শুভেন্দুর কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ বিজেপি শিবির 
jugantor
শুভেন্দুর কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ বিজেপি শিবির 

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ জুলাই ২০২১, ২০:৪৮:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি: এএনআই

শুক্রবার হঠাৎ নীরবে নয়াদিল্লি পাড়ি দিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলনেতা ও নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। এমনকি সবাইকে অন্ধকারে রেখে সংসদ ভবনে গেলেন। চুপিচাপি বৈঠক করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে। কিন্তু তার এ চুপিচাপি বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপির একাংশ। বিশেষ করে আদি বিজেপি শিবির তার কর্মকাণ্ডে ব্যাপক ক্ষুব্ধ। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমস।

তবে সেখানে বৈঠক শেষে বেরিয়ে শুভেন্দু অধিকারী সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌নির্বাচনের পর সন্ত্রাস নিয়ে কথা হয়েছে।’‌ এখন প্রশ্ন উঠছে, যদি তাই হবে তাহলে তিনি চুপিচুপি গেলেন কেন?‌ আর এই প্রশ্ন তুলছেন বিজেপি নেতারা।
হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, শুভেন্দুর সঙ্গে অমিত শাহ’র ওই সাক্ষাতের বিষয়টি খোদ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও জানতেন না। আর শুভেন্দু সংসদে গেলেও নিজের দলের সাংসদদের সঙ্গে দেখা করেননি।
পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির নেতাদের অভিযোগ, বাংলা নিয়ে আলোচনাই যদি করবেন তাহলে একা গেলেন কেন? সবকিছু সেরে তারপর ছবি পোস্ট করলেন অমিত শাহের সঙ্গে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শুভেন্দুকে ডেকে পাঠাননি। তাহলে তিনি গেলেন কেন?‌ নিজে গ্রেফতার হতে পারেন বলেই কী পরামর্শ করতে গিয়েছিলেন?‌

এক আদি বিজেপি নেতার বরাত দিয়ে হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ‌শুভেন্দু যেভাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিসের ফোনের কললিস্ট এবং কল রেকর্ডিং তাঁর কাছে থাকার দাবি করেছেন। তার জেরে কেন্দ্রের নাম জড়িয়ে পেগাসাস অভিযোগ প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এতে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। তাই শুভেন্দুকে ধমক দেওয়া হয়েছে।

তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাকে তো এক আদি বিজেপি নেতা ফোনে বললেন ওকে কড়কে দেওয়া হয়েছে। কে ফোন করেছিলেন বলব না। শুভেন্দুর কাছে পেগাসাস আছে। আমার ফোন ট্যাপ করে জেনে নেবে নিজেই।

শুভেন্দুর কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ বিজেপি শিবির 

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ জুলাই ২০২১, ০৮:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি: এএনআই
শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি: এএনআই

শুক্রবার হঠাৎ নীরবে নয়াদিল্লি পাড়ি দিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলনেতা ও নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। এমনকি সবাইকে অন্ধকারে রেখে সংসদ ভবনে গেলেন। চুপিচাপি বৈঠক করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে। কিন্তু তার এ চুপিচাপি বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপির একাংশ। বিশেষ করে আদি বিজেপি শিবির তার কর্মকাণ্ডে ব্যাপক ক্ষুব্ধ। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমস।

তবে সেখানে বৈঠক শেষে বেরিয়ে শুভেন্দু অধিকারী সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌নির্বাচনের পর সন্ত্রাস নিয়ে কথা হয়েছে।’‌ এখন প্রশ্ন উঠছে, যদি তাই হবে তাহলে তিনি চুপিচুপি গেলেন কেন?‌ আর এই প্রশ্ন তুলছেন বিজেপি নেতারা।
হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, শুভেন্দুর সঙ্গে অমিত শাহ’র ওই সাক্ষাতের বিষয়টি খোদ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও জানতেন না। আর শুভেন্দু সংসদে গেলেও নিজের দলের সাংসদদের সঙ্গে দেখা করেননি। 
পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির নেতাদের অভিযোগ, বাংলা নিয়ে আলোচনাই যদি করবেন তাহলে একা গেলেন কেন? সবকিছু সেরে তারপর ছবি পোস্ট করলেন অমিত শাহের সঙ্গে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শুভেন্দুকে ডেকে পাঠাননি। তাহলে তিনি গেলেন কেন?‌ নিজে গ্রেফতার হতে পারেন বলেই কী পরামর্শ করতে গিয়েছিলেন?‌

এক আদি বিজেপি নেতার বরাত দিয়ে হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ‌শুভেন্দু যেভাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিসের ফোনের কললিস্ট এবং কল রেকর্ডিং তাঁর কাছে থাকার দাবি করেছেন। তার জেরে কেন্দ্রের নাম জড়িয়ে পেগাসাস অভিযোগ প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এতে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। তাই শুভেন্দুকে ধমক দেওয়া হয়েছে।

তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাকে তো এক আদি বিজেপি নেতা ফোনে বললেন ওকে কড়কে দেওয়া হয়েছে। কে ফোন করেছিলেন বলব না। শুভেন্দুর কাছে পেগাসাস আছে। আমার ফোন ট্যাপ করে জেনে নেবে নিজেই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : পশ্চিমবঙ্গ নির্বাচন ২০২১

আরও খবর