বিজেপি নেতা শুভেন্দু ও মুকুলও কি গ্রেফতার হবে?
jugantor
বিজেপি নেতা শুভেন্দু ও মুকুলও কি গ্রেফতার হবে?

  অনলাইন ডেস্ক  

১৭ মে ২০২১, ১২:৫৫:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়। ফাইল ছবি

নারদ মামলায় পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, প্রাক্তন মন্ত্রী তথা কামরাহাটির বিধায়ক মদন মিত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সেই সঙ্গেই গ্রেফতার করা হয়েছে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। ঘটনাচক্রে, যিনি তৃমমূল ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু বিধানসভা ভোটে ‘নিষ্ক্রিয়’ ছিলেন।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, ওই চার জনের গ্রেফতারির পরই প্রশ্ন উঠেছে, যে মামলায় সিবিআই তাদের দলের তিন নেতাকে গ্রেফতার করেছে, সেই মামলায় অভিযুক্ত দুই বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়ও। তাদেরও কি গ্রেফতার করা হবে?

তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ বলেন, বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর প্রতিহিংসা পরায়ণ আচরণ করছে বিজেপি। চার্জশিটই যদি দেওয়া হয় তাহলে, বাড়ি থেকে তুলে এনে চার্জশিট দেওয়ার জায়গা নেই। তার পরিবর্তে একটা কলঙ্কজনক জিনিস হচ্ছে। মুকুল রায় ও শুভেন্দু অধিকারী কোথায়? এই নারদা মামলায় মুকুল রায় বলছে মির্জাকে আমার হয়ে টাকা দাও। মির্জা বলেছে, আমি মুকুল রায়ের হয়ে টাকা তুলি। মুকুল রায় কোথায়? এফআইআরে শুভেন্দু, মুকুলের নাম রয়েছে। তারা কোথায়। শঙ্কুদেব পন্ডা বলছে, আমাকে শেয়ার দিলে আমি দালালির কাজ করব। তাকে কেন অ্যারেস্ট করা হয়নি। ফিরহাদ কলকাতা পৌরসভার মুখ্য প্রশাসক। কোভিড পরিস্থিতিতে গোটা সিস্টেমটাকে গোছানোর কাজ চলছে। সেই সিস্টেমটাকেও ভেঙে দিতে নেমেছে বিজেপি।

প্রকাশ্যে রাজ্য বিজেপির কোনও নেতাই এর জবাব দিতে চাননি।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে আরও বলা হয়, সোমবার সকালে প্রথম দিকে বিজেপির পক্ষ থেকে ওই গ্রেফতারি নিয়ে কোনও নেতাই মুখ খুলতে রাজি হননি। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকেও ফোনে পাওয়া যায়নি।

সাবেক রাজ্য সভাপতি রাহুল সিংহ বলেন, ‘‘এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। বিধানসভা নির্বাচনের আগে গ্রেফতার হলে তবু বিজেপির দিকে আঙুল তোলা যেত। এখন আদালতের নির্দেশে সিবিআই তদন্ত করছে। তথ্যপ্রমাণ অনুযায়ী যাকে গ্রেফতার করা দরকার, তাকে গ্রেফতার করেছে। আমাদের কিছু বলার নেই।’’

শুভেন্দু-মুকুল সম্পর্কে যে অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল, সেই প্রসঙ্গে রাহুল বলেন, এটা সিবিআই-এর বিষয়। এর মধ্যে বিজেপি নেই।

যদি ওই দুই নেতার বিরুদ্ধেও সিবিআই পদক্ষেপ করে, তখনও কি একই কথা বলবে বিজেপি? এমন প্রশ্নের জবাবে রাহুল সিংহ বলেন, ‘কোনও’ ‘যদি’ নিয়ে আমি উত্তর দেব না। তদন্ত চলছে। তদন্ত যেমন এগোবে, সিবিআই তেমন করবে।

বিজেপি নেতা শুভেন্দু ও মুকুলও কি গ্রেফতার হবে?

 অনলাইন ডেস্ক 
১৭ মে ২০২১, ১২:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়। ফাইল ছবি
শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়। ফাইল ছবি

নারদ মামলায় পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, প্রাক্তন মন্ত্রী তথা কামরাহাটির বিধায়ক মদন মিত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সেই সঙ্গেই গ্রেফতার করা হয়েছে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। ঘটনাচক্রে, যিনি তৃমমূল ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু বিধানসভা ভোটে ‘নিষ্ক্রিয়’ ছিলেন। 

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, ওই চার জনের গ্রেফতারির পরই প্রশ্ন উঠেছে, যে মামলায় সিবিআই তাদের দলের তিন নেতাকে গ্রেফতার করেছে, সেই মামলায় অভিযুক্ত দুই বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়ও। তাদেরও কি গ্রেফতার করা হবে? 

তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ বলেন, বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর প্রতিহিংসা পরায়ণ আচরণ করছে বিজেপি। চার্জশিটই যদি দেওয়া হয় তাহলে, বাড়ি থেকে তুলে এনে চার্জশিট দেওয়ার জায়গা নেই। তার পরিবর্তে একটা কলঙ্কজনক জিনিস হচ্ছে। মুকুল রায় ও শুভেন্দু অধিকারী কোথায়? এই নারদা মামলায় মুকুল রায় বলছে মির্জাকে আমার হয়ে টাকা দাও। মির্জা বলেছে, আমি মুকুল রায়ের হয়ে টাকা তুলি। মুকুল রায় কোথায়? এফআইআরে শুভেন্দু, মুকুলের নাম রয়েছে। তারা কোথায়। শঙ্কুদেব পন্ডা বলছে, আমাকে শেয়ার দিলে আমি দালালির কাজ করব। তাকে কেন অ্যারেস্ট করা হয়নি। ফিরহাদ কলকাতা পৌরসভার মুখ্য প্রশাসক। কোভিড পরিস্থিতিতে গোটা সিস্টেমটাকে গোছানোর কাজ চলছে। সেই সিস্টেমটাকেও ভেঙে দিতে নেমেছে বিজেপি।

প্রকাশ্যে রাজ্য বিজেপির কোনও নেতাই এর জবাব দিতে চাননি। 

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে আরও বলা হয়, সোমবার সকালে প্রথম দিকে বিজেপির পক্ষ থেকে ওই গ্রেফতারি নিয়ে কোনও নেতাই মুখ খুলতে রাজি হননি। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকেও ফোনে পাওয়া যায়নি। 

সাবেক রাজ্য সভাপতি রাহুল সিংহ বলেন, ‘‘এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। বিধানসভা নির্বাচনের আগে গ্রেফতার হলে তবু বিজেপির দিকে আঙুল তোলা যেত। এখন আদালতের নির্দেশে সিবিআই তদন্ত করছে। তথ্যপ্রমাণ অনুযায়ী যাকে গ্রেফতার করা দরকার, তাকে গ্রেফতার করেছে। আমাদের কিছু বলার নেই।’’ 

শুভেন্দু-মুকুল সম্পর্কে যে অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল, সেই প্রসঙ্গে রাহুল বলেন, এটা সিবিআই-এর বিষয়। এর মধ্যে বিজেপি নেই।

যদি ওই দুই নেতার বিরুদ্ধেও সিবিআই পদক্ষেপ করে, তখনও কি একই কথা বলবে বিজেপি? এমন প্রশ্নের জবাবে রাহুল সিংহ বলেন, ‘কোনও’ ‘যদি’ নিয়ে আমি উত্তর দেব না। তদন্ত চলছে। তদন্ত যেমন এগোবে, সিবিআই তেমন করবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন