আফ্রিকায় আর যুদ্ধ করবে না ফ্রান্স
jugantor
আফ্রিকায় আর যুদ্ধ করবে না ফ্রান্স

  অনলাইন ডেস্ক  

১১ জুন ২০২১, ২২:০৩:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

আফ্রিকার এই অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা ফ্রান্সের

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ঘোষণা দিয়েছেন, তার দেশের সেনাবাহিনী আর পশ্চিম আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থি উগ্রবাদীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে না।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ম্যাক্রোঁ এই ঘোষণা দেন। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে তিনি এই অঞ্চল থেকে সৈন্য কমানোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন।

কট্টরপন্থী ইসলামপন্থিদের কারণে আফ্রিকার সাহেল অঞ্চল বহুদিন ধরেই অস্থিতিশীল। সাহেল অংশের মধ্যে রয়েছে সেনেগাল, মালি, বুরকিনা ফাসো, নাইজার, চাদ, মধ্য ও দক্ষিণ সুদান, ইরিত্রিয়া এবং ইথিওপিয়া।

আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে বর্তমানে ফ্রান্সের ৫১শ সেনা রয়েছে। ফ্রান্সের এসব সেনারা সাহারা মরুভূমি বেষ্টিত বারকিনো ফাসো, চাদ মৌরতানিয়া এবং নাইজারে রয়েছে। অপারেশনে ফ্রান্সকে পাঁচটি দেশ সহায়তা করছে। এই দেশগুলিকে সম্মিলিতভাবে ‘জি ফাইভ সাহেল’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

সেনা প্রত্যাহার প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে ম্যাক্রোঁ বলেন, ফ্রান্সের সন্ত্রাসবিরোধী ইউনিট পশ্চিম আফ্রিকায় অভিযান শেষ করবে। সেখানে সৈন্য প্রত্যাহার করে বৃহত্তর আন্তর্জাতিক মিশনে যুক্ত করা হবে। আফ্রিকার এই অঞ্চল হতে সুসংগঠিতভাবে সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে। এ বিষয়ে বিস্তারিত চলতি মাসের শেষে চূড়ান্ত করা হবে।

ম্যাক্রোঁ বলেন, আমরা আমাদের আফ্রিকান এবং ইউরোপীয়ান অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনায় বসবো। ইসলামি জঙ্গিদের সঙ্গে যারা আপস করে ফ্রান্স তাদের সঙ্গে কাজ করবে না।

বিগত কয়েক বছর ধরে পশ্চিম আফ্রিকায় নিরাপত্তা অভিযানে ফ্রান্স পশ্চিমা বিশ্বের সমর্থন চেয়েছে, কিন্তু পায়নি। আফ্রিকার এই অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহারে নিজ দেশে থেকেও ম্যাক্রোঁর ওপর চাপ রয়েছে।

আফ্রিকায় আর যুদ্ধ করবে না ফ্রান্স

 অনলাইন ডেস্ক 
১১ জুন ২০২১, ১০:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আফ্রিকার এই অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা ফ্রান্সের
আফ্রিকা থেকে সৈন্য প্রত্যাহারে নিজ দেশে থেকেও ম্যাক্রোঁর ওপর চাপ রয়েছে। ফাইল ফটো

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ঘোষণা দিয়েছেন, তার দেশের সেনাবাহিনী আর পশ্চিম আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থি উগ্রবাদীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে না। 

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ম্যাক্রোঁ এই ঘোষণা দেন। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে তিনি এই অঞ্চল থেকে সৈন্য কমানোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন।  

কট্টরপন্থী ইসলামপন্থিদের কারণে আফ্রিকার সাহেল অঞ্চল বহুদিন ধরেই অস্থিতিশীল।  সাহেল অংশের মধ্যে রয়েছে  সেনেগাল, মালি,  বুরকিনা ফাসো, নাইজার,  চাদ, মধ্য ও দক্ষিণ সুদান, ইরিত্রিয়া এবং ইথিওপিয়া। 

আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে বর্তমানে ফ্রান্সের ৫১শ সেনা রয়েছে। ফ্রান্সের এসব সেনারা সাহারা মরুভূমি বেষ্টিত বারকিনো ফাসো, চাদ মৌরতানিয়া এবং নাইজারে রয়েছে। অপারেশনে  ফ্রান্সকে পাঁচটি দেশ সহায়তা করছে। এই দেশগুলিকে সম্মিলিতভাবে ‘জি ফাইভ সাহেল’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

সেনা প্রত্যাহার প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে ম্যাক্রোঁ বলেন, ফ্রান্সের সন্ত্রাসবিরোধী ইউনিট পশ্চিম আফ্রিকায় অভিযান শেষ করবে। সেখানে সৈন্য প্রত্যাহার করে বৃহত্তর আন্তর্জাতিক মিশনে যুক্ত করা হবে। আফ্রিকার এই অঞ্চল হতে সুসংগঠিতভাবে সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে। এ বিষয়ে বিস্তারিত চলতি মাসের শেষে চূড়ান্ত করা হবে। 

ম্যাক্রোঁ বলেন, আমরা আমাদের আফ্রিকান এবং ইউরোপীয়ান অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনায় বসবো। ইসলামি জঙ্গিদের সঙ্গে যারা আপস করে ফ্রান্স তাদের সঙ্গে কাজ করবে না। 

বিগত কয়েক বছর ধরে পশ্চিম আফ্রিকায় নিরাপত্তা অভিযানে ফ্রান্স পশ্চিমা বিশ্বের সমর্থন চেয়েছে, কিন্তু পায়নি।  আফ্রিকার এই অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহারে নিজ দেশে থেকেও ম্যাক্রোঁর ওপর চাপ রয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন