্তিগত নির্জন দ্বীপ ভাড়া করেন মেলিন্ডা!

  অনলাইন ডেস্ক  

০৭ মে ২০২১, ১৭:০৬:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের চতুর্থ ধনী ও মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল ও মেলিন্ডা গেটস এক সঙ্গে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার মাধ্যমে ২৭ বছরের সংসার জীবনের ইতি টানেন তারা। প্রথমে এ বিচ্ছেদের ঘোষণা দিলে সবাই ভাবেন এটা বন্ধুত্বপূর্ণ। কিন্তু ২৭ বছরের সংসার জীবনে হঠাৎ করে বিচ্ছেদের ঘোষণা কেন এল?

এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ গণমাধ্যমগুলো বলছে ভিন্ন কথা।

২০১৯ সালে ২৫তম বিয়েবার্ষিকীতে সানডে টাইমসকে মেলিন্ডা বলেছিলেন, তাদের বিয়েটা বেশ কঠিন পর্যায়ে ঠেকেছে। বিল নিয়মিত দিনের ১৬ ঘণ্টা কাজ করেন। পরিবারের জন্য তার সময় বের করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

টিএমজেড জানিয়েছে, বিচ্ছেদের বিষয়ে কয়েক মাস আগেই সিদ্ধান্ত নেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা। তারা মার্চ মাসে এ-সংক্রান্ত ঘোষণা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু তা পিছিয়ে যায়।

বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে টিএমজেড বলেছে, বিচ্ছেদের ঘোষণার পর সংবাদমাধ্যমের দৃষ্টি এড়িয়ে চলার জন্য মেলিন্ডা একটি নির্জন ব্যক্তিগত দ্বীপ ভাড়া করেন। বিল গেটস ছাড়া সেখানে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

সেখানে পরিবারের সবাই মেলিন্ডার পক্ষ নেন। ধারণা করা হচ্ছে, বিল গেটস এমন কিছু করেছেন, যা নিয়ে পরিবারের সবাই তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ হন। এ কারণে তাকে অবকাশ দ্বীপে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

বিচ্ছেদটি ‘বন্ধুত্বপূর্ণভাবে’ হয়নি। বিচ্ছেদ-সংক্রান্ত কিছু বিষয়ে উভয় পক্ষের আইনজীবীরা কোনো সমঝোতায় আসতে পারেননি। এই সমস্যাগুলো এখনো রয়ে গেছে।

এদিকে বিল গেটস ও মেলিন্ডার দম্পতির ২৭ বছরের সংসার ভাঙ্গার পেছনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক চীনা সুন্দরী নারীকে দায়ী করা হচ্ছে। ঝি শেলি ওয়াং নামের ওই নারী ‘বিল অ্যান্ড ফাউন্ডেশনের’ অনুবাদক হিসেবে কাজ করেন।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে শেলি বলেছেন, বিল গেটস ও মেলিন্ডা দম্পতির সঙ্গে আমার পেশাদারিত্বের সম্পর্ক।

ফক্স নিউজের খবরে বলা হয়, ২০১৫ সাল থেকে বিলের ওই ফাউন্ডেশনে অনুবাদক হিসেবে কাজ করছেন ৩৬ বছর বয়সী শেলি। বিল-মেলিন্ডা দম্পতির বিচ্ছেদের ঘোষণার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিল গেটস ও তাকে জড়িয়ে নানা গুজব ছড়াতে থাকে। বিল গেটসের সঙ্গে তার অন্তরঙ্গতা বিচ্ছেদকে ত্বরান্বিত করেছে বলেও অভিযোগ করেন অনেকে।

পরে এ নিয়ে মুখ খোলেন শেলি। চাইনিজ সোশ্যাল মিডিয়া উইবো-তে এক স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, আমি মনে করেছিলেন, গুজবটি এমনিতেই চলে যাবে। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে।

তিনি এসব ভিত্তিহীন গুজবে সময় ব্যয় করেন না বলেও জানান।

শেলি তার স্ট্যাটাসের শেষে ‘গেটস বিবাহবিচ্ছেদ, একজন নির্দোষ চীনা মেয়ের বদনাম করতে কিছু দুশ্চরিত্র মানুষ গুজব ছড়াচ্ছে’ শিরোনামের একটি গল্পের লিঙ্কও জুড়ে দেন।

প্রসঙ্গত সাত বছর প্রেমের সম্পর্ক থেকে বিয়ে করেছিলেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা। সম্প্রতি দীর্ঘ ২৭ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার ঘোষণা দেন।

বিচ্ছেদ ঘোষণার পর ব্যক্তিগত নির্জন দ্বীপ ভাড়া করেন মেলিন্ডা!

