পাকিস্তানে চাঁদ দেখা নিয়ে বিতর্ক, একটি রোজা কাজা করার আহ্বান!
jugantor
পাকিস্তানে চাঁদ দেখা নিয়ে বিতর্ক, একটি রোজা কাজা করার আহ্বান!

  অনলাইন ডেস্ক  

১৩ মে ২০২১, ১৫:০৪:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

টেলিস্কোপ ব্যবহার করে  চাঁদ দেখছেন পাকিস্তান হিলাল কমিটির চেয়ারম্যান।

পাকিস্তানের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মুফতি মুনিবুর রহমান দাবি করেছেন, শাওয়াল মাসের চাঁদ না দেখেই চাঁদ দেখা কমিটি ঈদ পালনের ঘোষণা দিয়েছে।

তাই পাকিস্তানের মুসলমানদেরকে সম্বোধন করে তিনি বলেন, আপনারা এক দিনের রোজা ও এক দিনের ই’তিকাফের কাজা করে নিন।

তিনি বলেন, পাকিস্তানের বর্তমান চাঁদ দেখা কমিটির মনগড়া এই সিদ্ধান্তের জন্য সারারাত আমি কেঁদেছি।খবর এক্সপ্রেস নিউজ উর্দুর।

বৃহস্পতিবার ঈদ জামাতের আগে করা বয়ানে মুফতি মুনিবুর রহমান বলেন, সরকারের মর্জিমাফিক চলতে পারে এমন পুতুল একটি চাঁদ দেখা কমিটি বানানো হয়েছে। তারা কাসেম খান মসজিদের মুফতি শিহাবুদ্দীনের অপেক্ষায় ছিল। যখনই তিনি চাঁদ দেখার ঘোষণা দিলেন, তখন চাঁদ দেখা কমিটিও ঈদের ঘোষণা করল।

এর আগে বুধবার রাত ১১.৩২-এ চাঁদ দেখা যাওয়ার ঘোষণা দেয় পাকিস্তানের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। এর আগে পর্যন্ত সবাইকে অপেক্ষায় রাখা হয়।

পাকিস্তানের আবহাওয়া বিভাগআগেই জানিয়েছিল, বর্তমান পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের আকাশে বুধবার চাঁদ দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। সন্ধ্যার পর সাক্কুর, লাহোর, করাচি ও কোয়েটার আঞ্চলিক কমিটিগুলো ঘোষণা করে দেয় যে তাদের এলাকায় চাঁদ দেখা যায়নি।

সবাই যখন শুক্রবারে ঈদ করার প্রস্তুতি সম্পন্ন করছে, তখনই পেশোয়ারে চাঁদ দেখার তথ্য পাওয়া যেতে থাকে।

ইসলামাবাদে রুয়াত-ই-হিলাল কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল খবির আজাদ সংবাদ সম্মেলনে জানান, বেলুচিস্তানের চামান, কিল্লা সাইফুল্লাহ ও পাসনি, খাইবার পাখতুনখাওয়ার পেশোয়ার ও সিন্ধুর মিরপুরখাস থেকে চাঁদ দেখার খবর পাওয়া গেছে। ফলে বৃহস্পতিবারই ঈদ হবে। তবে এমন সিদ্ধান্তে পাকিস্তানের অনেক আলেম অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন।

পাকিস্তানে চাঁদ দেখা নিয়ে বিতর্ক, একটি রোজা কাজা করার আহ্বান!

 অনলাইন ডেস্ক 
১৩ মে ২০২১, ০৩:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
টেলিস্কোপ ব্যবহার করে  চাঁদ দেখছেন পাকিস্তান হিলাল কমিটির চেয়ারম্যান।
টেলিস্কোপ ব্যবহার করে চাঁদ দেখছেন পাকিস্তান হিলাল কমিটির চেয়ারম্যান।

পাকিস্তানের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মুফতি মুনিবুর রহমান দাবি করেছেন, শাওয়াল মাসের চাঁদ না দেখেই চাঁদ দেখা কমিটি ঈদ পালনের ঘোষণা দিয়েছে। 

তাই পাকিস্তানের মুসলমানদেরকে সম্বোধন করে তিনি বলেন, আপনারা এক দিনের রোজা ও এক দিনের ই’তিকাফের কাজা করে নিন। 

তিনি বলেন, পাকিস্তানের বর্তমান চাঁদ দেখা কমিটির মনগড়া এই সিদ্ধান্তের জন্য সারারাত আমি কেঁদেছি।খবর এক্সপ্রেস নিউজ উর্দুর।  

বৃহস্পতিবার ঈদ জামাতের আগে করা বয়ানে মুফতি মুনিবুর রহমান বলেন, সরকারের মর্জিমাফিক চলতে পারে এমন পুতুল একটি চাঁদ দেখা কমিটি বানানো হয়েছে। তারা কাসেম খান মসজিদের মুফতি শিহাবুদ্দীনের অপেক্ষায় ছিল। যখনই তিনি চাঁদ দেখার ঘোষণা দিলেন, তখন চাঁদ দেখা কমিটিও ঈদের ঘোষণা করল। 

এর আগে বুধবার রাত ১১.৩২-এ চাঁদ দেখা যাওয়ার ঘোষণা দেয় পাকিস্তানের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। এর আগে পর্যন্ত সবাইকে অপেক্ষায় রাখা হয়।

পাকিস্তানের আবহাওয়া বিভাগ আগেই জানিয়েছিল, বর্তমান পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের আকাশে বুধবার চাঁদ দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। সন্ধ্যার পর সাক্কুর, লাহোর, করাচি ও কোয়েটার আঞ্চলিক কমিটিগুলো ঘোষণা করে দেয় যে তাদের এলাকায় চাঁদ দেখা যায়নি।

সবাই যখন শুক্রবারে ঈদ করার প্রস্তুতি সম্পন্ন করছে, তখনই পেশোয়ারে চাঁদ দেখার তথ্য পাওয়া যেতে থাকে। 

ইসলামাবাদে রুয়াত-ই-হিলাল কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল খবির আজাদ সংবাদ সম্মেলনে জানান, বেলুচিস্তানের চামান, কিল্লা সাইফুল্লাহ ও পাসনি, খাইবার পাখতুনখাওয়ার পেশোয়ার ও সিন্ধুর মিরপুরখাস থেকে চাঁদ দেখার খবর পাওয়া গেছে। ফলে বৃহস্পতিবারই ঈদ হবে। তবে এমন সিদ্ধান্তে পাকিস্তানের অনেক আলেম অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন