ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত
jugantor
ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৪ জুলাই ২০২১, ১৭:১০:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরাইলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। ইসরাইলের অবৈধ বসতি স্থাপন প্রতিরোধ করতে গিয়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

আল জাজিরা জানিয়েছে, অবৈধ চেকপোস্ট স্থাপনের প্রতিবাদে শুক্রবার পশ্চিম তীরের বেইতা গ্রামে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি জড়ো হয়। অবৈধ বসতি সম্প্রসারণের প্রতিবাদে ওই এলাকায় নিয়মিত বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, সংঘর্ষে অন্তত ১৪৬ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৯ জন গুলিবিদ্ধ, ৩৪ জন রাবার বুলেটে আর ৮৭ জন টিয়ার গ্যাসে আক্রান্ত হয়েছে। অন্যদিকে ইসরাইলের দুই সেনা সদস্য সামান্য আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সামরিক বাহিনী।

ইসরাইলি সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নাবলুসের দক্ষিণে জিভাত এভিয়েতার চেকপোস্টের কাছে একটি দাঙ্গা কয়েক ঘন্টা স্থায়ী হয়েছে। শত শত ফিলিস্তিনি সেনা সদস্যদের লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করলে তা প্রতিহত করা হয় বলে দাবি ইসরাইলের।

১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের পর থেকে পশ্চিমতীর দখর করে রেখেছে ইসরাইল। ওই এলাকায় বর্তমানে ৪ লাখ ৭৫ হাজার ইহুদি অবৈধভাবে বসবাস করে আসছে।

পশ্চিম তীরে প্রায় দেড় লক্ষাধিক ফিলিস্তিনিকে শহর থেকে বিচ্ছিন্ন করার লক্ষ্যে ৭০০ মিটারের বেশি দীর্ঘ প্রাচীর নির্মাণ করেছে ইসরাইল। ২০০২ সালে এর নির্মাণ শুরু হয়। ইট-সিমেন্টের এই প্রাচীরই ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরাইলের জবরদখলের সবচেয়ে শক্তিশালী ও বড় প্রতীক।

প্রাচীরের ৮৫ ভাগই জাতিসংঘ স্বীকৃত সীমানা গ্রিনলাইন বরাবর না দিয়ে পশ্চিম তীরের ভেতরে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ফিলিস্তিনিদের চলাচল বিঘ্নিত করতে পশ্চিম তীরজুড়ে ১৪০টি চেকপয়েন্টসহ ৭০০টি ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে।

ইসরাইলি ওয়ার্ক পারমিটধারী প্রায় ৭০ হাজার ফিলিস্তিনিকে প্রতিদিন এসব চেকপয়েন্ট ও ব্যারিকেড পেরিয়ে কর্মস্থলে যেতে হয়।


ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৪ জুলাই ২০২১, ০৫:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত
ছবি: আনাদোলু এজেন্সি

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরাইলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ১৪০ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। ইসরাইলের অবৈধ বসতি স্থাপন প্রতিরোধ করতে গিয়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। 

আল জাজিরা জানিয়েছে, অবৈধ চেকপোস্ট স্থাপনের প্রতিবাদে শুক্রবার পশ্চিম তীরের বেইতা গ্রামে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি জড়ো হয়। অবৈধ বসতি সম্প্রসারণের প্রতিবাদে ওই এলাকায় নিয়মিত বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, সংঘর্ষে অন্তত ১৪৬ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৯ জন গুলিবিদ্ধ, ৩৪ জন রাবার বুলেটে আর ৮৭ জন টিয়ার গ্যাসে আক্রান্ত হয়েছে। অন্যদিকে ইসরাইলের দুই সেনা সদস্য সামান্য আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সামরিক বাহিনী।

ইসরাইলি সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নাবলুসের দক্ষিণে জিভাত এভিয়েতার চেকপোস্টের কাছে একটি দাঙ্গা কয়েক ঘন্টা স্থায়ী হয়েছে। শত শত ফিলিস্তিনি সেনা সদস্যদের লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করলে তা প্রতিহত করা হয় বলে দাবি ইসরাইলের।

১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের পর থেকে পশ্চিমতীর দখর করে রেখেছে ইসরাইল। ওই এলাকায় বর্তমানে ৪ লাখ ৭৫ হাজার ইহুদি অবৈধভাবে বসবাস করে আসছে।

পশ্চিম তীরে প্রায় দেড় লক্ষাধিক ফিলিস্তিনিকে শহর থেকে বিচ্ছিন্ন করার লক্ষ্যে ৭০০ মিটারের বেশি দীর্ঘ প্রাচীর নির্মাণ করেছে ইসরাইল। ২০০২ সালে এর নির্মাণ শুরু হয়। ইট-সিমেন্টের এই প্রাচীরই ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরাইলের জবরদখলের সবচেয়ে শক্তিশালী ও বড় প্রতীক। 

প্রাচীরের ৮৫ ভাগই জাতিসংঘ স্বীকৃত সীমানা গ্রিনলাইন বরাবর না দিয়ে পশ্চিম তীরের ভেতরে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ফিলিস্তিনিদের চলাচল বিঘ্নিত করতে পশ্চিম তীরজুড়ে ১৪০টি চেকপয়েন্টসহ ৭০০টি ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। 

ইসরাইলি ওয়ার্ক পারমিটধারী প্রায় ৭০ হাজার ফিলিস্তিনিকে প্রতিদিন এসব চেকপয়েন্ট ও ব্যারিকেড পেরিয়ে কর্মস্থলে যেতে হয়।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ফিলিস্তিনিদের ঘরে ফেরার বিক্ষোভ

আরও খবর