মাটি খুঁড়ে হীরা খুঁজছে হাজারও মানুষ (ভিডিও)
jugantor
মাটি খুঁড়ে হীরা খুঁজছে হাজারও মানুষ (ভিডিও)

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৬ জুন ২০২১, ০১:২১:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাতারাতি ধনী হতে কে না চায়? গুপ্তধন কিংবা হীরার মতো মূল্যবান পাথর পেয়ে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন এমন নজির কম নয়। এবার হীরা বেচে ভাগ্য পরিবর্তনে মাটি খুঁড়ে চলেছেন এক হাজারেও বেশি মানুষ।

দক্ষিণ আফ্রিকার কয়াজুলু-নাতাল প্রদেশের কয়াহাথি গ্রামের একটি মাঠে শনিবার নাম না জানা কিছু পাথরের খোঁজ পায় এক দল মানুষ।

পাথরগুলো কোয়ার্টজ ক্রিস্টালের বলে ধারণা করে আরও পাথরের খোঁজে সেখানে খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করে তারা।

এমনকি পাথর পেয়ে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রামটিতে ভিড় জমিয়েছেন অনেকে।

এই আবিষ্কার তাদের জীবন বদলে দিয়েছে বলে মুঠো ভর্তি ছোট পাথর নিয়ে জানান মেনডো সাবেলো।

দুই সন্তানের জনক ২৭ বছর বয়সী এই যুবক বলেন, আমাদের জীবন বদলে যাবে। কারণ আমাদের কারো ভালো কোনো কাজ নেই। জীবন চালিয়ে নিতে আমি অনেক যেনতেন কাজও করেছি। তবে যখন এই পাথরগুলো নিয়ে ঘরে ফিরেছি সবাই ভীষণ খুশি হয়েছে।

সাবেলোর সঙ্গে একমত হয়ে খুমবুজো এমবেলে বলেন, আমি জীবনে হীরা দেখিনি। এই প্রথমবার সেখানে এসে হীরা স্পর্শ করতে পারলাম।

এ ব্যাপারে দেশটির খনি বিভাগ সোমবার জানিয়েছে, পাথরের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য ঘটনাস্থলে ভূতাত্ত্বিক ও খনি বিশেষজ্ঞের একটি দল পাঠানো হয়েছে।

মাটি খুঁড়ে হীরা খুঁজছে হাজারও মানুষ (ভিডিও)

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৬ জুন ২০২১, ০১:২১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাতারাতি ধনী হতে কে না চায়? গুপ্তধন কিংবা হীরার মতো মূল্যবান পাথর পেয়ে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন এমন নজির কম নয়। এবার হীরা বেচে ভাগ্য পরিবর্তনে মাটি খুঁড়ে চলেছেন এক হাজারেও বেশি মানুষ।

দক্ষিণ আফ্রিকার কয়াজুলু-নাতাল প্রদেশের কয়াহাথি গ্রামের একটি মাঠে শনিবার নাম না জানা কিছু পাথরের খোঁজ পায় এক দল মানুষ। 

পাথরগুলো কোয়ার্টজ ক্রিস্টালের বলে ধারণা করে আরও পাথরের খোঁজে সেখানে খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করে তারা।

এমনকি পাথর পেয়ে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় দেশের বিভিন্ন স্থান  থেকে গ্রামটিতে ভিড় জমিয়েছেন অনেকে।

এই আবিষ্কার তাদের জীবন বদলে দিয়েছে বলে মুঠো ভর্তি ছোট পাথর নিয়ে জানান মেনডো সাবেলো।
 
দুই  সন্তানের জনক ২৭ বছর বয়সী এই যুবক বলেন, আমাদের জীবন বদলে যাবে। কারণ আমাদের কারো ভালো কোনো কাজ নেই। জীবন চালিয়ে নিতে আমি অনেক যেনতেন কাজও করেছি। তবে যখন এই পাথরগুলো নিয়ে ঘরে ফিরেছি সবাই ভীষণ খুশি হয়েছে।

সাবেলোর সঙ্গে একমত হয়ে খুমবুজো এমবেলে বলেন, আমি জীবনে হীরা দেখিনি। এই প্রথমবার সেখানে এসে হীরা স্পর্শ করতে পারলাম।

এ ব্যাপারে দেশটির খনি বিভাগ  সোমবার জানিয়েছে, পাথরের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য ঘটনাস্থলে ভূতাত্ত্বিক ও খনি বিশেষজ্ঞের একটি দল পাঠানো হয়েছে। 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন