বাগরাম থেকে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারকে কীভাবে দেখছে তালেবান
jugantor
বাগরাম থেকে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারকে কীভাবে দেখছে তালেবান

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৩ জুলাই ২০২১, ১১:৪০:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

আফগানিস্তানের বাগরাম বিমান ঘাঁটি ত্যাগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা।

প্রায় দুই দশক পর আফগানিস্তানের বাগরাম বিমান ঘাঁটি ত্যাগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা। বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের এ কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়েছে তালেবান।

শুক্রবার তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘আমরা এই ঘটনাকে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনা করছি।’

কাবুলের উত্তরে বিস্তীর্ণ এই ঘাঁটি থেকে যখন বিদেশি সেনা প্রত্যাহার করা হচ্ছে তখন- আফগানিস্তানের জিহাদী গোষ্ঠী তালেবান দেশটির বহু এলাকায় তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে।

বাগরাম থেকে মার্কিন সেনা পুরোপুরি প্রত্যাহারকে স্বাগত জানিয়ে এ তালেবান মুখপাত্র এএফপিকে বলেছেন এর মধ্যে দিয়ে আফগান জনগণের নিজেদের ভবিষ্যত নির্ধারণের পথ প্রশস্ত হবে।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল থেকে ৫০ কিলোমিটার উত্তরে বাগরাম বিমান ঘাঁটি অবস্থিত।

গত শতকে স্নায়ুযুদ্ধের সময় এই বিমানঘাঁটি তৈরি করা হয়। এটি আফগানিস্তানের সবচেয়ে বড় বিমানঘাঁটি।

যুক্তরাষ্ট্র প্রায় দুই দশক ধরে চলা আফগান যুদ্ধের ইতি টানছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত এপ্রিলে আমেরিকার দীর্ঘতম আফগান যুদ্ধের সমাপ্তির ঘোষণায় জানান, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার ১১ সেপ্টেম্বরের আগে শেষ হবে।

এপ্রিলে বাইডেন যখন এই ঘোষণা দেন, তখন আফগানিস্তানে প্রায় ২ হাজার ৫০০ মার্কিন সেনা অবস্থান করছিল।

বাগরাম আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিমানঘাঁটি ছিল। বিমানঘাঁটিকে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযানের কমান্ড স্থাপিত হয়। কারাগার হিসেবেও এটি ব্যবহৃত হয়েছে। আফগান যুদ্ধে আফগানিস্তানে নিয়োজিত মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী এত দিন এই বিমানঘাঁটি ব্যবহার করে আসছিল।

বাগরাম থেকে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারকে কীভাবে দেখছে তালেবান

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৩ জুলাই ২০২১, ১১:৪০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আফগানিস্তানের বাগরাম বিমান ঘাঁটি ত্যাগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা।
আফগানিস্তানের বাগরাম বিমান ঘাঁটি ত্যাগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা।

প্রায় দুই দশক পর আফগানিস্তানের বাগরাম বিমান ঘাঁটি ত্যাগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা। বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের এ কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়েছে তালেবান।

শুক্রবার তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘আমরা এই ঘটনাকে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনা করছি।’

কাবুলের উত্তরে বিস্তীর্ণ এই ঘাঁটি থেকে যখন বিদেশি সেনা প্রত্যাহার করা হচ্ছে তখন- আফগানিস্তানের জিহাদী গোষ্ঠী তালেবান দেশটির বহু এলাকায় তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে।

বাগরাম থেকে মার্কিন সেনা পুরোপুরি প্রত্যাহারকে স্বাগত জানিয়ে এ তালেবান মুখপাত্র এএফপিকে বলেছেন এর মধ্যে দিয়ে আফগান জনগণের নিজেদের ভবিষ্যত নির্ধারণের পথ প্রশস্ত হবে।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল থেকে ৫০ কিলোমিটার উত্তরে বাগরাম বিমান ঘাঁটি অবস্থিত।

গত শতকে স্নায়ুযুদ্ধের সময় এই বিমানঘাঁটি তৈরি করা হয়। এটি আফগানিস্তানের সবচেয়ে বড় বিমানঘাঁটি।

যুক্তরাষ্ট্র প্রায় দুই দশক ধরে চলা আফগান যুদ্ধের ইতি টানছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত এপ্রিলে আমেরিকার দীর্ঘতম আফগান যুদ্ধের সমাপ্তির ঘোষণায় জানান, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার ১১ সেপ্টেম্বরের আগে শেষ হবে। 

এপ্রিলে বাইডেন যখন এই ঘোষণা দেন, তখন আফগানিস্তানে প্রায় ২ হাজার ৫০০ মার্কিন সেনা অবস্থান করছিল।

বাগরাম আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিমানঘাঁটি ছিল। বিমানঘাঁটিকে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযানের কমান্ড স্থাপিত হয়। কারাগার হিসেবেও এটি ব্যবহৃত হয়েছে। আফগান যুদ্ধে আফগানিস্তানে নিয়োজিত মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী এত দিন এই বিমানঘাঁটি ব্যবহার করে আসছিল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-তালেবান শান্তি আলোচনা