১১ দিনের যুদ্ধে ইসরাইলকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে: মার্কিন বিশ্লেষক
jugantor
১১ দিনের যুদ্ধে ইসরাইলকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে: মার্কিন বিশ্লেষক

  অনলাইন ডেস্ক  

০৮ জুন ২০২১, ১২:৫০:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার ওপর আগ্রাসন চালানোর জন্য ইহুদিবাদী ইসরাইলকে অনেক মূল্য দিতে বাধ্য করেছে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস।

সম্প্রতি ইসরাইলের আগ্রাসনের জবাবে হামাসের রকেট হামলায় যুদ্ধকে এবার ইসরাইলের অভ্যন্তরে নিয়ে গেছেন ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ যোদ্ধারা।

আমেরিকাভিত্তিক কনসালটেন্সি ফার্ম ‘জিওপলিটিক্যাল রিস্ক’-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জর্জিও ক্যাফিয়ারো ইরানের স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল প্রেস টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন।

পারস্য উপসাগরীয় দেশ সম্পর্কিত এ বিশ্লেষক বলেন, সর্বশেষ গাজা-ইসরাইল যুদ্ধে হামাসের রকেট পুরো ইসরাইলকে বিপদের মুখে ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

ফলে ইসরাইল নিশ্চল হয়ে পড়ে। অর্থনৈতিকভাবে এ পরিস্থিতি ইসরাইলের জন্য মোটেই টেকসই ছিল না। আয়রন ডোম ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও হামাস ইসরাইলকে তার আগ্রাসনের জন্য বড় মূল্য দিতে বাধ্য করেছে।

ইসরাইল গত মাসে ফিলিস্তিনে যে রক্তপাত ঘটিয়েছে তার কারণে সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান ও মরক্কোর মতো অন্য আরব সরকারগুলো তেলআবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বভাবিক করবে না।

তিনি বলেন, গত মাসে ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাতের পর বহু আরব দেশ ও মুসলিম বিশ্ব থেকে যে প্রতিক্রিয়া এসেছে, তা সব আরব সরকারকে এ কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে, ফিলিস্তিনের অমীমাংসিত ইস্যু এখনও বহু আরবের হৃদয়ে গেঁথে আছে। তাদের মন থেকে ফিলিস্তিন ইস্যুকে হালকা করা কিংবা মুছে দেওয়া যাবে না।

১১ দিনের যুদ্ধে ইসরাইলকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে: মার্কিন বিশ্লেষক

 অনলাইন ডেস্ক 
০৮ জুন ২০২১, ১২:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার ওপর আগ্রাসন চালানোর জন্য ইহুদিবাদী ইসরাইলকে অনেক মূল্য দিতে বাধ্য করেছে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস।

সম্প্রতি ইসরাইলের আগ্রাসনের জবাবে হামাসের রকেট হামলায় যুদ্ধকে এবার ইসরাইলের অভ্যন্তরে নিয়ে গেছেন ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ যোদ্ধারা।

আমেরিকাভিত্তিক কনসালটেন্সি ফার্ম ‘জিওপলিটিক্যাল রিস্ক’-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জর্জিও ক্যাফিয়ারো ইরানের স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল প্রেস টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন।

পারস্য উপসাগরীয় দেশ সম্পর্কিত এ বিশ্লেষক বলেন, সর্বশেষ গাজা-ইসরাইল যুদ্ধে হামাসের রকেট পুরো ইসরাইলকে বিপদের মুখে ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

ফলে ইসরাইল নিশ্চল হয়ে পড়ে। অর্থনৈতিকভাবে এ পরিস্থিতি ইসরাইলের জন্য মোটেই টেকসই ছিল না। আয়রন ডোম ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও হামাস ইসরাইলকে তার আগ্রাসনের জন্য বড় মূল্য দিতে বাধ্য করেছে।

ইসরাইল গত মাসে ফিলিস্তিনে যে রক্তপাত ঘটিয়েছে তার কারণে সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান ও মরক্কোর মতো অন্য আরব সরকারগুলো তেলআবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বভাবিক করবে না।

তিনি বলেন, গত মাসে ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাতের পর বহু আরব দেশ ও মুসলিম বিশ্ব থেকে যে প্রতিক্রিয়া এসেছে, তা সব আরব সরকারকে এ কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে, ফিলিস্তিনের অমীমাংসিত ইস্যু এখনও বহু আরবের হৃদয়ে গেঁথে আছে। তাদের মন থেকে ফিলিস্তিন ইস্যুকে হালকা করা কিংবা মুছে দেওয়া যাবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ফিলিস্তিনিদের ঘরে ফেরার বিক্ষোভ