 অনলাইন ডেস্ক 
০৭ মে ২০২১, ০৫:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের চতুর্থ ধনী ও মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল ও মেলিন্ডা গেটস এক সঙ্গে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার মাধ্যমে ২৭ বছরের সংসার জীবনের ইতি টানেন তারা। প্রথমে এ বিচ্ছেদের ঘোষণা দিলে সবাই ভাবেন এটা বন্ধুত্বপূর্ণ। কিন্তু ২৭ বছরের সংসার জীবনে হঠাৎ করে বিচ্ছেদের ঘোষণা কেন এল?

এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ গণমাধ্যমগুলো বলছে ভিন্ন কথা।

২০১৯ সালে ২৫তম বিয়েবার্ষিকীতে সানডে টাইমসকে মেলিন্ডা বলেছিলেন, তাদের বিয়েটা বেশ কঠিন পর্যায়ে ঠেকেছে। বিল নিয়মিত দিনের ১৬ ঘণ্টা কাজ করেন। পরিবারের জন্য তার সময় বের করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

টিএমজেড জানিয়েছে, বিচ্ছেদের বিষয়ে কয়েক মাস আগেই সিদ্ধান্ত নেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা। তারা মার্চ মাসে এ-সংক্রান্ত ঘোষণা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু তা পিছিয়ে যায়।

বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে টিএমজেড বলেছে, বিচ্ছেদের ঘোষণার পর সংবাদমাধ্যমের দৃষ্টি এড়িয়ে চলার জন্য মেলিন্ডা একটি নির্জন ব্যক্তিগত দ্বীপ ভাড়া করেন। বিল গেটস ছাড়া সেখানে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

সেখানে পরিবারের সবাই মেলিন্ডার পক্ষ নেন। ধারণা করা হচ্ছে, বিল গেটস এমন কিছু করেছেন, যা নিয়ে পরিবারের সবাই তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ হন। এ কারণে তাকে অবকাশ দ্বীপে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

বিচ্ছেদটি ‘বন্ধুত্বপূর্ণভাবে’ হয়নি। বিচ্ছেদ-সংক্রান্ত কিছু বিষয়ে উভয় পক্ষের আইনজীবীরা কোনো সমঝোতায় আসতে পারেননি। এই সমস্যাগুলো এখনো রয়ে গেছে।

এদিকে বিল গেটস ও মেলিন্ডার দম্পতির ২৭ বছরের সংসার ভাঙ্গার পেছনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক চীনা সুন্দরী নারীকে দায়ী করা হচ্ছে। ঝি শেলি ওয়াং নামের ওই নারী ‘বিল অ্যান্ড ফাউন্ডেশনের’ অনুবাদক হিসেবে কাজ করেন। 

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে শেলি বলেছেন, বিল গেটস ও মেলিন্ডা দম্পতির সঙ্গে আমার পেশাদারিত্বের সম্পর্ক।

ফক্স নিউজের খবরে বলা হয়, ২০১৫ সাল থেকে বিলের ওই ফাউন্ডেশনে অনুবাদক হিসেবে কাজ করছেন ৩৬ বছর বয়সী শেলি। বিল-মেলিন্ডা দম্পতির বিচ্ছেদের ঘোষণার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিল গেটস ও তাকে জড়িয়ে নানা গুজব ছড়াতে থাকে। বিল গেটসের সঙ্গে তার অন্তরঙ্গতা বিচ্ছেদকে ত্বরান্বিত করেছে বলেও অভিযোগ করেন অনেকে।

পরে এ নিয়ে মুখ খোলেন শেলি। চাইনিজ সোশ্যাল মিডিয়া উইবো-তে এক স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, আমি মনে করেছিলেন, গুজবটি এমনিতেই চলে যাবে। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে।

তিনি এসব ভিত্তিহীন গুজবে সময় ব্যয় করেন না বলেও জানান। 

শেলি তার স্ট্যাটাসের শেষে ‘গেটস বিবাহবিচ্ছেদ, একজন নির্দোষ চীনা মেয়ের বদনাম করতে কিছু দুশ্চরিত্র মানুষ গুজব ছড়াচ্ছে’ শিরোনামের একটি গল্পের লিঙ্কও জুড়ে দেন। 

প্রসঙ্গত সাত বছর প্রেমের সম্পর্ক থেকে বিয়ে করেছিলেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা। সম্প্রতি দীর্ঘ ২৭ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার ঘোষণা দেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বিল গেটস ও মেলিন্ডার বিচ্ছেদ