উপহারে মিটল না বৈরিতা, পুতিনের খোঁচায় ক্ষুব্ধ বাইডেন
jugantor
উপহারে মিটল না বৈরিতা, পুতিনের খোঁচায় ক্ষুব্ধ বাইডেন

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ জুন ২০২১, ২০:২৭:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

উপহারে মিটল না বৈরিতা, পুতিনের খোঁচায় ক্ষুব্ধ বাইডেন

বৈরিতা ভুলে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে নিজের প্রিয় ‘অ্যাভিয়েটর সানগ্লাস’ উপহার দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এখানেই শেষ নয় পুতিনকে ক্রিস্টালের ষাঁড়ের মূর্তিও উপহার দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

অবশ্য উপহারের আড়ালে অস্বস্তি এড়ানো যায়নি। কারণ, দ্বিপাক্ষিক বৈঠক সেরে বেরোনোর পরেই গত জানুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে তাণ্ডব চালানো দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পুতিন।

রাশিয়ার বিরোধী রাজনৈতিক আন্দোলন নিয়ে কথা বলতে চান না বলেও জানিয়েছেন পুতিন।কারণ হিসেবে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বর্ণবৈষম্য-বিরোধী আন্দোলন ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ নিয়েও তিনি মুখ খুলতে চাইছেন না।

এ ব্যাপারে পুতিন বলেন, কয়েক মাসে যুক্তরাষ্ট্রে নানা গুরুত্বপূর্ণ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে। আমি যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের সঙ্গে সহমর্মী। আমরা কখনো চাইব না আমাদের দেশেও এই ধরনের (বর্ণবিদ্বেষী) কোনো ঘটনা ঘটুক।

তিনি বলেন, ক্যাপিটলে প্রায় চারশ’ মানুষ রাজনৈতিক দাবিদাওয়া নিয়ে জড়ো হয়েছিলেন। তাদের অনৈতিক ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে।এমনকি তাদের জঙ্গিও বলা হচ্ছে!

অনেকেই মনে করছেন কৌশলে রাশিয়ার বিরোধীনেতা অ্যালেক্সেই নাভালনিকে আক্রমণ ও তার কারাবাসের প্রসঙ্গ এড়িয়ে যাওয়ার জন্যই ক্যাপিটল প্রসঙ্গ তুলেছেন পুতিন।

‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের সঙ্গে ক্যাপিটল তাণ্ডবের তুলনা করায় অবশ্য ক্ষুব্ধ বাইডেন। বাইডেনের ভাষায়, এই দুই বিষয়কে এক করে দেওয়া তো হাস্যকর।

উপহারে মিটল না বৈরিতা, পুতিনের খোঁচায় ক্ষুব্ধ বাইডেন

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ জুন ২০২১, ০৮:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
উপহারে মিটল না বৈরিতা, পুতিনের খোঁচায় ক্ষুব্ধ বাইডেন
ছবি : সংগৃহীত

বৈরিতা ভুলে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে নিজের প্রিয় ‘অ্যাভিয়েটর সানগ্লাস’ উপহার দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এখানেই শেষ নয় পুতিনকে ক্রিস্টালের ষাঁড়ের মূর্তিও উপহার দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

অবশ্য উপহারের আড়ালে অস্বস্তি এড়ানো যায়নি। কারণ, দ্বিপাক্ষিক বৈঠক সেরে বেরোনোর পরেই গত জানুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে তাণ্ডব চালানো দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পুতিন। 

রাশিয়ার বিরোধী রাজনৈতিক আন্দোলন নিয়ে কথা বলতে চান না বলেও জানিয়েছেন পুতিন।কারণ হিসেবে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বর্ণবৈষম্য-বিরোধী আন্দোলন ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ নিয়েও তিনি মুখ খুলতে চাইছেন না। 

এ ব্যাপারে পুতিন বলেন, কয়েক মাসে যুক্তরাষ্ট্রে নানা গুরুত্বপূর্ণ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে। আমি যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের সঙ্গে সহমর্মী। আমরা কখনো চাইব না আমাদের দেশেও এই ধরনের (বর্ণবিদ্বেষী) কোনো ঘটনা ঘটুক। 

তিনি বলেন, ক্যাপিটলে প্রায় চারশ’ মানুষ রাজনৈতিক দাবিদাওয়া নিয়ে জড়ো হয়েছিলেন। তাদের অনৈতিক ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে।এমনকি তাদের জঙ্গিও বলা হচ্ছে!

অনেকেই মনে করছেন কৌশলে রাশিয়ার বিরোধীনেতা অ্যালেক্সেই নাভালনিকে আক্রমণ ও তার কারাবাসের প্রসঙ্গ এড়িয়ে যাওয়ার জন্যই ক্যাপিটল প্রসঙ্গ তুলেছেন পুতিন।

‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের সঙ্গে ক্যাপিটল তাণ্ডবের তুলনা করায় অবশ্য ক্ষুব্ধ বাইডেন। বাইডেনের ভাষায়, এই দুই বিষয়কে এক করে দেওয়া তো হাস্যকর।
 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর