১২৩ দিন যেভাবে ‘একসঙ্গে’ কাটালেন প্রেমিক যুগল (ভিডিও)
jugantor
১২৩ দিন যেভাবে ‘একসঙ্গে’ কাটালেন প্রেমিক যুগল (ভিডিও)

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ জুন ২০২১, ০১:৪১:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

মৃত্যু ছাড়া আমাদের কেউ আলাদা করতে পারবে না- সিমেনায় হয়তো প্রেমিক যুগলের মুখে এমন সংলাপ অনেক শুনেছেন। বাস্তবেও হয়তো কেউ কেউ এ কথা বলতে পারেন। হয়তো সঙ্গীর অসুখ-বিসুখ, সুখে-দুঃখে একসঙ্গেই থাকেন অনেকে। কিন্তু প্রত্যেকের ব্যক্তিগত জীবন আছে। কিছু কাজ আছে যা মানুষকে একাই করতে হয়।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া তো মানুষকে একাই দিতে হবে। তাই এক ‘একসঙ্গে’ থাকার কথাটা নিছকই রূপক অর্থে বলা।

কারণ আক্ষরিক অর্থে ‘একসঙ্গে’ মৃত্যু পর্যন্ত থাকা অসম্ভব। কিন্তু এবার সেই সম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন ইউক্রেনের এক প্রেমিক যুগল। ‘একসঙ্গে’ টানা ১২৩ দিন প্রতিক্ষণ, প্রতি মুহূর্ত কাটিয়ে দিলেন তারা।

এমনকি বাথরুমে যাওয়ার সময়ও কাছ ছাড়া হননি সঙ্গীর। ভাবছেন কীভাবে? ওই প্রেমিক যুগল নিজেদের হাত একটি হ্যান্ডকাফ দিয়ে আটকে নিয়েছিলেন!

এনডিটিভি শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, খারকিভ শহরের ৩৩ বছর বয়সী অনলাইন গাড়ি বিক্রেতা আলেকজান্ডার সাশা কুডলি ও তার ২৯ বছর বয়সী প্রেমিকা ভিক্টোরিয়া ভিকা পুস্তোভিটোভা এই বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসে নিজেদের ঝগড়া মেটাতে ‘পরীক্ষামূলকভাবে’ একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নেন। এজন্য ওইদিন পরস্পরের হাত একটি হ্যান্ডকাফ দিয়ে জুড়ে নেন তার।

এরপর কেটে গেছে ১২৩ দিন। এই ১২৩ দিন ওই প্রেমিক যুগল একসঙ্গে বাথরুমে গেছেন, কাঁচাবাজারে গেছেন, পেশায় বিউটিশিয়ান ভিক্টোরিয়া তার মেকআপ সেশন চালিয়ে গেছেন- তাদের দুজনের হাত হ্যান্ডকাফে আটকানোই ছিল। হ্যান্ডকাফ আটকানো থাকতে থাকতে তাদের হাতে ক্ষতের সৃষ্টিও হয়েছে।

১২৩ দিন এভাবে যাওয়ার পর ১৭ জুলাই তারা হ্যান্ডকাফ খুলে নিজেদের বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নেন। রাজধানী কিয়েভে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে দানবীয় এক চেন কাটার আলাদা করে ওই প্রেমিক যুগলকে।

এইভাবে প্রতি মুহূর্ত ‘একসঙ্গে’ কাটিয়ে বাকি জীবনও আর দশটা যুগলের মতো একসঙ্গে কাটাতে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

১২৩ দিন যেভাবে ‘একসঙ্গে’ কাটালেন প্রেমিক যুগল (ভিডিও)

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ জুন ২০২১, ০১:৪১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মৃত্যু ছাড়া আমাদের কেউ আলাদা করতে পারবে না- সিমেনায় হয়তো প্রেমিক যুগলের মুখে এমন সংলাপ অনেক শুনেছেন। বাস্তবেও হয়তো কেউ কেউ এ কথা বলতে পারেন। হয়তো সঙ্গীর অসুখ-বিসুখ, সুখে-দুঃখে একসঙ্গেই থাকেন অনেকে। কিন্তু প্রত্যেকের ব্যক্তিগত জীবন আছে। কিছু কাজ আছে যা মানুষকে একাই করতে হয়।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া তো মানুষকে একাই দিতে হবে। তাই এক ‘একসঙ্গে’ থাকার কথাটা নিছকই রূপক অর্থে বলা।

কারণ আক্ষরিক অর্থে ‘একসঙ্গে’ মৃত্যু পর্যন্ত থাকা অসম্ভব।  কিন্তু এবার সেই সম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন ইউক্রেনের এক প্রেমিক যুগল। ‘একসঙ্গে’ টানা ১২৩ দিন প্রতিক্ষণ, প্রতি মুহূর্ত  কাটিয়ে দিলেন তারা।

এমনকি বাথরুমে যাওয়ার সময়ও কাছ ছাড়া হননি সঙ্গীর। ভাবছেন কীভাবে? ওই প্রেমিক যুগল নিজেদের হাত একটি হ্যান্ডকাফ দিয়ে আটকে নিয়েছিলেন!

এনডিটিভি শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, খারকিভ শহরের ৩৩ বছর বয়সী অনলাইন গাড়ি বিক্রেতা আলেকজান্ডার সাশা কুডলি ও তার ২৯ বছর বয়সী প্রেমিকা ভিক্টোরিয়া ভিকা পুস্তোভিটোভা এই বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসে নিজেদের ঝগড়া মেটাতে ‘পরীক্ষামূলকভাবে’ একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নেন। এজন্য ওইদিন পরস্পরের হাত একটি হ্যান্ডকাফ দিয়ে জুড়ে নেন তার।

এরপর কেটে গেছে ১২৩ দিন। এই ১২৩ দিন ওই প্রেমিক যুগল একসঙ্গে বাথরুমে গেছেন, কাঁচাবাজারে গেছেন, পেশায় বিউটিশিয়ান ভিক্টোরিয়া তার মেকআপ সেশন চালিয়ে গেছেন- তাদের দুজনের হাত হ্যান্ডকাফে আটকানোই ছিল। হ্যান্ডকাফ আটকানো থাকতে থাকতে তাদের হাতে ক্ষতের সৃষ্টিও হয়েছে।

১২৩ দিন এভাবে যাওয়ার পর ১৭ জুলাই তারা হ্যান্ডকাফ খুলে নিজেদের বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নেন। রাজধানী কিয়েভে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে দানবীয় এক চেন কাটার আলাদা করে ওই প্রেমিক যুগলকে।

এইভাবে প্রতি মুহূর্ত ‘একসঙ্গে’ কাটিয়ে বাকি জীবনও আর দশটা যুগলের মতো একসঙ্গে কাটাতে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন