সৌদি আরবের সঙ্গে নতুনভাবে সম্পর্ক গড়বে ইরান
jugantor
সৌদি আরবের সঙ্গে নতুনভাবে সম্পর্ক গড়বে ইরান

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ জুন ২০২১, ২২:৫১:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

সোমবার তেহরানের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে ইব্রাহিম রাইসি। ছবি: এএফপি

সৌদি আরবের সঙ্গে নতুনভাবে সম্পর্ক গড়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি।

সোমবার তেহরানের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক ও যোগাযোগ রক্ষা করা হবে। ইরানের জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করার জন্য সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ নেবে তার সরকার। প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করাকেও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।’

এর প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে সৌদি আরবের সঙ্গে পূর্ণমাত্রায় কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা ও পরস্পরের দেশে দূতাবাস পুনরায় চালুর উদ্যোগ নেওয়া হবে। খবর এএফপির।

ইসরাইলে প্রসঙ্গে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ইরানকে ভয় না পেয়ে তেল আবিবের উচিত ফিলিস্তিনি জনগণ ও প্রতিরোধ সংগ্রামীদের ভয় করা। ফিলিস্তিনের ব্যাপারে ইরানের নীতি হচ্ছে, সেখানকার মূল অধিবাসীদের মধ্যে গণভোটের মাধ্যমে ফিলিস্তিনের ভাগ্য নির্ধারণ করতে হবে।

রাইসি তার সরকারের পররাষ্ট্রনীতি ব্যাখ্যা করে ইয়েমেন যুদ্ধ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সৌদি আরবকে যথা শিগগিরই সম্ভব ইয়েমেনে আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে। সেদেশের জনগণকে বিদেশি হস্তক্ষেপ ছাড়াই তাদের ভাগ্য নির্ধারণ করতে দিতে হবে।

এ সময় পরমাণু চুক্তি লঙ্ঘন করার জন্য আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলোর তীব্র সমালোচনা করেন।

তিনি বলেন, ‘আমেরিকাকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসতে হবে। ইউরোপীয়দেরকে ওয়াশিংটনের চাপের কাছে নতিস্বীকার না করে ইরানের প্রতি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে হবে।’

সৌদি আরবের সঙ্গে নতুনভাবে সম্পর্ক গড়বে ইরান

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ জুন ২০২১, ১০:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সোমবার তেহরানের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে ইব্রাহিম রাইসি। ছবি: এএফপি
সোমবার তেহরানের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে ইব্রাহিম রাইসি। ছবি: এএফপি

সৌদি আরবের সঙ্গে নতুনভাবে সম্পর্ক গড়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি । 

সোমবার তেহরানের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক ও যোগাযোগ রক্ষা করা হবে। ইরানের জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করার জন্য সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ নেবে তার সরকার। প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করাকেও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।’

এর প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে সৌদি আরবের সঙ্গে পূর্ণমাত্রায় কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা ও পরস্পরের দেশে দূতাবাস পুনরায় চালুর উদ্যোগ নেওয়া হবে। খবর এএফপির।

ইসরাইলে প্রসঙ্গে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ইরানকে ভয় না পেয়ে তেল আবিবের উচিত ফিলিস্তিনি জনগণ ও প্রতিরোধ সংগ্রামীদের ভয় করা। ফিলিস্তিনের ব্যাপারে ইরানের নীতি হচ্ছে, সেখানকার মূল অধিবাসীদের মধ্যে গণভোটের মাধ্যমে ফিলিস্তিনের ভাগ্য নির্ধারণ করতে হবে। 

রাইসি তার সরকারের পররাষ্ট্রনীতি ব্যাখ্যা করে ইয়েমেন যুদ্ধ প্রসঙ্গে তিনি  বলেন, সৌদি আরবকে যথা শিগগিরই সম্ভব ইয়েমেনে আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে। সেদেশের জনগণকে বিদেশি হস্তক্ষেপ ছাড়াই তাদের ভাগ্য নির্ধারণ করতে দিতে হবে।

এ সময় পরমাণু চুক্তি লঙ্ঘন করার জন্য আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলোর তীব্র সমালোচনা করেন। 

তিনি বলেন, ‘আমেরিকাকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসতে হবে। ইউরোপীয়দেরকে ওয়াশিংটনের চাপের কাছে নতিস্বীকার না করে ইরানের প্রতি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে হবে।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন