পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন নিয়ে যা বলল তালেবান
jugantor
পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন নিয়ে যা বলল তালেবান

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ জুলাই ২০২১, ০১:৪৪:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

পাকিস্তানের লস্কর-ই-তৈয়বা (এলইটি) আর জাইশ-ই-মুহাম্মদের (জেএমবি) সঙ্গে তালেবানের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই বলে সংগঠনটির আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিষয়ক মুখপাত্র সুহাইল শাহীন জানিয়েছেন।

একই সঙ্গে আফগানিস্তানের মাটি ‘অন্য কোনো দেশের’ বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে না বলে পাকিস্তানের এই দুই জঙ্গি সংগঠনের কাছে ‘বার্তা’ পাঠিয়েছে তালেবান।

গত সপ্তাহেই আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বলেছিলেন, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের ১০ হাজারেও বেশি জঙ্গি তালেবানের সাথে যোগ দিয়ে আফগানিস্তানে যুদ্ধ করছে বলে গোয়েন্দারা ধারণা করছেন।

এদিকে চলমান সংঘাতে আফগানিস্তানের বড় অবকাঠামোগত প্রকল্পগুলোর সুরক্ষা প্রসঙ্গে শাহীন বলেন, ‘বাঁধের মতো জাতীয় প্রকল্প’ রক্ষার নীতি মেনে চলছে তালেবান।

প্রসঙ্গত, মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তান জুড়ে শুরু হয়েছে যুদ্ধের ডামাডোল। দেশটির ৮০ শতাংশ এলাকা নিজেদের দখলে বলে দাবি করছে তালেবান। রাজধানী কাবুল যেকোনো সময় তালেবানের দখলে চলে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে আফগানিস্তানের ১১৬টি জেলা তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়ার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে কাবুল সরকার।

পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন নিয়ে যা বলল তালেবান

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ জুলাই ২০২১, ০১:৪৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাকিস্তানের লস্কর-ই-তৈয়বা (এলইটি) আর জাইশ-ই-মুহাম্মদের (জেএমবি) সঙ্গে তালেবানের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই বলে সংগঠনটির আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিষয়ক মুখপাত্র সুহাইল শাহীন জানিয়েছেন।
    
একই সঙ্গে আফগানিস্তানের মাটি ‘অন্য কোনো দেশের’ বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে না বলে পাকিস্তানের এই দুই জঙ্গি সংগঠনের কাছে ‘বার্তা’ পাঠিয়েছে তালেবান।

গত সপ্তাহেই আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বলেছিলেন, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের ১০ হাজারেও বেশি জঙ্গি তালেবানের সাথে যোগ দিয়ে আফগানিস্তানে যুদ্ধ করছে বলে গোয়েন্দারা ধারণা করছেন।

এদিকে চলমান সংঘাতে আফগানিস্তানের বড় অবকাঠামোগত প্রকল্পগুলোর সুরক্ষা প্রসঙ্গে শাহীন বলেন, ‘বাঁধের মতো জাতীয় প্রকল্প’ রক্ষার নীতি মেনে চলছে তালেবান।

প্রসঙ্গত, মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তান জুড়ে শুরু হয়েছে যুদ্ধের ডামাডোল। দেশটির ৮০ শতাংশ এলাকা নিজেদের দখলে বলে দাবি করছে তালেবান। রাজধানী কাবুল যেকোনো সময় তালেবানের দখলে চলে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে আফগানিস্তানের ১১৬টি জেলা তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়ার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে কাবুল সরকার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন