কাতার আমিরের সৌদি সফরে বিন সালমানের উষ্ণ অভ্যর্থনা
jugantor
কাতার আমিরের সৌদি সফরে বিন সালমানের উষ্ণ অভ্যর্থনা

  যুগান্তর ডেস্ক  

১২ মে ২০২১, ১৪:১৭:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল সানি সৌদি আরব সফরে গেছেন।

সোমবার জেদ্দার বিমানবন্দরে পৌঁছালে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তাকে স্বাগত জানান।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়, সফরের অংশ হিসেবে আল সালাম প্যালেসে কাতারি আমিরের সঙ্গে সৌদি যুবরাজ বৈঠকে মিলিত হন। এ সময় তারা দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে সন্ত্রাসে মদদের অভিযোগ এনে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক, বাণিজ্য সম্পর্ক ছিন্ন করাসহ ভ্রমণও বন্ধ করেছিল সৌদি আরবসহ বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিসর। তবে সন্ত্রাসের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে কাতার।

ওই সময় অবরোধ প্রত্যাহারের জন্য ১৩টি শর্ত জুড়ে দেওয়া হল কাতারের সামনে। তুরস্ক এবং ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা, কাতার থেকে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি তুলে নেওয়া এবং আলজাজিরা টেলিভিশন বন্ধ করা ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম।

তবে সৌদি জোটের দাবি প্রত্যাখ্যান করে উল্টো তুরস্কের দিকে আরও বেশি ঝুঁকে পড়ে কাতার। তুরস্কও কাতারের সমর্থনে এগিয়ে আসে।

সৌদি আরবসহ চার দেশ, অন্যদিকে কাতার, এ দু’তরফের ঝগড়ায় মধ্যস্থতার ভূমিকা নেয় কুয়েত। ডিসেম্বরে কুয়েতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে।

২০২১ সালের শুরুর দিকে অবরোধ প্রত্যাহার করে কাতারের সঙ্গে দ্বন্দ্ব মেটানোর চুক্তি করে সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় দেশগুলো।

কাতার আমিরের সৌদি সফরে বিন সালমানের উষ্ণ অভ্যর্থনা

 যুগান্তর ডেস্ক 
১২ মে ২০২১, ০২:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল সানি সৌদি আরব সফরে গেছেন। 

সোমবার জেদ্দার বিমানবন্দরে পৌঁছালে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তাকে স্বাগত জানান। 

আল জাজিরার খবরে বলা হয়, সফরের অংশ হিসেবে আল সালাম প্যালেসে কাতারি আমিরের সঙ্গে সৌদি যুবরাজ বৈঠকে মিলিত হন। এ সময় তারা দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে সন্ত্রাসে মদদের অভিযোগ এনে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক, বাণিজ্য সম্পর্ক ছিন্ন করাসহ ভ্রমণও বন্ধ করেছিল সৌদি আরবসহ বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিসর। তবে সন্ত্রাসের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে কাতার।

ওই সময় অবরোধ প্রত্যাহারের জন্য ১৩টি শর্ত জুড়ে দেওয়া হল কাতারের সামনে।  তুরস্ক এবং ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা, কাতার থেকে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি তুলে নেওয়া এবং আলজাজিরা টেলিভিশন বন্ধ করা ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম। 

তবে সৌদি জোটের দাবি প্রত্যাখ্যান করে উল্টো তুরস্কের দিকে আরও বেশি ঝুঁকে পড়ে কাতার। তুরস্কও কাতারের সমর্থনে এগিয়ে আসে। 

সৌদি আরবসহ চার দেশ, অন্যদিকে কাতার, এ দু’তরফের ঝগড়ায় মধ্যস্থতার ভূমিকা নেয় কুয়েত। ডিসেম্বরে কুয়েতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে।

২০২১ সালের শুরুর দিকে অবরোধ প্রত্যাহার করে কাতারের সঙ্গে দ্বন্দ্ব মেটানোর চুক্তি করে সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় দেশগুলো।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : সৌদি-কাতার সংকট