মিয়ানমারে ২০ পুলিশকে গুলি করে হত্যা, থানা দখল
jugantor
মিয়ানমারে ২০ পুলিশকে গুলি করে হত্যা, থানা দখল

  অনলাইন ডেস্ক  

২৪ মে ২০২১, ১৮:৩০:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমার পুলিশ

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বেসামরিক যোদ্ধাদের সঙ্গে তুমুল সংঘর্ষে দেশটির অন্তত ২০ জন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের (পিডিএফ) দাবি, রোববার শান রাজ্যের একটি শহরে তাদের যোদ্ধাদের সঙ্গে পুলিশের তুমুল সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া শহরের একটি পুলিশ স্টেশন তারা দখল করেন নেয়। সোমবার এ খবর জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর চার সদস্যকে আটক করে হেফাজতে নিয়েছেন জান্তাবিরোধী যোদ্ধারা পাশাপাশি দখলে নেওয়া পুলিশ স্টেশনটি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় তারা।

চলতি মাসের শুরুর দিকে ছায়া সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়, তারা পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (পিডিএফ) গঠন করেছে। সামরিক জান্তার হাত থেকে বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে তারা এই বাহিনী গঠন করেছে।

এ ঘটনার একাধিক ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা হয়েছে। ভিডিওতে নিরাপত্তা বাহিনীর উর্দি পরা সদস্যদের লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

আগুন ধরিয়ে দেওয়া পুলিশ স্টেশন ও পুলিশের একটি যানবাহন থেকে ধোঁয়ার কুণ্ডলী উড়তে দেখা গেছে।

এদিকে প্রথমবারের মতো আদালতে একটি শুনানিতে অংশ নিয়েছেন মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানে আটক দেশটির গণতান্ত্রিক নেত্রী অং সান সু চি।

ত্থিয়ে মং মং নামের ওই আইনজীবীর বরাতে রয়টার্স জানায়, আদালতে হাজির সু চিকে সুস্থ মনে হয়েছে। সু চি শুনানির আগে তার আইনজীবী দলের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠকে অংশ নেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে রক্তপাতহীন সামরিক অভ্যুত্থানে আটক হন শান্তিতে নোবেলজয়ী সু চি। তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রেখে রাষ্ট্রের গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের পর প্রায় ৪ হাজার ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। সামরিক শাসনবিরোধী বিক্ষোভে শত শত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।

মিয়ানমারে ২০ পুলিশকে গুলি করে হত্যা, থানা দখল

 অনলাইন ডেস্ক 
২৪ মে ২০২১, ০৬:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মিয়ানমার পুলিশ
ফাইল ছবি

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বেসামরিক যোদ্ধাদের সঙ্গে তুমুল সংঘর্ষে দেশটির অন্তত ২০ জন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন।  পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের (পিডিএফ) দাবি, রোববার শান রাজ্যের একটি শহরে তাদের যোদ্ধাদের সঙ্গে পুলিশের তুমুল সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া শহরের একটি পুলিশ স্টেশন তারা দখল করেন নেয়।  সোমবার এ খবর জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। 

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর চার সদস্যকে আটক করে হেফাজতে নিয়েছেন জান্তাবিরোধী যোদ্ধারা পাশাপাশি দখলে নেওয়া পুলিশ স্টেশনটি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় তারা।

চলতি মাসের শুরুর দিকে ছায়া সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়, তারা পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (পিডিএফ) গঠন করেছে। সামরিক জান্তার হাত থেকে বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে তারা এই বাহিনী গঠন করেছে।

এ ঘটনার একাধিক ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা হয়েছে। ভিডিওতে নিরাপত্তা বাহিনীর উর্দি পরা সদস্যদের লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

আগুন ধরিয়ে দেওয়া পুলিশ স্টেশন ও পুলিশের একটি যানবাহন থেকে ধোঁয়ার কুণ্ডলী উড়তে দেখা গেছে।

এদিকে প্রথমবারের মতো আদালতে একটি শুনানিতে অংশ নিয়েছেন মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানে আটক দেশটির গণতান্ত্রিক নেত্রী অং সান সু চি। 

ত্থিয়ে মং মং নামের ওই আইনজীবীর বরাতে রয়টার্স জানায়, আদালতে হাজির সু চিকে সুস্থ মনে হয়েছে। সু চি শুনানির আগে তার আইনজীবী দলের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠকে অংশ নেন। 

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে রক্তপাতহীন সামরিক অভ্যুত্থানে আটক হন শান্তিতে নোবেলজয়ী সু চি। তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রেখে রাষ্ট্রের গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের পর প্রায় ৪ হাজার ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। সামরিক শাসনবিরোধী বিক্ষোভে শত শত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : অং সান সু চি আটক