বাবার বেতন বন্ধ হওয়ায় কাশ্মীরি যুবকের আত্মহত্যা!
jugantor
বাবার বেতন বন্ধ হওয়ায় কাশ্মীরি যুবকের আত্মহত্যা!

  অনলাইন ডেস্ক  

০১ জুন ২০২১, ১৯:১১:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ছেলে শোয়াইব বশির মীরের মৃত্যুতে কাঁদছেন তার মা জামিলা বশির ( ছবিতে মধ্যখানে)

আড়াই বছর ধরে বাবার বেতন বন্ধ। এই হতাশায় আত্মহত্যা করেছেন কাশ্মীরের এক যুবক।

কাতারভিত্তিক আলজাজিরার খবরে বলা হয়েছে, নিহত যুবকের নাম শোয়াইব বশির মীর। তিনি ভারত শাসিত কাশ্মীরের কুলগ্রাম জেলার অভিল গ্রামের বাসিন্দা। নিহত শোয়াইব মনোবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ছিলেন।

খবরে বলা হয়, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শোয়াইব বশির মীর অভিল গ্রামের একটি আপেল বাগান থেকে তার বন্ধু মোহাম্মদ আব্বাসকে ডাকেন। মীর তার বন্ধু আব্বাসকে তার ধারণকৃত একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করতে বলেন।

ওই ভিডিওতে ২৪ বছর বয়সী মীর বলেন, আড়াই বছর ধরে যাদের বেতন বন্ধ, আমি সেসব শিক্ষকদের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করছি। বেতন বন্ধ সমস্যার সমাধানের জন্য আত্মহত্যা করছেন উল্লেখ করে মীর জানান, তার বাবার বেতনও স্থগিত।

ভিডিওতে শোয়াইব ফুঁফিয়ে ফুঁফিয়ে বলেন, আমরা কল্পনার বাইরে খারাপ অবস্থার মধ্যে আছি। বিষপানে আত্মহত্যার আগে কাশ্মীরের ওই যুবক পরিবারের সদস্যদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান।

আলজাজিরার খবরে বলা হয়, মীরের আত্মহত্যা কাশ্মীরের সরকারি চাকরিজীবীরা কত দুর্দশায় আছেন সেটা প্রকাশ্যে এনেছে। মীরের বাবা বশির আহমেদ মীর বছরের পর বছর ধরে বেতন পান না। কাশ্মীরের বিদ্রোহীদের সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তার বেতন আটকে রাখা হয়েছে।

ভারত সরকার ২০১৯ সালে মুসলিম অধ্যুষিত কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে। এই ঘটনার পর অঞ্চলটিতে ব্যাপক বিক্ষোভ সংগঠিত হয়। বিক্ষোভ বন্ধ করতে কেন্দ্র সরকার এক বছরের বেশি সময় ধরে অঞ্চলিতে জরুরি অবস্থা জারি রাখে। কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর অঞ্চলটির ৫ লাখের বেশি সরকারি চাকরিজীবীদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। গত ছয় মাসে কাশ্মীরের অন্তত ছয়জন সরকারি চাকরিজীবীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এছাড়া গত দুই বছর ধরে প্রায় দেড়শজন শিক্ষকের বেতন বন্ধ রাখা হয়েছে।

বাবার বেতন বন্ধ হওয়ায় কাশ্মীরি যুবকের আত্মহত্যা!

 অনলাইন ডেস্ক 
০১ জুন ২০২১, ০৭:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ছেলে শোয়াইব বশির মীরের মৃত্যুতে কাঁদছেন তার মা জামিলা বশির ( ছবিতে মধ্যখানে)
ছেলে শোয়াইব বশির মীরের মৃত্যুতে কাঁদছেন তার মা জামিলা বশির ( ছবিতে মধ্যখানে)। ছবি: আলজাজিরা

আড়াই বছর ধরে বাবার বেতন বন্ধ। এই হতাশায় আত্মহত্যা করেছেন কাশ্মীরের এক যুবক। 

কাতারভিত্তিক আলজাজিরার খবরে বলা হয়েছে, নিহত যুবকের নাম শোয়াইব বশির মীর। তিনি ভারত শাসিত কাশ্মীরের কুলগ্রাম জেলার অভিল গ্রামের বাসিন্দা। নিহত শোয়াইব মনোবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ছিলেন। 

খবরে বলা হয়, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শোয়াইব বশির মীর অভিল গ্রামের একটি আপেল বাগান থেকে তার বন্ধু মোহাম্মদ আব্বাসকে ডাকেন। মীর তার বন্ধু আব্বাসকে তার ধারণকৃত একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করতে বলেন।

ওই ভিডিওতে ২৪ বছর বয়সী মীর বলেন, আড়াই বছর ধরে যাদের বেতন বন্ধ, আমি সেসব শিক্ষকদের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করছি।  বেতন বন্ধ সমস্যার সমাধানের জন্য আত্মহত্যা করছেন উল্লেখ করে মীর জানান, তার বাবার বেতনও স্থগিত। 

ভিডিওতে শোয়াইব ফুঁফিয়ে ফুঁফিয়ে বলেন, আমরা কল্পনার বাইরে খারাপ অবস্থার মধ্যে আছি। বিষপানে আত্মহত্যার আগে কাশ্মীরের ওই যুবক পরিবারের সদস্যদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান।    

আলজাজিরার খবরে বলা হয়, মীরের আত্মহত্যা কাশ্মীরের সরকারি চাকরিজীবীরা কত দুর্দশায় আছেন সেটা প্রকাশ্যে এনেছে। মীরের বাবা বশির আহমেদ মীর বছরের পর বছর ধরে বেতন পান না।  কাশ্মীরের বিদ্রোহীদের সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তার বেতন আটকে রাখা হয়েছে। 

ভারত সরকার ২০১৯ সালে মুসলিম অধ্যুষিত কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে। এই ঘটনার পর অঞ্চলটিতে ব্যাপক বিক্ষোভ সংগঠিত হয়। বিক্ষোভ বন্ধ করতে কেন্দ্র সরকার এক বছরের বেশি সময় ধরে অঞ্চলিতে জরুরি অবস্থা জারি রাখে। কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর অঞ্চলটির ৫ লাখের বেশি সরকারি চাকরিজীবীদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। গত ছয় মাসে কাশ্মীরের অন্তত ছয়জন সরকারি চাকরিজীবীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এছাড়া গত দুই বছর ধরে প্রায় দেড়শজন শিক্ষকের বেতন বন্ধ রাখা হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট