ইরানের ওপর থেকে ১০৪০টি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি যুক্তরাষ্ট্র
jugantor
ইরানের ওপর থেকে ১০৪০টি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি যুক্তরাষ্ট্র

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ জুন ২০২১, ২০:১৩:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরানের ওপর সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আরোপ করা হাজারেরও বেশি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার ইরানের বিদায়ী প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির প্রধান কর্মকর্তা মাহমুদ ভায়েজি এ তথ্য জানান।

সাম্প্রতিক সময়ে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ২০১৫ সালে পাঁচ বিশ্ব শক্তির সঙ্গে স্বাক্ষরিত তেহরানের পারমাণবিক চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করতে আলোচনা হয়। সেইআলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ওয়াশিংটন ইরানের ওপর থেকে প্রভাবশালী বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাসহ তেল এবং জাহাজ চলাচলে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়েছে। ইরানের প্রেসিডেন্টের প্রধান কর্মকর্তা মাহমুদ ভায়েজি বলেন, সব ধরনের তেল এবং জাহাজ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য একটি চুক্তি হয়েছে।

ইরানের সরকারি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, চুক্তি অনুযায়ী চুক্তি যুগের ১০৪০টি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেবে। এছাড়া ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির অভ্যন্তরীণ পরিষদের কিছু ব্যক্তি ও সদস্যের বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাও প্রত্যাহার হবে।

২০১৫ সালে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিনিময়ে পারমাণবিক কর্মসূচির সীমিত করতে রাজি হয় ইরান। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ক্ষেপাটে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে এই চুক্তি থেকে ওয়াশিংটনকে প্রত্যাহার করে নেয়। এরপর ট্রাম্প তেহরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ শুরু করে। তবে গত জানুয়ারিতে জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের পেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর ইরানের ২০১১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তিতে ফেরার ইঙ্গিত দেন। এরপর গত এপ্রিলে পারমাণবিক চুক্তি বাঁচাতে ইরানে একটি প্রতিনিধি দল চুক্তিতে সাক্ষরকারী চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া এবং যুক্তরাজ্য আলোচনায় অংশ নেয়। এই বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা পরোক্ষভাবে অংশ নেন।

ইরানের ওপর থেকে ১০৪০টি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি যুক্তরাষ্ট্র

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ জুন ২০২১, ০৮:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরানের ওপর সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আরোপ করা হাজারেরও বেশি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার ইরানের বিদায়ী প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির প্রধান কর্মকর্তা মাহমুদ ভায়েজি এ তথ্য জানান।

সাম্প্রতিক সময়ে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ২০১৫ সালে পাঁচ বিশ্ব শক্তির সঙ্গে স্বাক্ষরিত তেহরানের পারমাণবিক চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করতে আলোচনা হয়। সেই আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ওয়াশিংটন ইরানের ওপর থেকে প্রভাবশালী বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাসহ তেল এবং জাহাজ চলাচলে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে রাজি হয়েছে। ইরানের প্রেসিডেন্টের প্রধান কর্মকর্তা মাহমুদ ভায়েজি বলেন, সব ধরনের তেল এবং জাহাজ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য একটি চুক্তি হয়েছে।

ইরানের সরকারি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, চুক্তি অনুযায়ী চুক্তি যুগের ১০৪০টি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেবে। এছাড়া ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির অভ্যন্তরীণ পরিষদের কিছু ব্যক্তি ও সদস্যের বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাও প্রত্যাহার হবে।

২০১৫ সালে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিনিময়ে পারমাণবিক কর্মসূচির সীমিত করতে রাজি হয় ইরান। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ক্ষেপাটে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে এই চুক্তি থেকে ওয়াশিংটনকে প্রত্যাহার করে নেয়। এরপর ট্রাম্প তেহরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ শুরু করে। তবে গত জানুয়ারিতে জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের পেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর ইরানের ২০১১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তিতে ফেরার ইঙ্গিত দেন। এরপর গত এপ্রিলে পারমাণবিক চুক্তি বাঁচাতে ইরানে একটি প্রতিনিধি দল চুক্তিতে সাক্ষরকারী চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া এবং যুক্তরাজ্য আলোচনায় অংশ নেয়। এই বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা পরোক্ষভাবে অংশ নেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন