বাড়ছে অতি ধনীদের সংখ্যা
jugantor
বাড়ছে অতি ধনীদের সংখ্যা

  যুগান্তর ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ২০:৫৬:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বাড়ছে অতি ধনীদের সংখ্যা

করোনার ফলে ধনী ও গরিবের মধ্যে সম্পদের বৈষম্য আরও বেড়েছে। করোনাকালেও বিশ্বে সুপার রিচ বা অতি ধনীদের সংখ্যা কমা দূরে থাক, বরং বেড়েছে। আরও ছয় হাজার মানুষ অতি ধনী হয়েছেন। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের অবস্থা খারাপ হয়েছে।

অতিমারির ফলে প্রায় প্রতিটি দেশে লকডাউন হয়েছে। অর্থনীতিতে তার প্রভাব পড়েছে। প্রচুর মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। বহু মানুষ গরিব হয়েছেন। অন্যদিকে বিশ্বে অতি ধনীর সংখ্যা বেড়েছে। করোনাকালে ছয় হাজার মানুষ সুপার রিচদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। নতুন ধনীদের সংখ্যা সব চেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। তারপর চীন এবং তিন নম্বরে জার্মানি।

বস্টন কনসাল্টিং গ্রুপ বৃহস্পতিবার একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, করোনাও কিছু মানুষের অতি ধনী হওয়াকে থামাতে পারেনি। ২০২০ সালে সারা বিশ্বে অতি-ধনীর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬০ হাজারে। যার মধ্যে জার্মানি থেকে আছেন দুই হাজার ৯০০ জন। জার্মান অতি ধনীরা বিশ্বের বিনিয়োগযোগ্য সম্পদের এক দশমিক চার ট্রিলিয়ান ডলার নিয়ন্ত্রণ করেন। ২০২০ সালে তাদের আর্থিক বৃদ্ধির পরিমাণ ছিল ছয় শতাংশ।

করোনাকালে এই ধনীদের সম্পদের পরিমাণ রেকর্ড ছুঁয়েছে। বিশ্ব জুড়ে অতি ধনীদের সম্পদের পরিমাণ ২৫০ ট্রিলিয়ান ডলার ছুঁয়েছে, যা ২০১৯ সালের তুলনায় আট শতাংশ বেশি।

করোনার ফলে ধনী ও গরিবের বৈষম্য আরও বেড়েছে। বিশ্বের ৬০ হাজার অতি-ধনী মানুষ মোট বিনিয়োগের ১৫ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করছেন। একই সময়ে বিশ্বে গরিব মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার(আইএলও) প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার ফলে বেকারের সংখ্যা বহুগুণ বেড়ছে। ২০১৯ সালের অবস্থায় ফিরতে বহু বছর সময় লেগে যাবে। ২০ বছরের মধ্যে প্রথমবার শিশুশ্রমিকের সংখ্যা বেড়েছে বলেও ওই প্রতিবেদনে জানা গেছে।

বাড়ছে অতি ধনীদের সংখ্যা

 যুগান্তর ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ০৮:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাড়ছে অতি ধনীদের সংখ্যা
ছবি : প্রতীকী

করোনার ফলে ধনী ও গরিবের মধ্যে সম্পদের বৈষম্য আরও বেড়েছে। করোনাকালেও বিশ্বে সুপার রিচ বা অতি ধনীদের সংখ্যা কমা দূরে থাক, বরং বেড়েছে। আরও ছয় হাজার মানুষ অতি ধনী হয়েছেন। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের অবস্থা খারাপ হয়েছে।

অতিমারির ফলে প্রায় প্রতিটি দেশে লকডাউন হয়েছে। অর্থনীতিতে তার প্রভাব পড়েছে। প্রচুর মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। বহু মানুষ গরিব হয়েছেন। অন্যদিকে বিশ্বে অতি ধনীর সংখ্যা বেড়েছে। করোনাকালে ছয় হাজার মানুষ সুপার রিচদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। নতুন ধনীদের সংখ্যা সব চেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। তারপর চীন এবং তিন নম্বরে জার্মানি।

বস্টন কনসাল্টিং গ্রুপ বৃহস্পতিবার একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, করোনাও কিছু মানুষের অতি ধনী হওয়াকে থামাতে পারেনি। ২০২০ সালে সারা বিশ্বে অতি-ধনীর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬০ হাজারে। যার মধ্যে জার্মানি থেকে আছেন দুই হাজার ৯০০ জন। জার্মান অতি ধনীরা বিশ্বের বিনিয়োগযোগ্য সম্পদের এক দশমিক চার ট্রিলিয়ান ডলার নিয়ন্ত্রণ করেন। ২০২০ সালে তাদের আর্থিক বৃদ্ধির পরিমাণ ছিল ছয় শতাংশ।

করোনাকালে এই ধনীদের সম্পদের পরিমাণ রেকর্ড ছুঁয়েছে। বিশ্ব জুড়ে অতি ধনীদের সম্পদের পরিমাণ ২৫০ ট্রিলিয়ান ডলার ছুঁয়েছে, যা ২০১৯ সালের তুলনায় আট শতাংশ বেশি।

করোনার ফলে ধনী ও গরিবের বৈষম্য আরও বেড়েছে। বিশ্বের ৬০ হাজার অতি-ধনী মানুষ মোট বিনিয়োগের ১৫ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করছেন। একই সময়ে বিশ্বে গরিব মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার(আইএলও) প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার ফলে বেকারের সংখ্যা বহুগুণ বেড়ছে। ২০১৯ সালের অবস্থায় ফিরতে বহু বছর সময় লেগে যাবে। ২০ বছরের মধ্যে প্রথমবার শিশুশ্রমিকের সংখ্যা বেড়েছে বলেও ওই প্রতিবেদনে জানা গেছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন