ইরানে পানির জন্য হাহাকার, নিহত আরও ১
jugantor
ইরানে পানির জন্য হাহাকার, নিহত আরও ১

  অনলাইন ডেস্ক  

১৮ জুলাই ২০২১, ২২:৪৯:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলে পানিসংকটের কারণে চলা বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আরও ব্যক্তি নিহত হয়েছে।

ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলে পানিসংকটের কারণে চলা বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আরও ব্যক্তি নিহত হয়েছে।

কাতারভিত্তিক আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, নিহত দ্বিতীয় ব্যক্তির নাম গাসেম খোজেরি। তার বয়স ১৮ বছর।

ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের তার পরিবারের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে। ওই সাক্ষাৎকারে নিহতের চাচা বলেন, খোজেরি কাজ শেষে রাতে বাড়ি ফিরছিল। কিন্তু ফেরার পথে গুলিবিদ্ধ হয়ে সে মারা যায়।

নিহতের চাচা আরও জানান, খোজেরি সম্পূর্ণ রক্তাক্ত শরীর নিয়ে বাড়ি পর্যন্ত আসতে সক্ষম হয়। কিন্তু পরে তাকে বাঁচানো যায়নি। তবে তাকে কে বা কারা গুলি করেছে সেটা সে জানিয়ে যেতে পারেনি।

প্রথম ব্যক্তি নিহতের বিষয়ে খুজিস্তান প্রদেশের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর ওমিদ সাব্রিপুর সংবাদ সংস্থা ইরনাকে বলেন, বিক্ষোভকারীদের র্যা লির সময় দাঙ্গাবাজরা উত্তেজনা সৃষ্টি করতে আকাশে গুলি ছোড়ে। কিন্তু দুর্ভার্গবশত ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক পথচারী (৩০) গুলিবিদ্ধ হয়ে মার যায়।

তবে ইরানের বাইরে থেকে পরিচালিত একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বিক্ষোভ চলাকালে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালান। এতেই ওই ব্যক্তি নিহত হন।
তীব্র খরার কারণে পানি ও বিদ্যুৎসংকটে ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলের সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

পানি সংকটের কারণে ইরানের চাষাবাদে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো। ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সমস্যা দেখা দিয়েছে। আর তীব্র গরমে অতিরিক্ত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র ব্যবহারের ফলে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদাও। এসবের পেছনে সরকারি অব্যবস্থাপনা এবং দুর্নীতিকে দায়ী করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, অনাবৃষ্টির কারণে এই পানিসংকট দেখা দিয়েছে।

ইরানে পানির জন্য হাহাকার, নিহত আরও ১

 অনলাইন ডেস্ক 
১৮ জুলাই ২০২১, ১০:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলে পানিসংকটের কারণে চলা বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আরও ব্যক্তি নিহত হয়েছে।
ইরানের পানিসংকটের কারণে চলা বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আরও ব্যক্তি নিহত হয়েছে। ছবি: আল জাজিরা

ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলে পানিসংকটের কারণে চলা বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আরও ব্যক্তি নিহত হয়েছে।

কাতারভিত্তিক আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, নিহত দ্বিতীয় ব্যক্তির নাম গাসেম খোজেরি। তার বয়স ১৮ বছর।

ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের তার পরিবারের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে। ওই সাক্ষাৎকারে নিহতের চাচা বলেন, খোজেরি কাজ শেষে রাতে বাড়ি ফিরছিল। কিন্তু ফেরার পথে গুলিবিদ্ধ হয়ে সে মারা যায়।

নিহতের চাচা আরও জানান, খোজেরি সম্পূর্ণ রক্তাক্ত শরীর নিয়ে বাড়ি পর্যন্ত আসতে সক্ষম হয়। কিন্তু পরে তাকে বাঁচানো যায়নি। তবে তাকে কে বা কারা গুলি করেছে সেটা সে জানিয়ে যেতে পারেনি।

প্রথম ব্যক্তি নিহতের বিষয়ে খুজিস্তান প্রদেশের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর ওমিদ সাব্রিপুর সংবাদ সংস্থা ইরনাকে বলেন, বিক্ষোভকারীদের র্যা লির সময় দাঙ্গাবাজরা উত্তেজনা সৃষ্টি করতে আকাশে গুলি ছোড়ে। কিন্তু দুর্ভার্গবশত ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক পথচারী (৩০) গুলিবিদ্ধ হয়ে মার যায়।

তবে ইরানের বাইরে থেকে পরিচালিত একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, বিক্ষোভ চলাকালে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালান। এতেই ওই ব্যক্তি নিহত হন।
তীব্র খরার কারণে পানি ও বিদ্যুৎসংকটে ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলের সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

পানি সংকটের কারণে ইরানের চাষাবাদে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো। ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সমস্যা দেখা দিয়েছে। আর তীব্র গরমে অতিরিক্ত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র ব্যবহারের ফলে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদাও। এসবের পেছনে সরকারি অব্যবস্থাপনা এবং দুর্নীতিকে দায়ী করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, অনাবৃষ্টির কারণে এই পানিসংকট দেখা দিয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন