ইসরাইলি কাস্টডিতে ফিলিস্তিনিকে হত্যা, যা বলল হামাস
jugantor
ইসরাইলি কাস্টডিতে ফিলিস্তিনিকে হত্যা, যা বলল হামাস

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ জুলাই ২০২১, ২২:৫০:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠুনকো অভিযোগে বর্তমানে কমপক্ষে ৪ হাজার ৮৫০ জন ফিলিস্তিনিকে বন্দী রাখা হয়েছে।

ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী কাস্টডিতে ইলেকট্রিক শক এবং পিটিয়ে আবদু আল-খাতিব (৪৩) নামে এক ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। গত বুধবার ইসরাইলের আল মাসকোবিয়া আটক কেন্দ্রে তার মৃত্যু হয়।

ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস এই ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। সংগঠন বলছে, ইসরাইল ফিলিস্তিনিকে আটক করে সুপরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে হামাসের অন্যতম মুখপাত্র মোহাম্মদ হামাদা বলেন, ইসরাইলের হাতে আটককৃত আল খাতিব আগে থেকে কোনো রোগে ভুগছিল না। তাকে নির্মম নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। ইসরাইল দাবি করেছে জিজ্ঞাসাবাদের সময় ‘হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে’ তার মৃত্যু হয়েছে যা সর্বৈব মিথ্যা।

এর আগে গত রোববার লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোয় পূর্ব জেরুজালেমের সুফাট শরণার্থী ক্যাম্প থেকে চার বছরের শিশুর জনক আল খাতিবকে আটক করে ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী।

নিহতের স্বজনরা জানান, অন্য বন্দীদের সামনে তাকে ইলেক্ট্রিক শক দিয়ে এবং পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে ইহুদিবাদী ইসরাইলের পুলিশ কর্মকর্তারা।

প্যালেস্টিনিয়ান প্রিজনার্স সোসাইটি নামে একটি এনজিওর মুখপাত্র আমানি শারাহনেহ জানান, নিহতের দেহে ইলেক্ট্রিক শক এবং পিটিয়ে জখম করার স্পষ্ট চিহ্ন আছে।

ইসরাইলের বিভিন্ন কারাগারে এ ধরনের ঠুনকো অভিযোগে বর্তমানে কমপক্ষে ৪ হাজার ৮৫০ জন ফিলিস্তিনিকে বন্দী রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪১ জন নারী এবং ২২৫টি শিশুও রয়েছে।

ইসরাইলি কাস্টডিতে ফিলিস্তিনিকে হত্যা, যা বলল হামাস

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ জুলাই ২০২১, ১০:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঠুনকো অভিযোগে বর্তমানে কমপক্ষে ৪ হাজার ৮৫০ জন ফিলিস্তিনিকে বন্দী রাখা হয়েছে।
ঠুনকো অভিযোগে কমপক্ষে ৪ হাজার ৮৫০ জন ফিলিস্তিনিকে বন্দী রেখেছে ইসরাইল। ছবি: এএফপি

ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী কাস্টডিতে ইলেকট্রিক শক এবং পিটিয়ে আবদু আল-খাতিব (৪৩) নামে এক ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। গত বুধবার ইসরাইলের আল মাসকোবিয়া আটক কেন্দ্রে তার মৃত্যু হয়।  

ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস এই ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। সংগঠন বলছে, ইসরাইল ফিলিস্তিনিকে আটক করে সুপরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে হামাসের অন্যতম মুখপাত্র মোহাম্মদ হামাদা বলেন, ইসরাইলের হাতে আটককৃত আল খাতিব আগে থেকে কোনো রোগে ভুগছিল না। তাকে নির্মম নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। ইসরাইল দাবি করেছে জিজ্ঞাসাবাদের সময় ‘হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে’ তার মৃত্যু হয়েছে যা সর্বৈব মিথ্যা।   

এর আগে গত রোববার লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোয় পূর্ব জেরুজালেমের সুফাট শরণার্থী ক্যাম্প থেকে চার বছরের শিশুর জনক আল খাতিবকে আটক করে ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী। 

নিহতের স্বজনরা জানান, অন্য বন্দীদের সামনে তাকে ইলেক্ট্রিক শক দিয়ে এবং পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে ইহুদিবাদী ইসরাইলের পুলিশ কর্মকর্তারা।

প্যালেস্টিনিয়ান প্রিজনার্স সোসাইটি নামে একটি এনজিওর মুখপাত্র আমানি শারাহনেহ জানান, নিহতের দেহে ইলেক্ট্রিক শক এবং পিটিয়ে জখম করার স্পষ্ট চিহ্ন আছে।

ইসরাইলের বিভিন্ন কারাগারে এ ধরনের ঠুনকো অভিযোগে বর্তমানে কমপক্ষে ৪ হাজার ৮৫০ জন ফিলিস্তিনিকে বন্দী রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪১ জন নারী এবং ২২৫টি শিশুও রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন