বড় চাল মমতার, মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হলেন সেই আলাপন
jugantor
বড় চাল মমতার, মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হলেন সেই আলাপন

  অনলাইন ডেস্ক  

৩১ মে ২০২১, ১৮:৩৩:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস

ভারত সরকারের পক্ষ থেকে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বদলি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গজুড়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার মধ্যে নতুন কৌশল নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সোমবার দুপুরে ‘নরম’ মোদি সরকারকে বার্তা দেয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই বড় চাল দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানিয়ে দিলেন, ইতিমধ্যে অবসর নিয়েছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।
আগামীকাল (১ জুন) থেকে তিন বছরের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা থাকবেন তিনি। নয়া মুখ্যসচিব হচ্ছেন বর্তমান স্বরাষ্ট্রসচিব এইচ কে দ্বিবেদী। আর স্বরাষ্ট্র দফতরের সচিব হচ্ছেন বি পি গোপালিকা। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

সোমবার বিকালে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে রীতিমতো ক্ষুব্ধ মমতা জানান, রাজ্যের আবেদনের পর বিকাল ৫টার কিছুটা আগে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে আলাপনকে চিঠি পাঠানো হয়। আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে আলাপনকে নর্থ ব্লকে কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়নি। কিন্তু কী কারণে ডাকা হয়েছে, সে বিষয়ে কোনও উচ্চবাচ্য করা হয়নি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে লেখা তার চিঠির কোনও জবাব দেওয়া হয়নি।

মমতা বলেন, বিজেপির আমলে আমলারা অসহায়। তাদের সম্পর্কে আমার উচ্চধারণা আছে। যা বলা হবে, তা তারা করতে বাধ্য নন। অনেক হয়েছে, আমি আমলাদের পাশে রয়েছি। এটা আমলাদের অপমান। ওরা খালি ভাষণ দিচ্ছেন, আর আমলারা রেশন সরবরাহ করবেন।

পশ্চিমবঙ্গ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,বাংলা হারতে জানে না। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিএখনও আমার চিঠির উত্তর দিতে পারেননি। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় আজ অবসর নিয়েছেন। আমলাতন্ত্রকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। এটা হওয়া উচিত নয়। এই জন্য সংবিধানে লক্ষ্মণরেখা টানা আছে। আলোচনা ছাড়া এটা সম্ভব নয়। সুপ্রিম কোর্টেরও নির্দেশ আছে।

আলাপনকে কেন্দ্রীয় সরকারের বদলির সমালোচনা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়আরও বলেন,এটা দুর্ভাগ্যজনক। আমি এটা কখনই মানব না। আমাদের আলাপনকে চাই। তিনি অবসর নিচ্ছিলেন। আমরা তাকে রাজ্যের প্রয়োজনে রেখেছি।

হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব পদে আলাপনের মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানোর আবেদন জানায় রাজ্য সরকার। কেন্দ্রের কাছে সেই মর্মে আবেদন জানানো হয়েছিল। কেন্দ্র সেই আবেদন অনুযায়ী ৩ মাসের মেয়া বৃদ্ধির অনুমতি দিয়ে ২৪ মে সম্মতির চিঠি পাঠিয়েছিল নবান্নে। কিন্তু কলাইকুণ্ডায় প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে অনুপস্থিতি থাকা নিয়ে পাল্টে যায় গোটা পরিস্থিতি।

শুক্রবার রাতেই ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে চিঠি পাঠিয়ে জানানো হয়, সোমবার সকাল ১০টার মধ্যেই আলাপনকে নর্থ ব্লকের কর্মীবৃন্দ মন্ত্রণালয়ে গিয়ে দেখা করতে হবে। কিন্তু নর্থ ব্লক নয়, আলাপন সোমবার নবান্নেই যান। পরে মমতা তাকে মুখ্য উপদেষ্টা পদে নিয়োগ দেন।

বড় চাল মমতার, মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হলেন সেই আলাপন

 অনলাইন ডেস্ক 
৩১ মে ২০২১, ০৬:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস
ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস

ভারত সরকারের পক্ষ থেকে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বদলি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গজুড়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার মধ্যে নতুন কৌশল নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

সোমবার দুপুরে ‘নরম’ মোদি সরকারকে বার্তা দেয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই বড় চাল দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানিয়ে দিলেন, ইতিমধ্যে অবসর নিয়েছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। 
আগামীকাল (১ জুন) থেকে তিন বছরের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা থাকবেন তিনি। নয়া মুখ্যসচিব হচ্ছেন বর্তমান স্বরাষ্ট্রসচিব এইচ কে দ্বিবেদী। আর স্বরাষ্ট্র দফতরের সচিব হচ্ছেন বি পি গোপালিকা। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

সোমবার বিকালে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে রীতিমতো ক্ষুব্ধ মমতা জানান, রাজ্যের আবেদনের পর বিকাল ৫টার কিছুটা আগে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে আলাপনকে চিঠি পাঠানো হয়। আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে আলাপনকে নর্থ ব্লকে কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়নি। কিন্তু কী কারণে ডাকা হয়েছে, সে বিষয়ে কোনও উচ্চবাচ্য করা হয়নি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে লেখা তার চিঠির কোনও জবাব দেওয়া হয়নি। 

মমতা বলেন, বিজেপির আমলে আমলারা অসহায়। তাদের সম্পর্কে আমার উচ্চধারণা আছে। যা বলা হবে, তা তারা করতে বাধ্য নন। অনেক হয়েছে, আমি আমলাদের পাশে রয়েছি। এটা আমলাদের অপমান। ওরা খালি ভাষণ দিচ্ছেন, আর আমলারা রেশন সরবরাহ করবেন।

পশ্চিমবঙ্গ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বাংলা হারতে জানে না। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এখনও আমার চিঠির উত্তর দিতে পারেননি। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় আজ অবসর নিয়েছেন। আমলাতন্ত্রকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। এটা হওয়া উচিত নয়। এই জন্য সংবিধানে লক্ষ্মণরেখা টানা আছে। আলোচনা ছাড়া এটা সম্ভব নয়। সুপ্রিম কোর্টেরও নির্দেশ আছে। 

আলাপনকে কেন্দ্রীয় সরকারের বদলির সমালোচনা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও বলেন, এটা দুর্ভাগ্যজনক। আমি এটা কখনই মানব না। আমাদের আলাপনকে চাই। তিনি অবসর নিচ্ছিলেন। আমরা তাকে রাজ্যের প্রয়োজনে রেখেছি।

হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়,  সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব পদে আলাপনের মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানোর আবেদন জানায় রাজ্য সরকার। কেন্দ্রের কাছে সেই মর্মে আবেদন জানানো হয়েছিল। কেন্দ্র সেই আবেদন অনুযায়ী ৩ মাসের মেয়া বৃদ্ধির অনুমতি দিয়ে ২৪ মে সম্মতির চিঠি পাঠিয়েছিল নবান্নে। কিন্তু কলাইকুণ্ডায় প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে অনুপস্থিতি থাকা নিয়ে পাল্টে যায় গোটা পরিস্থিতি। 

শুক্রবার রাতেই ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে চিঠি পাঠিয়ে জানানো হয়, সোমবার সকাল ১০টার মধ্যেই আলাপনকে নর্থ ব্লকের কর্মীবৃন্দ মন্ত্রণালয়ে গিয়ে দেখা করতে হবে। কিন্তু নর্থ ব্লক নয়, আলাপন সোমবার নবান্নেই যান। পরে মমতা তাকে মুখ্য উপদেষ্টা পদে নিয়োগ দেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন