যে কারণে ২৪ বছর পর পরিবারের দেখা পেলেন ফিলিস্তিনি নারী
jugantor
যে কারণে ২৪ বছর পর পরিবারের দেখা পেলেন ফিলিস্তিনি নারী

  অনলাইন ডেস্ক  

১৮ জুন ২০২১, ২০:৪৯:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ ২৪ বছর পর প্রথমবারের মতো পরিবারের দেখা পেয়েছেন সিনা মোহাম্মেদ

ফিলিস্তিনি এক নারী দীর্ঘ ২৪ বছর পর প্রথমবারের মতো পরিবারের দেখাপেয়েছেন। ইসরাইল আইডি কার্ড না দেওয়ায় এত বছর তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি।

তুরস্কভিত্তিক আনাদোলু এজেন্সির খবরে বলা হয়েছে, জর্ডান নদীর পূর্ব তীরের ফিলিস্তিনি নারী ‘সিনা মোহাম্মেদ’ পশ্চিম তীরের এক যুবককে বিবাহ করেন। বিয়ের পর এই নারী ইসরাইল দখলকৃত পশ্চিম তীরে বসবাস শুরু করেন। কিন্তু ইসরাইল এই নারীকে দীর্ঘ ২৪ বছর তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দেয়নি।

খবরে বলা হয়, ইসরাইলি প্রশাসন দখলকৃত ফিলিস্তিনি বসবাসকারী এবং বিদেশে বসবাসকারীর মধ্যে বিবাহের স্বীকৃতি দেয় না। এছাড়া তারা দখলকৃত অঞ্চলে বসবাসকারী ফিলিস্তিনিদের বিদেশে পরিবারের সঙ্গে দেখার করারও সুযোগ দেয় না, বিবাহিত স্বামী-স্ত্রীকে আইডি কার্ড দেয় না।

শুধু সিনা মোহাম্মেদ নয়, অন্তত ৫০ হাজার ফিলিস্তিনি একই কারণে সুদীর্ঘ বছর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে পারেন না। যদিও কোনো ফিলিস্তিনি তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান, সেটার স্থায়ী হয় এক ঘন্টারও কম। জর্ডান নদীর দুই পারেই ইসরাইলি সেনাদের নজরদারির মধ্যে থেকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে হয়।

সিনা মোহাম্মেদ বলেন, আমি আমার পরিবারকে দীর্ঘ ২৪ বছর দেখতে পায়নি। আমার অপরাধ হলো পশ্চিম তীরে বিবাহ করা। আমার কোনো আইডি কার্ড নেই। এসময় তিনি বলেন, আইডি কার্ড না থাকা মানে হলো- আপনি কোনো মানুষই নন, আপনি কিছুই নন।

আইডি কার্ড পাওয়ার জন্য তিনি ফিলিস্তিনি এবং জর্ডান কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, সাক্ষাতের পূর্বে আমি আমার কোনো পরিবারের সদস্যকে হারাতে চাই না। বিদায় জানানোর পূর্বে পিতামাতাকে হারানো আমার জন্য খুবই কষ্টের।

যে কারণে ২৪ বছর পর পরিবারের দেখা পেলেন ফিলিস্তিনি নারী

 অনলাইন ডেস্ক 
১৮ জুন ২০২১, ০৮:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দীর্ঘ ২৪ বছর পর প্রথমবারের মতো পরিবারের দেখা পেয়েছেন সিনা মোহাম্মেদ
দীর্ঘ ২৪ বছর পর প্রথমবারের মতো পরিবারের দেখা পেয়েছেন সিনা মোহাম্মেদ। ছবি: আনাদোলু এজেন্সি

ফিলিস্তিনি এক নারী দীর্ঘ ২৪ বছর পর প্রথমবারের মতো পরিবারের দেখা পেয়েছেন। ইসরাইল আইডি কার্ড না দেওয়ায় এত বছর তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি।

তুরস্কভিত্তিক আনাদোলু এজেন্সির খবরে বলা হয়েছে, জর্ডান নদীর পূর্ব তীরের ফিলিস্তিনি নারী ‘সিনা মোহাম্মেদ’ পশ্চিম তীরের এক যুবককে বিবাহ করেন। বিয়ের পর এই নারী ইসরাইল দখলকৃত পশ্চিম তীরে বসবাস শুরু করেন। কিন্তু ইসরাইল এই নারীকে দীর্ঘ ২৪ বছর তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দেয়নি। 

খবরে বলা হয়, ইসরাইলি প্রশাসন দখলকৃত ফিলিস্তিনি বসবাসকারী এবং বিদেশে বসবাসকারীর মধ্যে বিবাহের স্বীকৃতি দেয় না। এছাড়া তারা দখলকৃত অঞ্চলে বসবাসকারী ফিলিস্তিনিদের বিদেশে পরিবারের সঙ্গে দেখার করারও সুযোগ দেয় না, বিবাহিত স্বামী-স্ত্রীকে আইডি কার্ড দেয় না।

শুধু সিনা মোহাম্মেদ নয়, অন্তত ৫০ হাজার ফিলিস্তিনি একই কারণে সুদীর্ঘ বছর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে পারেন না। যদিও কোনো ফিলিস্তিনি তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান, সেটার স্থায়ী হয় এক ঘন্টারও কম। জর্ডান নদীর দুই পারেই ইসরাইলি সেনাদের নজরদারির মধ্যে থেকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে হয়। 

সিনা মোহাম্মেদ বলেন, আমি আমার পরিবারকে দীর্ঘ ২৪ বছর দেখতে পায়নি। আমার অপরাধ হলো পশ্চিম তীরে বিবাহ করা। আমার কোনো আইডি কার্ড নেই। এসময় তিনি বলেন, আইডি কার্ড না থাকা মানে হলো- আপনি কোনো মানুষই নন, আপনি কিছুই নন। 

আইডি কার্ড পাওয়ার জন্য তিনি ফিলিস্তিনি এবং জর্ডান কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, সাক্ষাতের পূর্বে আমি আমার কোনো পরিবারের সদস্যকে হারাতে চাই না। বিদায় জানানোর পূর্বে পিতামাতাকে হারানো আমার জন্য খুবই কষ্টের।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন