নতুন এলাকা উদ্ধারে নজর আসাদের

দক্ষিণ দামেস্কে সিরীয় বাহিনী ও আইএস জঙ্গিদের তীব্র লড়াই

প্রকাশ : ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ১২:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

  অনলাইন ডেস্ক

দক্ষিণ দামেস্কে ফিলিস্তিনি শরণার্থী শিবির ইয়ারমুখের কাছে সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর ট্যাংক- এএফপি

সিরিয়ার সরকারি বাহিনী রাজধানী দামেস্কের নিকটবর্তী পূর্ব ঘৌটা বিদ্রোহীদের কাছ থেকে উদ্ধারের পর এবার কথিত ইসলামিক স্টেট (আইএস) নিয়ন্ত্রিত আরেকটি এলাকায় অভিযান শুরু করেছে।

যুক্তরাজ্যের বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, শনিবার সেখানে সিরীয় বাহিনী ও তাদের মিত্র বাহিনীগুলোর সঙ্গে আইএস জঙ্গিদের তীব্র লড়াই হয়েছে।

সিরিয়া যুদ্ধ পর্যবেক্ষণ করে এমন একটি গোষ্ঠী তীব্র লড়াই চলার খবর দিয়েছে। এতে ব্যাপক গোলাবিনিময় ও হালকা অস্ত্রের ব্যবহারও হয়েছে বলে তারা জানিয়েছে।

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন খবরে বলেছে, লড়াইয়ে সেনাবাহিনী বড় ধরনের অগ্রগতি অর্জন করেছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, ঘনবসতিপূর্ণ ওই এলাকার কয়েকটি ভবনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সিরীয় বাহিনী।

আইএসনিয়ন্ত্রিত ওই এলাকাটির মধ্যে আল কাদাম জেলার কিছু অংশ, আল হাজার আল আসওয়াদ ও ফিলিস্তিনি শরণার্থী শিবির ইয়ারমৌক রয়েছে।

টেলিভিশনের ফুটেজে দেখা গেছে, আইএসনিয়ন্ত্রিত এলাকাটির প্রান্তে খোলা একটি এলাকা দিয়ে সরকারি বাহিনীর ট্যাংক এগিয়ে যাচ্ছে; ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা ধরে উর্দি পরা সৈন্যরা এগিয়ে যাচ্ছে, তাদের মাথার ওপর ঘন কালো ধোঁয়ার মেঘ।

চারপাশে উড়ন্ত গোলার ও গোলা বিস্ফোরিত হওয়ার শব্দ, হালকা অস্ত্রের একটানা গুলিবর্ষণের শব্দ এবং ভারী বিস্ফোরণের শব্দ প্রতিধ্বনিত হচ্ছে।

চলতি মাসে দামেস্কের কাছে বিদ্রোহীদের বৃহত্তম ঘাঁটি পূর্ব ঘৌটায় তাদের পরাজিত করেছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্টে বাশার আল আসাদ।

এর পর দামেস্কের কাছে পকেটের মতো কয়েকটি ছোট ছোট এলাকা পুনরুদ্ধারের দিকে নজর দিয়েছেন তিনি।

২০১৫ সালে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের পর আসাদের বিজয় সূচিত হতে থাকে। এতে সামরিকভাবে তাকে ক্ষমতা থেকে হটানোর বিদ্রোহীদের আশা হতাশায় পরিণত হয়েছে।

তবে এর পরও বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিশাল এলাকার নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছে।

শনিবার মস্কোতে তুরস্ক ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদ্বয়ের সঙ্গে এক বৈঠকের পর রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, সিরিয়াকে সন্ত্রাসী মুক্ত করতে দেশটির সরকারকে এই তিনটি দেশের সাহায্য করা দরকার।