কুমির ‘ওসামা বিন লাদেন’ নিল ৮০ জনের প্রাণ (ভিডিও)
jugantor
কুমির ‘ওসামা বিন লাদেন’ নিল ৮০ জনের প্রাণ (ভিডিও)

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ জুন ২০২১, ২২:৪৪:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমির ‘ওসামা বিন লাদেন’ নিল ৮০ জনের প্রাণ

ঠিকই দেখেছেন। কুমিরের নাম ‘ওসামা বিন লাদেন’। আর এই ওসামার পেটে গেছে শিশুসহ ৮০ জনেরও বেশি মানুষ। উন্ডাগার ভিক্টোরিয়ার লেকের মানুষখেকো এই কুমির সম্প্রতি ধরা পড়েছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

আনুমানিক ৭৫ বছর বয়সী ওই কুমিরটি ১৯৯১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ভিক্টোরিয়া লেকের পার্শ্ববর্তী লুগানগা গ্রামে রীতিমতো তান্ডব চালায় বলে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। খুনে স্বভাবের কারণে স্থানীয়রা কুমিরটির এমন নাম দেন বলে জানা গেছে।

১৬ ফুট লম্বা এই কুমিরটির প্রধান লক্ষ্য ছিল ছোট শিশুরা। মূলত লেকে পানি আনতে যাওয়ার সময় কুমিরটি আক্রমণ করত বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।দিন দিন কুমিরটি এতোটাই সাহসী হয়ে উঠেছিল যে মাছ ধরা নৌকায় আক্রমণ চালিয়ে মানুষ টেনে যেত। এমনকি মাঝে মাঝে জেলেদের কাঠের নৌকায় লাফ দিয়ে ওঠে মানুষ টেনে নেওয়ার নজিরও আছে। গ্রামবাসীদের বর্ণনা অনুযায়ী, কুমিরটির আক্রমণের পর হতভাগ্য মানুষটির ছেঁড়া কাপড় পানিতে ভেসে আসতে দেখেছেন তারা। ভংয়কর ওই কুমিরের আক্রমণের শিকার খুব কম মানুষই প্রাণে বাঁচতে পেরেছেন।

ওই কুমিরের আক্রমণের পর বেঁচে যাওয়া পল নামের এক ব্যক্তি দ্য সিডনি মর্নিং হেরল্ডকে এক সাক্ষাৎকারে তার অভিজ্ঞতা জানান। পল বলেন, তিনি আর তার ভাই লেকে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। তাদের মাছ ধরার নৌকায় উঠে পড়ে কুমিরটি। পিটারের পা ধরে পানিতে টেনে নিয়ে যায়।

ধরা পড়ার পর উগান্ডা ক্রস লিমিটেড নামক সংস্থা লাদেনকে কিনে নিয়েছে। কুমিরের প্রজননের কাজে তারা লাদেনকে ব্যবহার করছে বলে প্রতিবেদনে জানা গেছে।

কুমির ‘ওসামা বিন লাদেন’ নিল ৮০ জনের প্রাণ (ভিডিও)

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ জুন ২০২১, ১০:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কুমির ‘ওসামা বিন লাদেন’ নিল ৮০ জনের প্রাণ
ছবি : সংগৃহীত

ঠিকই দেখেছেন। কুমিরের নাম ‘ওসামা বিন লাদেন’। আর এই ওসামার পেটে গেছে শিশুসহ ৮০ জনেরও বেশি মানুষ। উন্ডাগার ভিক্টোরিয়ার লেকের মানুষখেকো এই কুমির সম্প্রতি ধরা পড়েছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

আনুমানিক ৭৫ বছর বয়সী ওই কুমিরটি ১৯৯১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ভিক্টোরিয়া লেকের পার্শ্ববর্তী লুগানগা গ্রামে রীতিমতো তান্ডব চালায় বলে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। খুনে স্বভাবের কারণে স্থানীয়রা কুমিরটির এমন নাম দেন বলে জানা গেছে।

১৬ ফুট লম্বা এই কুমিরটির প্রধান লক্ষ্য ছিল ছোট শিশুরা। মূলত লেকে পানি আনতে যাওয়ার সময় কুমিরটি আক্রমণ করত বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।দিন দিন কুমিরটি এতোটাই সাহসী হয়ে উঠেছিল যে মাছ ধরা নৌকায় আক্রমণ চালিয়ে মানুষ টেনে যেত। এমনকি মাঝে মাঝে জেলেদের কাঠের নৌকায় লাফ দিয়ে ওঠে মানুষ টেনে নেওয়ার নজিরও আছে।  গ্রামবাসীদের বর্ণনা অনুযায়ী, কুমিরটির আক্রমণের পর হতভাগ্য মানুষটির ছেঁড়া কাপড় পানিতে ভেসে আসতে দেখেছেন তারা। ভংয়কর ওই কুমিরের আক্রমণের শিকার খুব কম মানুষই প্রাণে বাঁচতে পেরেছেন।

ওই কুমিরের আক্রমণের পর বেঁচে যাওয়া পল নামের এক ব্যক্তি দ্য সিডনি মর্নিং হেরল্ডকে এক সাক্ষাৎকারে তার অভিজ্ঞতা জানান। পল বলেন, তিনি আর তার ভাই লেকে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। তাদের মাছ ধরার নৌকায় উঠে পড়ে কুমিরটি।  পিটারের পা ধরে পানিতে টেনে নিয়ে যায়। 

ধরা পড়ার পর উগান্ডা ক্রস লিমিটেড নামক সংস্থা লাদেনকে কিনে নিয়েছে। কুমিরের প্রজননের কাজে তারা লাদেনকে ব্যবহার করছে বলে প্রতিবেদনে জানা গেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন