তালেবান ঠেকাতে আফগানিস্তানে নৈশকালীন কারফিউ জারি
jugantor
তালেবান ঠেকাতে আফগানিস্তানে নৈশকালীন কারফিউ জারি

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ জুলাই ২০২১, ১৩:০৪:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবানের অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগানিস্তানের ৩৪ প্রদেশের মধ্যে ৩১টিতেই নৈশকালীন কারফিউ জারি করেছে দেশটির সরকার।

শনিবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে— সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে এবং তালেবানের হামলা প্রতিহত করতে দেশের ৩১ প্রদেশে নৈশকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে। খবর আরব নিউজের।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমাদ জিয়া জানিয়েছেন, শনিবার থেকে স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত এ কারফিউ চলবে।

কারফিউ জারির কারণ, অনেক বছর ধরেই যুদ্ধরত এলাকাগুলো দিনেরবেলা দখল করেছিল আফগান বাহিনী, আর অধিকাংশ ক্ষেত্রে তালেবান বিজয় পেয়েছে রাতের বেলা।

কারদান বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রধান ফাহিম সাদাত বলেন, আফগানিস্তানের শহরগুলোর বিশাল জনগোষ্ঠীকে কারফিউ এ বার্তা দেবে যে, যুদ্ধ এখন বাড়ির দরজায়, সমাজের যে অংশ নিজেদের সরকারের সমর্থক বলে ভাবে, তাদের এখন জেগে ওঠার সময় হয়েছে।

গত মে মাস থেকে আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ অঞ্চল দখল করতে শুরু করে তালেবান। মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো সেনারা দেশটি ছেড়ে যাওয়ার পরই কৌশলগত সীমান্তগুলো তারা দখল করে ফেলেন।

তালেবান ঠেকাতে আফগানিস্তানে নৈশকালীন কারফিউ জারি

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ জুলাই ২০২১, ০১:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবানের অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগানিস্তানের ৩৪ প্রদেশের মধ্যে ৩১টিতেই নৈশকালীন কারফিউ জারি করেছে দেশটির সরকার।

শনিবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে— সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে এবং তালেবানের হামলা প্রতিহত করতে দেশের ৩১ প্রদেশে নৈশকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে। খবর আরব নিউজের।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমাদ জিয়া জানিয়েছেন, শনিবার থেকে স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত এ কারফিউ চলবে।

কারফিউ জারির কারণ, অনেক বছর ধরেই যুদ্ধরত এলাকাগুলো দিনেরবেলা দখল করেছিল আফগান বাহিনী, আর অধিকাংশ ক্ষেত্রে তালেবান বিজয় পেয়েছে রাতের বেলা।

কারদান বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রধান ফাহিম সাদাত বলেন, আফগানিস্তানের শহরগুলোর বিশাল জনগোষ্ঠীকে কারফিউ এ বার্তা দেবে যে, যুদ্ধ এখন বাড়ির দরজায়, সমাজের যে অংশ নিজেদের সরকারের সমর্থক বলে ভাবে, তাদের এখন জেগে ওঠার সময় হয়েছে।
 
গত মে মাস থেকে আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ অঞ্চল দখল করতে শুরু করে তালেবান। মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো সেনারা দেশটি ছেড়ে যাওয়ার পরই কৌশলগত সীমান্তগুলো তারা দখল করে ফেলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর